রবিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২১, ০১:৪০ অপরাহ্ন

অর্থনৈতিক উন্নয়নে নারীরা পুরুষের ‘ফাস্টহ্যান্ড’: সুমি

অর্থনৈতিক উন্নয়নে নারীরা পুরুষের ‘ফাস্টহ্যান্ড’: সুমি


শেয়ার বোতাম এখানে

এমমাদুল হক মান্না
সিলেটে নারীমুক্তির আন্দোলন স্থানীয়ভাবে শুরু করে নারীরাই। নিজেকে বিকশিত করতে পুরুষের পাশাপাশি নারীরাও মাঠে রয়েছে। তবে দেশের তুলানায় সিলেটে এখনো নারীরা তাদের পুর্ণাঙ্গ অধিকার প্রতিষ্ঠিত করতে পারেনি।

পুরুষ শাসিত সমাজে নারীরা এখনো অবজ্ঞার শিকার। কোথাও পারিবারিক বাধার মুখে নারী নিজেদের গ-ির বাইরে নিয়ে আসতে পারছেনা।
আন্তর্জাতিক নারী দিবস ৮ মার্চ।

এ দিবসকে সামনে রেখে নারীদের নানা সমস্যা-সম্ভাবনার কথা নিয়ে শুভ প্রতিদিনের আজকের আয়োজন।

বিলকিস আক্তার সুমি। আপাদমস্তক একজন সংগ্রামী নারী। ঝুঁকিপূর্ণ সাংবাদিকতা পেশায় জড়িয়ে রেখেছেন নিজেকে। এ নিয়ে বারবার নির্যাতিত হয়েছেন। শারীরিকভাবে আক্রান্ত হয়েছেন। অবজ্ঞা, অবহেলার শিকার হয়েছেন। তারপরও হাল ছেড়ে দেননি অকোতভয় এই নারী। তিনি নারীদের মুক্তির আন্দোলনে এক মূর্তপ্রতীক।

এই নারী স্বীয় পেশায় কাজ করার সময় পরপর তিনবার শারীরিক নির্যাতনের শিকার হন। কয়েক বছর আগে সিলেটের ডিসি অফিস ঘেরাও কর্মসূচির সময় সাংবাদিকতা পেশায় দায়িত্বপালন করতে তার মাথায় ঢিল পড়ে। শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভিসির বাসবভনে আগুন দেয়ার সময় দায়িত্বপালনে আহত হন এই নারী।

বিশ্বনাথে ইলিয়াসপন্থী ও মুহিবপন্থীদের সংঘর্ষের সময়ও সাংবাদিতকা করতে গিয়ে তিনি আহত হয়েছিলেন। এসবের ভয় দমিয়ে রাখতে পারেনি তাকে। নারীদের সাহস যোগাতে এখনো মাঠে ময়দানে নিজেকে নিয়োজিত রেখেছেন সাংবাদিকতা পেশায়। তিনি বর্তমানে টেলিভিশন চ্যানেল গাজি টিভির ব্যুরোপ্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন।

তার স্বামী ওয়েছ খছরু সিলেটের একজন খ্যাতিমান সাংবাদিক। সুমির পেশাকে সম্মান জানিয়ে উৎসাহ প্রদান ও সার্বিক সহযোগিতা করছেন ওয়েছ খছরু।
বিলকিস আক্তার সুমি বলেন, যখন স্কুলে লেখাপড়া করছি, তখন বাংলা একটি সিনেমায় সাংবাদিকতা পেশায় অভিনয় করতে দেখি নায়িকা শাবানাকে। তখন থেকে আমি সাংবাদিক হতে আগ্রহী।

ঝুঁকিপূর্ণ জেনেও এই পেশায় নিজেকে জড়ানোর কারণ হল- সিলেটের নারীরা এখনো ভয়কাতুরে। ঘর থেকে আমার বেরিয়ে পড়া দেখে যেন অন্য নারীরা উৎসাহিত হয়। যেন বুঝতে পারে সবচে বড় ঝুঁকির পেশাও নারীরা করতে পারে।

২০০৩ সালে আমি সাংবাদিকতায় যোগদান করি। সে সময় শহীদ মিনারের সামনে মানববন্ধনের তথ্য সংগ্রহ করছিলাম। শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে থাকা একজন সাংবাদিক খোঁচা দিয়ে বলেছিলেন- কেমন সাংবাদিকতা কর। হাতে ক্যামেরা নেই।

এরপর থেকে ক্যামেরা নিয়ে মাঠে-ময়দানে ছবি তোলার জেদ চেপে বসে আমাকে। সিদ্ধান্ত নেই ক্যামেরা নিয়ে সাংবাদিকতা করব। তখন সাংবাদিক আল-আজাদ ভাইকে বলি – আমি সাংবাদিকতার পাশাপাশি ফটোগ্রাফার হব। তখন ক্যামেরা হাতে নিয়ে চ্যানেল আইতে ভিডিও করতাম।

পাশাপাশি তখন স্থিরচিত্র ধারণ করে স্থানীয় দৈনিক সুবজ সিলেট পত্রিকায় সরবরাহ করতাম। তখন সবুজ সিলেট পত্রিকার ডামি সংখ্যা প্রকাশ হচ্ছিল।
একদিনের ঘটনা – সিলেট কোর্টপয়েন্টে একটি সভা হচ্ছিল।

সেখানে অতিথি ছিলেন দেলওয়ার হোসেন সাঈদি। আমি যখন অনুষ্ঠানের স্টেজে উঠে রেকর্ডিয়ে ব্যস্ত, তখন অডিয়েন্স থেকে কয়েক লোক উচ্চ আওয়াজ করে বলেছিলেন- স্টেজ থেকে ওই মহিলাকে নামিয়ে দাও।

তা না হলে আমরা মহিলাকে ঢিল ছুঁড়ে নামিয়ে আনব। এ কথা শুনে অতিথি সাঈদি বলেছিলেন- উনি ক্যামেরা নিয়ে ভিডিও রেকর্ড করছেন। এটা রেকর্ড না হলে টেলিভিশন কিভাবে প্রচার করবে। আর আমার কথা মানুষ শুনবে কিভাবে। সেদিন এ কথা শুনে উত্তেজিত লোকজন শান্ত হয়েছিল। আমি অবশ্য সেসময় কিছুটা ভয় পেয়েছিলাম। তবে স্টেজ ছেড়ে নামিনি।

বর্তমান সময়ে এসে নারীরা বিভিন্ন পেশায় এগিয়ে এসেছেন কি না প্রশ্নে তিনি বলেন- মেয়েরা অবশ্যই এগিয়েছেন। তবে সিলেটে এখনো পিছুটান রয়েছে। পরিবারের বাধার মুখে এখনো নারীরা পুরুষের পাশাপাশি এসে উন্নয়ন প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে পারছেন না।

সিলেটের নারীরা অর্থনীতিতে বড় ধরণের অবদান রাখতে পারছেন না কেন প্রশ্নে তিনি বলেন, স্থানীয়ভাবে কাজের ক্ষেত্র কম। বিনিয়োগে নিরাপত্তার অভাব। সরকারের যে পরিমাণ সহযোগিতা করার কথা তা অনুপস্থিত।

সিলেটের নারীদের অধিকার বৃদ্ধির জন্য ও বিনিয়োগে উৎসাহিত করতে সরকারের কি প্রদক্ষেপ নেয়া দরকার প্রশ্নে তিনি বলেন- সরকারের সার্বিক সহযোগিতা প্রয়োজন। নারীদের জন্য যেসব সুবিধা সরকার চালু করেছে তা নিয়ে ব্যাপক প্রচার প্রয়োজন। সেমিনার সিম্পোজিয়ামে নারীর অংশগ্রহণ বাড়াতে হবে।

সিলেটের নারীদের জন্য অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির কি কি সুযোগ রয়েছে প্রশ্নে তিনি বলেন- ইন্টারনেটে আউটসোর্সিংয়ের সুবিধা রয়েছে। অনলাইনে ব্যবসার সুযোগ রয়েছে। বুটিক কাজের সুবিধা রয়েছে। আমি নিজেও বুটিকের কাজ শিখেছিলাম। এ নিয়ে ব্যবাসাও করেছি। যুবউন্নয়নে প্রাথমিক প্রশিক্ষণ ও বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ নেই। নারীদের জন্য বুটিকসহ অনেক সুযোগ আছে স্বাবলম্বী হবার।

আজকের সমাজের নারীদের সম্পর্কে কিছু বলুন- আজকের সমাজের নারীরা অনেক এগিয়ে আসছেন বিভিন্ন পেশায়। অর্থনৈতিক সমৃদ্ধিতে নারীরা ঘর ছেড়ে বেরিয়ে পড়েছেন। আমি বলব- অর্থনৈতিক সমৃদ্ধিতে নারীরা এখন পুরুষের ফাস্টহ্যান্ড।

নারীরা পুরুষের প্রতিযোগি নয়, সহযোগি হতে চায়। পুরুষরাও যেন নারীদের অবজ্ঞা-অবহেলা না করে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধিতে নানাভাবে আগ্রহী করে।



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin