বুধবার, ১৬ Jun ২০২১, ১১:২৬ অপরাহ্ন

অচেনা নগরীতে রূপ নিয়েছে সিলেট

অচেনা নগরীতে রূপ নিয়েছে সিলেট


শেয়ার বোতাম এখানে

শাফী চৌধুরী :
চীনের হুবেই প্রদেশ থেকে গত ডিসেম্বর মাসে উৎপত্তি হয় করোনা ভাইরাস। কিন্তু উৎপত্তিস্থলের মধ্যেই এখন আর এ ভাইরাসটি সীমাবদ্ধ নেই। অতিকায় ক্ষুদ্র এ করোনা ভাইরাসে কাঁপছে বিশ্ব।বিশ্বের ১৯২ টি দেশে আঘাত হেনেছে করোনা। বাদ যায়নি বাংলাদেশও।

এখন পর্যন্ত দেশে ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে করোনা ভাইরাসে। আক্রান্ত হয়েছেন ৩৩ জন। হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন কয়েক হাজার প্রবাসী। সর্বত্রই ‘করোনা’ উদ্বেগ। করোনার উদ্বেগ থেকে বাদ যায়নি সিলেট। করোনা ভাইরাস উদ্বেগে প্রতিদিন ঝিমিয়ে পরছে সিলেট নগরী। রোববার করোনার উপসর্গ নিয়ে শহীদ সামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালে যুক্তরাজ্য ফেরত এক মহিলা মারা যায় করোনা আতঙ্ক আরো বৃদ্ধি পেয়েছে।এদিকে গতকাল থেকে বিপনী বিতান ও অনেক রেষ্টুরেন্ট বন্ধ হয়ে যাওয়া কোলাহলপূর্ণ ব্যস্ত নগরী এখন নিরব। ব্যস্ত সড়ক কোলাহলমুক্ত ফাঁকা। অতি প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাহিরে আসছে না কেউই।

সরেজমিনে সিলেট নগরী ঘুরে দেখা যায়, ক্রমবর্ধমান ভাইরাসের উদ্বেগের কারণে ইতোমধ্যে দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষনা করা হয়েছে। সরকারের পক্ষ থেকেও প্রয়োজন ছাড়া বাইরে বের না হওয়া এবং জনসমাগম স্থানগুলো এড়িয়ে চলার নির্দেশনা দেয়ার কারণেও রাস্তাগুলো ফাঁকা হচ্ছে ক্রমশ।

গতকাল সোমবার সিলেটের ব্যস্ততম সড়কে মানুষের উপস্থিতি ছিল খুবই অল্প, গাড়িও ছিল হাতে গোনা। অফিস ও আদালত পাড়া ছিল অনেকটাই ফাঁকা। আদালতের কর্ম সীমিত করে আনার কারণে জরুরী প্রয়োজন ছাড়া কেউ আদালতে আসছেন না। যারাই এসেছেন তাদের অনেককেই দেখা গেছে সুরক্ষা মাস্ক ব্যবহার করতে। এদিকে সরকারী বেসরকারী হাসপাতাল গুলোতে দর্শনার্থী প্রবেশে সীমাবদ্ধতা করার কারণে হাসপাতালগুলো অনেকইটাই দর্শনার্থী শূণ্য ছিল।

ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, হাসপাতালের প্রবেশ পথে আনসার সদস্যরা শুধুমাত্র রোগী ও রোগীর সাথে একজন অভিভাবককে হাসপাতালে প্রবেশ করতে দিচ্ছে। অহেতুক কাউকে হাসপাতাল চত্বরে জটলা বাঁধতে দিচ্ছে না আনসার সদস্যরা। সেই একই দৃশ্য নগরীর অন্যান্য হাসপাতালগুলোতে। ব্যাংক, বীমা অফিসগুলোতে গিয়ে দেখা যায়, স্যানিটাইজার দিয়ে হাত পরিস্কার করে গ্রাহকদের অফিসে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হচ্ছে।

জরুরী প্রয়োজন ছাড়া ব্যাংকে না আসতে এবং এটিএম কার্ড ও অনলাইনে সেবা গ্রহন করতে গ্রাহকদের পরামর্শ দিচ্ছেন ব্যাংক কর্মকর্তারা। অনেকেই ঘরের বাইরে না যাওয়ায় দীর্ঘ সড়ক নিরব, ফাঁকা। প্রায় জনশূন্য।

ভিড় নেই কদমতলি বাসস্ট্যান্ড, কুমারগাঁও বাসস্টেন্ড, জিন্দাবাজার,বন্দরবাজার, বারুতখানা, আম্বরখানাসহ বিভিন্ন ব্যস্ততম রাস্তা। সড়কে ঢিমেতালে দায়িত্ব পালন করছে ট্রাফিক পুলিশরা। নগরীতে মাইক লাগিয় করোনা ভাইরাসে করণীয় সম্পর্কে সচেতনতামূলক তথ্য প্রচার করা হচ্ছে সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে।

এদিকে সোমবার সকাল থেকে নগরীর বিপনী বিতান ও কয়েকটি খাবার রেষ্টুরেন্ট বন্ধ করে দেওয়ায় নগরীর আরো ফাঁকা হয়ে যায়। অনেকটা অলস সময় পার করতে দেখা গেছে নগরীর বিভিন্ন সিএনজি ও রিক্রা চালকদের। স্ট্যান্ডে দাঁিড়য়ে থেকে যাত্রিদের জন্য অপেক্ষা করতে দেখা গেছে চালকদের।

জিন্দাবাজারের মুদি দোকানী শফিকুর রহমান বলেন, চারিদিকে করোনা আতঙ্ক।

ব্যবসা-বাণিজ্যেও করোনার প্রভাব ভর করেছে। আগে ভোর হওয়ার সাথে জিন্দাবাজার লোকে লেকারণ্য হত আর মধ্যরাতে জনশূণ্য হত। আজ কয়েকদিন থেকে সে দিকে থাকালে চিরচেনা জিন্দাবাজারকে চেনা যায় না। কাস্টমার এখন নাই বললে চলে। মানুষ ভয়ে আছে। সামনে রমজান। কীভাবে কি হবে বুঝতে পারছি না।

দ্রব্য মূল্যের দাম বৃদ্ধি সম্পর্কে তিনি বলেন, এ ধরনের কাজ কিছু খুচরা ব্যবসায়ীরা করেছেন । দাম তেমন বাড়ে নি। তাছাড়া আমরা যেখান থেকে মাল কিনে থাকি ওরা যদি দাম বাড়িয়ে দেয় তাহলে আমরা কীভাবে কমে দামে বা ন্যায্যমূল্যে বিক্রি করব। এক্ষেত্রে দেশের সকল মানুষ নিজ নিজ অবস্থান থেকে এগিয়ে আসতে হবে।

সিএনজি চালক ফয়সল মিয়া জানান, তিনি ভাড়ায় সিএনজি চালান। প্রতিদিন পরিবহন মালিককে ৫ শ টাকা দিতে ভাড়া বাবদ। কিন্তু গত ২ দিন থেকে নগরীতে যাত্রী কমে যাওয়া তেমন আয় করতে পারছেন না।

গতকাল মালিকের ৫ শ টাকা দিয়ে তিনি আয় করেছেন দেড়শ টাকা। এরকম চলতে থাকলে তিনি কয়েকদিনের জন্য গাড়ী চালানো বন্ধ করে দিবেন বলে প্রতিবেদককে জানান।

এদিকে সিলেট স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সিলেট বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক ডা. আনিছুর রহমান জানান, সিলেট বিভাগে ১০ মার্চ থেকে এখন পর্যন্ত ১৯৫২ জন হোম কোয়ারেন্টাইনে অবস্থান নিয়েছেন। নতুন করে সোমবার হোম কোয়ারেন্টাইনে আওতায় এসছেন আরো ৩৩৬ জন।

সিলেটের জেলা প্রাশসক কাজী এমদাদুল ইসলাম জানান, সিলেটের করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সর্তক অবস্থানে রয়েছে প্রশাসন। প্রবাসীদের হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখতে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে আমরা বিভিন্নভাবে মানুষকে সচেতন করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

ইতোমধ্যে পর্যটক স্পট গুলোতে পর্যটক আসতে নিরুৎসাহীত করা হয়েছে। রেষ্টুরেন্ট বন্ধের ব্যাপারে তিনি বলেন,রেষ্টুরেন্ট বন্ধ না করে প্যাকেট আকারে ক্রেতাদের সেবা দেওয়া যায়। রেষ্টুরেন্ট মালিকরা তা বন্ধ না করে এ প্রন্থা অবলম্বণ করতে পারতেন।তিনি আরো বলেন, জরুরী প্রয়োজন ছাড়া কারো বাসা থেকে বের না হওয়া ভাল।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin