রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৯:৪৯ অপরাহ্ন

অরক্ষিত টিলাগড় ইকোপার্ক

অরক্ষিত টিলাগড় ইকোপার্ক


শেয়ার বোতাম এখানে

মো. মুন্না মিয়া: কাটা তারের বেড়ায় অরক্ষিত সিলেট নগরীর টিলাগড়স্থ বণ্যপ্রাণী সংরক্ষণ কেন্দ্র (ইকোপার্ক)। দেশের তৃতীয় ‘টিলাগড় ইকো পার্কে’ চারদিকে নেই কোনো নিরাপত্তা দেওয়াল। শুধুমাত্র মাত্র কাটাতারের বেড়া দিয়ে চারদিক বেস্টন করা হয়েছে। সীমানা প্রাচীর না থাকায় নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন পর্যটকরা। একই সাথে বিপাকে পড়েছেন পার্ক কর্তৃপক্ষও। সীমানা প্রাচীর না থাকায় অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে নিজস্ব লোক দিয়ে মনিটরিং করছে সবসময়।

 

এদিকে বিশ্বমানের এই গেল বছরের অক্টোবরে ৯টি প্রজাতির প্রায় ৫৮টি বন্যপ্রাণী নিয়ে আসার পর আর নতুন করে কোনো প্রজাতি সংযোজন হয়নি। ৪০ প্রজাতির সোয়া চারশত প্রাণী আনার কথা ছিল এই ইকোপার্কে। ফলে পর্যাপ্ত বন্যপ্রাণীর দেখা পাচ্ছেন না পর্যটকরা। তবে কর্তৃপক্ষ জানালেন ভিন্ন কথা। হাসপাতালের কার্যক্রম শুরু না হওয়ায় এখনো সব প্রজাতির প্রাণী আনা সম্ভব হচ্ছে না। এসব সমস্যা সমাধান করে ইকোপার্ককে বিশ্বমানের পার্কে রূপান্তিত করার আহ্বান জানিয়েছেন পর্যটকরা।

 

সংশিষ্ট সূত্র জানায়, দেশের তৃতীয় ইকোপার্ক সিলেটের টিলাগড় বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ কেন্দ্র। এখানে ৪০ প্রজাতির সোয়া চারশত বণ্যপ্রাণী নিয়ে আসা কথা ছিল। কিন্তু গত বছরের ৩০ অক্টোবর গাজীপুর সাফারি পার্ক থেকে এখানে নিয়ে আসা হয়েছে ৯টি প্রজাতির প্রায় ৫৮টি বন্যপ্রাণী। দক্ষিণ আফ্রিকা, অষ্ট্রেলিয়া, সৌদিআরব ও নেপালসহ আরও কয়েকটি দেশ থেকে ৪০ প্রজাতির প্রাণী আনার কথা ছিল এই পার্কে। ৪০ প্রজাতির প্রাণির মধ্যে রয়েছে- সিংহ, বাঘ, জেব্রা, হনুমান, বেজি, বনরুই, বাঘডাস, বনবিড়াল, শিয়াল, খেকশিয়াল, গন্ডার, এশীয় হাতি, পরিযায়ী পাখি, জলজ পাখি, বনছাগল, বিভিন্ন প্রজাতির বানর, কালো ভালুক, মিটা পানির কুমির, নীলগাই, জলহস্তি ইত্যাদি।

 

তবে বর্তমানে জেব্রা, চিত্রা হরিণ, ময়ূর, ছোট ছোট লাভ বার্ড, ম্যাকাও, গোল্ডেন ফিজেন্ট, সিলভার ফিজেন্ট, গ্রে-প্যারট, সান কনুরি, অজগর ইত্যাদি বন্যপ্রাণী উন্মোক্ত রয়েছে। এছাড়া শিশু কিশোরদের জন্য দোলনাসহ আরো একটি খেলনা সামগ্রীও রয়েছে পার্কে।
সূত্র জানায়, ইকোপার্কে কিছুদিন পূর্বেই বাঘ ও সিংহ আসার কথা ছিলো। কিন্তু আসেনি। কারণ হিসেবে সংশিষ্টরা জানিয়েছেন, বাঘ ও সিংহের শেডের অবস্থা নাজুক ও হাসপাতালের কার্যক্রম শুরু না হওয়ায় বাঘ সিংহ আনা হয়নি। তবে শিগগিরই বাঘ অথবা সিংহ নিয়ে আসা হবে। তাছাড়া অন্যান্য প্রাণীর সেবার জন্য পার্ক কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে একজন পশু চিকিৎসক নিয়োগ দিয়ে সাময়িকভাবে চলছে কার্যক্রম। শিগগিরই হাসপাতালের কার্যক্রম শুরু করার দাবি রয়েছে পার্ক কর্তৃপক্ষের।

 

এদিকে পার্কের বিভিন্ন সীমানা অরক্ষিত রয়েছে। নেই কোনো সীমানা প্রাচীর। ফলে অপ্রীতিকর ঘটনার সম্ভবনা রয়েছে। এসব ঘটনা এড়াতে পার্ক কতৃপক্ষ নিজস্ব লোক দিয়ে মনিটরিং করছে সার্বক্ষনিক। পাশাপাশি জনসচেতনায় পার্কের টিলার উপর উঠা বা জঙ্গলের ভেতরে প্রবেশ নিষেধ করেছে। যদি কেউ এই নির্দেশনা না মানে তাকে ডেকে এনে কাউন্সিলিং করে পার্কের দায়িত্বরতরা।

 

পার্কের ভেতর দিয়ে চলাচল করেন স্থানীয়রা। এজন্য পার্ক কর্তৃপক্ষের ভোগান্তির শিকার হতে হয়। পাশাপাশি স্থানীয়রাও বিড়ম্ভনার শিকার হচ্ছেন। প্রত্যেকেই পৃথক রাস্তা তৈরি করে স্থানীয়দের যাতায়াতের রাস্তা করে দিতে সংশিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।
সূত্র আরো জানায়, ১০ টাকা টিকিট মূল্যে পার্কের বিভিন্ন জীবজন্তু দেখতে পার্কে দর্শনার্থীদের ভিড় লেগে থাকে। বিশেষ করে তরুণ-তরুণী ও পরিবারের লোকজন বেশি আসেন। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরাও বনভোজন করেন দেশের তৃতীয় ইকোপার্কে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের ইকোপার্কে নিয়ে আসার বেশ কিছু কারণ চিহিৃত করেছেন সিলেট নগরের বাসিন্দা শিক্ষানুরাগী সৈয়দ ফিদা হাসান।

 

তিনি বলেন, এখানের বাতাসটা দূষণমুক্ত। দূষণমুক্ত বাসাতের মূল্যায়ন চিহিৃত করতে শিক্ষার্থীদের এখানে নিয়ে আসা হয়েছে। শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন প্রজাতির জীবজন্তুর সাথে পরিচয় করিয়ে দিতে সিলেটের মধ্যে এ স্থান অনেকটা এগিয়ে। এখানে জীবজন্তুর সংকট রয়েছে উলেখ করে তিনি বলেন, যেখানে যতো বেশি জীবজন্তু থাকবে; সেখানে দর্শনার্থীদের আগমন ঘটবে। তাই সংশিষ্টদের এ নিয়ে চিন্তা করতে হবে।
পার্কের পরিচালক সুবেদুর রহমান মুন্না বলেন, আমাদের পার্কে প্রতিদিন প্রচুর দর্শনার্থীরা আসেন। দর্শনার্থীদের চাহিদা অনুযায়ী জীবজন্তু আমাদের এখানে নেই। দর্শনার্থীদের চাহিদা অনুযায়ী বেশি বেশি জীবজন্তু প্রদান করতে সংশিষ্টরা সদয় হবেন বলে আমরা মনে করছি। তিনি আরো বলেন, আমাদের পার্কের ভেতর দিয়ে স্থানীয়রা যাতায়াত করেন। ফলে আমাদের কিছুটা সমস্যা পোহাতে হচ্ছে। এসব সমস্যা রোধ করতে পার্কের বাহির দিয়ে রাস্তা নির্মাণ করতে হবে।

 

তিনি বলেন, পার্কের টিকিট মূল্য একেবারে কম হয়ে গেছে। কিছুটা বৃদ্ধি করার প্রয়োজন। আমাদের স্টাফ খরচ চালানোও অসম্ভব হয়ে পড়েছে।
বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আরএসএম মুনিরুল ইসলাম বলেন, আমাদের যাত্রা বেশি হয়নি। ক্রমান্বয়ে পার্কের বিভিন্ন উন্নয়ন কার্যক্রম শুরু হবে। ইতিমধ্যে আমরা কুমির আনার ব্যবস্থা করে ফেলেছি। আগামী মাস খানেক পরে কুমির উন্মুক্ত করা হবে। এছাড়া চলতি মাসে আরো ১০টি চিত্রা হরিণ আনা হবে বলে জানান তিনি।

 

রাস্তার প্রসঙ্গে তিনি আরো বলেন, এলজিইডি কর্তৃপক্ষের কাছে আমরা রাস্তার জন্য চাহিদা প্রেরণ করেছি। যদি চলতি অর্থবছরে এলজিইডি রাস্তা করে না দেয়; তাহলে পরবর্তীতে আমরা নিজেরাই রাস্তা নির্মাণ করবো। বাঘ ও সিংহের ব্যাপারে তিনি বলেন, আমরা যে দুটি শেড তৈরি করেছিলাম। সেই দুটির মধ্যে একটি শেড ভালো রয়েছে। ফলে বাঘ ও সিংহের মধ্যে যেকোনো একটা আনা হবে।



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর




themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin