বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২, ০৫:৫৫ পূর্বাহ্ন


অবস্থান পাল্টে আবারো ধলাই নদীতে প্রকাশ্যে লিষ্টার মেশিন : হুমকির মূখে কয়েকটি গ্রাম

অবস্থান পাল্টে আবারো ধলাই নদীতে প্রকাশ্যে লিষ্টার মেশিন : হুমকির মূখে কয়েকটি গ্রাম


শেয়ার বোতাম এখানে

আব্দুল্লাহ আল নোমান, কোম্পানীগঞ্জ:

কোম্পানীগঞ্জে আদালতের রায়কে বৃদ্ধাঙ্গুলি আঙ্গুল দেখিয়ে অবস্থান পাল্টে ধলাই নদীতে আবারো পাথর উত্তোলনের মাধ্যমে চলছে পরিবেশ ধ্বংসের মহোৎসব। ধলাই নদীর ঢালারপাড় এলাকায় প্রকাশ্যে ১৫-২০ টি ছোট লিস্টার বোমা মেশিন চলছে । সেখানে দিনেরাতে ৫০০-৬০০ ছোট ছোট বারকি নৌকা দিয়ে চলছে পাথর লুট। দিন দিন পাথর লুট ও অবৈধ লিষ্টার মেশিনের মাধ্যমে বাড়ছে তান্ডবলীলা। এ তান্ডবের ফলে নদীতে নতুন করে বিলীনের পথে আরো কয়েকটি গ্রাম।

গত ২-৩ মাস থেকে অবৈধ পাথর উত্তোলন ও বোমা মেশিন ও লিষ্টার মেশিন বন্ধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দেখা তৎপরতা দেখা গেলেও ঢালার পাড় এলাকায় প্রকাশ্যে লিষ্টার মেশিন দিয়ে পাথর উত্তোলনের ব্যাপারে তাদের ভূমিকা নিয়ে রহস্য দেখছেন স্থানীয়রা। স্থানীয়রা লিস্টার বোমা মেশিন বন্ধে নানা পদক্ষেপ নিলেও একটি চক্র লিস্টার বোমা মেশিন বড় বোমা মেশিনের থেকে আকারে ছোট হওয়ার লিস্টার বোমা মেশিনকে বৈধ এবং লিস্টার বোমা মেশিনের মাধ্যমে পাথর উত্তোলন করাকে সনাতন পদ্ধতি দাবি করে প্রশাসনকে বিভ্রান্ত করছে বলে অভিযোগ করেন স্থানীয়রা।

তবে বিদ্যমান খনি ও খনিজসম্পদ বিধিমালায় বলা আছে, ভূমি থেকে পাঁচ মিটার বা ১৬ দশমিক ৪০ ফুট গভীরতা পর্যন্ত কোয়ারিতে পাথর তোলা যাবে শুধু অযান্ত্রিক পদ্ধতিতে। অযান্ত্রিকের সংজ্ঞায় বলা হয়েছে, পরিবেশসম্মত যন্ত্রপাতি। যেমন-দা, কোদাল, শাবল, বেলচা ও খন্তা। পাঁচ মিটারের বেশি গভীরতা হলে সেটা আর কোয়ারি থাকে না। সেটা হয় খনি। খনি কিংবা কোয়ারি থেকে যান্ত্রিক পদ্ধতিতে বা বোমা মেশিন দিয়ে পাথর তোলা নিষিদ্ধ।

স্থানীয়রা আরো জানায়, ভোলাগঞ্জ কোয়ারীতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে যেকোন উপায়ে পাথর উত্তোলনের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। আর ঢালারপাড় কোয়ারী না হওয়ায় সেখান থেকে লিষ্টার মেশিন দিয়ে পাথর উত্তোলন আইনের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি আঙ্গুল প্রদর্শন ছাড়া কিছুনয় বলে স্থানীয়রা অভিযোগ করেন।

সিলেটের বিভিন্ন কোয়ারিতে বোমা মেশিনে পাথর উত্তোলনের বিষয়ে হাইকোর্টে বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) পক্ষ থেকে দুটি রিট আবেদন করা হলে ২০১০ সালের ১৪ জানুয়ারি যান্ত্রিক পদ্ধতিতে পাথর উত্তোলন নিষিদ্ধ করে রায় দেন আদালত।

বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) সিলেট বিভাগীয় সমন্বয়কারী অ্যাডভোকেট শাহ শাহেদা বলেন, আদালতের রায়ে মেশিন নিষিদ্ধ করা হওয়ার পরে সরকারের পক্ষ থেকে যেকোন ভাবেই পাথর উত্তোলন নিষদ্ধ করা হয়েছে । কোয়ারী এলাকায় বাহির হাত দিয়ে ও একটি পাথর উত্তোলন করা সম্পূর্ণ অবৈধ। সেখানে কোন ভাবেই পাথর উত্তোলনের সুযোগ নেই। একটাকে পাথর চুরি না বলে পাথর ডাকাতি বলা যায়। এখানে প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অপরাগতা বলতে কিছু নেই প্রয়োজনে উদ্ধতন কর্মকতাদেও সহয়োগীতা নেয়ার আহবান জানান তিনি।

শাহ শাহেদা আরো বলেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীতে কিছুদিন পরপর ব্যাক্তিকে বদলানো হয় কিন্তু আচরণ বদলায় না। তাদের সমস্যা কোথায় তা বের করে সমস্যা সমাধান করতে পুলিশের উদ্ধতন কর্মকর্তাদের প্রতি আহবান জানান। বার বার ব্যাক্তিকে বদলি করা সমাধান নয় বলে তিনি জানান।

কোম্পানীগঞ্জ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) রজি উল্লাহ বলেন ,“লিষ্টার চলার ব্যাপরটি শুনেছি। আপনারা ধরেন না কেন ? ধরে আমাদের খবরদেন দেখেন আমি কি করি ” ।

এ বিষয়ে কোম্পানিগঞ্জের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুমন আচার্য বলেন, এ বিষয়ে আমার জানা নেই । বিষয়টি খোজ খবর নিয়ে আইনআনুগ ব্যবস্থা নিচ্ছেন বলে জানান তিনি।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin