শনিবার, ০৬ মার্চ ২০২১, ০১:১৮ অপরাহ্ন

অনলাইনে পণ্যের অর্ডার নিয়ে প্রতারণা করতেন তারা!

অনলাইনে পণ্যের অর্ডার নিয়ে প্রতারণা করতেন তারা!


শেয়ার বোতাম এখানে

প্রতিদিন ডেস্ক 
প্রথমে নামি-দামি বিভিন্ন ব্র্যান্ডের পণ্যের ছবি অনলাইন থেকে ডাউনলোড করতেন তারা। এরপর কম্পিউটারে ফটোশপের মাধ্যমে সেই ছবিতে কাজ করে নিজেদের পণ্য ব্র্যান্ডিংয়ের মাধ্যমে অনলাইনে বিজ্ঞাপন দিতেন। কম দামের পণ্যে ব্র্যান্ডের পণ্যের লোগো এবং সিল লাগিয়ে কমমূল্যে ক্রেতাদের আকৃষ্ট করতেন এই প্রতারক চক্রের সদস্যরা।
ক্রেতারাও নামি-দামি ব্র্যান্ডের পণ্য কম মূল্যে অনলাইন দেখে বেশ আকৃষ্ট হতো। এরপর ওই বিজ্ঞাপন দেখে যোগাযোগ করে নানা ছল-ছাতুরির মাধ্যমে ক্রেতাদের কাছে নিম্নমানের পণ্যসামগ্রী দিয়ে প্রতারণা করতেন তারা।
আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর কাওরান বাজারের র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানিয়েছেন র‌্যাব-৪-এর অধিনায়ক চৌধুরী মঞ্জুরুল কবির।
গতকাল বুধবার রাজধানীর দারুস সালাম এলাকা থেকে অনলাইনে শপিংয়ের মাধ্যমে প্রতারণা করে এমন প্রতারকচক্রের সাত সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ান (র‌্যাব-৪)।
গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন, মো. সুজন মোল্লা (২৬), মো. হাসিবুল হাসান চঞ্চল (৩২), মো. জারদিস হোসেন (২০), মো. মেহেদী হাসান (২৩), মো. নুর ইসলাম (১৯), মো. পারভেজ মোল্লা (১৯) ও মো. আবু তাহের (১৯)।
এ সময় গ্রেপ্তারকৃতদের কাছ থেকে প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত কম্পিউটার, মোবাইল, রাউটার, অনলাইনে প্রদর্শিত মালামালের স্যাম্পল এবং নিম্নমানের পণ্যসামগ্রী জব্দ করা হয়।
গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে র‌্যাব জানিয়েছে, অনলাইন থেকে নামি-দামি বিভিন্ন ব্র্যান্ডের পণ্যের ছবি ডাউনলোড করত প্রতারক চক্রটি। এরপর কম্পিউটারে ফটোশপের মাধ্যমে সেই ছবিতে কাজ করে নিজেদের ব্রান্ডের পণ্য অনলাইনে বিজ্ঞাপন হিসেবে প্রচার করত। ব্র্যান্ডের পণ্যের আড়ালে নিজেদের নিম্মমানের পণ্যে লোগো এবং সিল লাগিয়ে কমমূল্যে ক্রেতাদের আকৃষ্ট করে অনলাইনে অর্ডার গ্রহণ নিত। এরপর পণ্য বিক্রয়ের জন্য ক্রেতাদের কাছ থেকে প্রথমে সার্ভিস চার্জ হিসেবে ঢাকার ভেতরে ১০০ টাকা এবং ঢাকার বাইরে হলে সর্বোচ্চ ৩০০ টাকা পর্যন্ত গ্রহণ করত।
হোম ডেলিভারির ক্ষেত্রে ক্রেতার কাছ থেকে পণ্যের সমুদয় মূল্য গ্রহণ করে পণ্য সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ক্রেতার নিকট প্রেরণ করত। কিন্তু ক্রেতারা যখন পণ্য হাতে পেত, তখন তা খুলে নিম্নমানের পণ্যসামগ্রী দেখে তাদের ফোন দিলে প্রতারকচক্রটির সদস্যরা তাদের বোঝাতো যে, তারা তাদের চাহিদা মোতাবেক আসল পণ্যটি প্রেরণ করেছেন। একই সঙ্গে তারা জানাতো, হয়তো পণ্য সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের ভুলের কারণে তারা নিম্নমানের পণ্য পেয়েছেন।
এছাড়া প্রতারকচক্রটি ক্রেতার নিকট থেকে পণ্যসামগ্রীর মূল্য বাবদ সমুদয় অর্থ অগ্রিম গ্রহণ করেও ক্রেতাকে কোনো প্রকার পণ্যসামগ্রী সরবরাহ না করার মতো গুরুতর অভিযোগ রয়েছে। গ্রাহক কর্তৃক বারবার ফোন করলে প্রতারকচক্রটি পণ্য সরবরাহকারী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান যেমন- এসএ পরিবহন, কন্টিনেন্টাল কুরিয়ার সার্ভিস, সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিস এর সঙ্গে যোগাযোগ করার জন্য বলত। এভাবেই তারা একের পর এক অনলাইনের পণ্যের অর্ডারে মাধ্যমে সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করত।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin