শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল ২০২১, ০৬:৩৬ পূর্বাহ্ন

অনুপ্রেরণায় ‘সূচনা’ কুলাউড়ায় সবজি চাষে গৃহিনি রুনার বাজিমাত

অনুপ্রেরণায় ‘সূচনা’ কুলাউড়ায় সবজি চাষে গৃহিনি রুনার বাজিমাত

smart

শেয়ার বোতাম এখানে

আবদুল আহাদ, কুলাউড়া: প্রবল ইচ্ছাশক্তি আর পরিশ্রম থাকলে যে কোনো কাজেই সফলতা পাওয়া সম্ভব। পরিবারে উপার্জনকারী পুরুষের পাশাপাশি নিজেকেও তুলে ধরা যায়। তার প্রমাণ কুলাউড়া উপজেলার ব্রাহ্মণবাজার ইউনিয়নের দক্ষিণ হিংগাজিয়া গ্রামের গৃহিনি রুনা বেগম (৩০)। বাড়ির সামনের জমিতে শাক সবজি চাষ করে তিনি আজ অনেকটা সাবলম্বী। শুধু তাই নয়, ব্রæকলি জাতীয় সবজি চাষ করে এলাকায় রীতীমত বাজিমাত করেছেন তিনি। তবে, এসবের পেছনে সিএনআরএস ‘সূচনা’ প্রকল্পের অনুপ্রেরণার কথা উল্লেখ করেছেন রুনা বেগম।

সরেজমিনে জানা যায়, উপজেলার দক্ষিণ হিংগাজিয়া এলাকার ছায়েদ আহমদ একা কাজ করে সংসার চালানো অসম্ভব হয়ে উঠছিলো। স্বামীকে সহায়তা করতে ইচ্ছে জাগে স্ত্রী রুনা বেগমের। ওই সময় তাদের এলাকায় (২০১৭ সাল) এনজিও সংস্থা সিএনআরএস ‘সূচনা’ বিভিন্ন প্রকল্প নিয়ে কাজ শুরু করে। সেই ‘সূচনা’ কর্মকর্তাদের পরামর্শ এবং তাদের দেয়া বিজ ও বিভিন্ন উপকরণ পেয়ে রুনা বেগম শুরু করেন শাক-সবজি চাষাবাদ।

বাড়ির সামনের জমিতে লালশাক, আলু, বেগুন, টমেটো, মিষ্টি কুমড়া, সিম, গাজর প্রভৃতি সবজি চাষ করেই আজ তিনি সফল ও স্বাবলম্বী একজন কৃষক হিসেবে এলাকায় পরিচিতি লাভ করেছেন। তবে, এবছর তিনি ব্রæকলি (এলাকায় নতুন) জাতীয় সবজী চাষ করে এলাকায় রীতীমত বাজিমাত করেছেন। ব্রæকলির বাম্পার ফলন দেখে সূচনা কর্মকর্তা ছাড়াও স্থানীয় কৃষি কর্মকর্তাও রীতীমত অবাক।

রুনা বেগম জানান, ভালো পরামর্শ ও সহযোগীতা পেলে যে কোন মানুষই লক্ষ্য অর্জন করতে পারে। আমি সূচনার অনুপ্রেরণায় সবজি চাষ শুরু করি। আজ এলাকার অনেকেই আমার সবজি ক্ষেত দেখতে আসেন এবং পরামর্শ নিয়ে সবজি চাষে উৎসাহী হচ্ছেন। এছাড়াও সূচনার কাছ থেকে আর্থিক সহায়তা পেয়ে হাস-মুরুগ লালন-পালনও করছেন তিনি।

সিএনআরএস সূচনা প্রকল্পের উপজেলা কো-অর্ডিনেটর তৌহিদুর রহমান জানান, কুলাউড়া উপজেলার ৬ টি ইউনিয়নে কৃষি, পুষ্টি, হাঁস-মুরগ, ছাগল-ভেড়া পালন, মাছ চাষ, সেলাই প্রশিক্ষন ও মেশিন প্রদানসহ স্বাস্থ্য সচেতনতা নিয়ে সূচনা কাজ করছে। অন্যান্য সবজি বীজের পাশাপাশি ব্রাহ্মণবাজার ইউনিয়নের দু’জন কৃষককে পরীক্ষামূলক ব্রæকলি (এলাকায় নতুন) জাতীয় সবজি বীজ দেয়া হয়। এতে তারা দু’জনই সফল। তবে দক্ষিণ হিংগাজিয়া এলাকার রুনা বেগম ব্রæকলি চাষ করে রীতীমত বাজিমাত করেছেন।

কুলাউড়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জগলুল হায়দার জানান, কৃষি বিভাগ থেকে সচরাচর সবজি বীজ দেয়ার সুযোগ থাকেনা। তবে আমাদের পক্ষ থেকে সবসময় কৃষকদের সার্বিক পরামর্শ দেয়া হয়। কৃষি অফিসের পরামর্শে সূচনা প্রকল্পের মাধ্যমে বিভিন্ন কৃষককে নতুন জাতের সবজির বীজ দেয়া হয়েছে। তাদের মধ্যে হিংগাজিয়া এলাকার রুনা বেগম ব্রæকলি চাষ করে বেশ সফল হয়েছেন। তার চাষে ব্রæকলিগুলো অনেক বড় হয়েছে, যা এ উপজেলায় বিরল।



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin