বুধবার, ১২ মে ২০২১, ০১:০১ পূর্বাহ্ন

আঁধার শেষে আলোর দেখা মিলবেই

আঁধার শেষে আলোর দেখা মিলবেই


শেয়ার বোতাম এখানে
  • 92
    Shares

এম এ ওয়াদুদ এমরুল:

ভয়াবহ সব দুর্যোগ মোকাবেলা করে পৃথিবীতে আজও টিকে আছে প্রাণের অস্তিত্ব। নানা সঙ্কট অসীম সাহসে মোকাবেলা করে এগিয়েছে মানব সভ্যতা। ক্ষনিকের জন্য থমকে গেছে হয়ত তবে মুখ থুবড়ে পড়েনি। তাই তো আজকের অবস্থানে পৌঁছুছে পৃথিবী। প্রাকৃতিক দুর্যোগ, মহামারী, মনুষ্য সৃষ্ট দুর্যোগে বহুবার আক্রান্ত হয়েছে পৃথিবী। দু-দুটি বিশ্ব যুদ্ধের পরেও অচল প্রায় পৃথিবীকে সচল রেখেছে একদল উদ্যমী মানুষ। এঁদের কাছে সঙ্কট মানেই চ্যালেঞ্জ। মোকাবেলা করেছে শক্ত হাতে। সাফল্যও মিলেছে। ভগ্নদশার জগাখিচুড়ি মার্কা পৃথিবীকে বাসযোগ্য রেখেছে যাঁরা এঁদের প্রতি অন্তহীন কৃতজ্ঞতা।

‘কোয়ারেন্টাইন’ শব্দটি আমার কাছে আনকোরা, নতুন। পৃথিবী কোভিড-১৯’ এ আক্রান্ত না হলে হয়ত এ শব্দটি শুনতেও পেতাম না। অনেক কষ্টে শব্দটি মুখস্থ করেছি। এর অর্থ নাকি একেলা থাকা। অথচ জনম জনম শুনে এসেছি একত্রে ও মিলেমিশে বাস কর, যৌথ পরিবারে বসবাস কর। আজ শুনি ভিন্ন কথা। পাশ্চাত্য সভ্যতা হিসাবে নানা গল্পগাথায় শুনেছি বটে তবে জীবদ্দশায় এর প্রত্যক্ষদর্শী হবো ভাবিনি। করোনাভাইরাস এটিও শিখিয়ে দিলো। প্রচন্ড সংক্রামক এই ব্যাধিতে আক্রান্ত ব্যক্তির হাঁচি-কাশি, এমনকি ছোঁয়া থেকেও অন্যের শরীরে এই ব্যাধি ছড়াতে পারে। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা তা-ই বলছেন। অতএব, নিজে ও অন্যকে সুস্থ্য রাখতে কোয়ারেন্টাইনের গুরুত্ব অপরিসীম।

পৃথিবীতে জুড়ে লক-ডাউন চলছে। এই লক-ডাউনও আগে শুনেছি বলে মনে পড়ে না। নিজের চেনাজানা শহর, চিরচেনা গ্রাম, পাড়া-মহল্লায় অকারণে বেরুনো নিষেধ। কি দুঃসময় অতিক্রম করছি, ভাবতে অবাক লাগে। যেন যুদ্ধের জরুরী অবস্থা। হাটবাজার, মোড়ের দোকানে যেতেও বাঁধা। নির্দিষ্ট সময় অন্তে ছোটখাটো দোকানী দোকান বন্ধ করে স্বেচ্ছায় গৃহবন্দীত্ব মেনে নিয়েছে। চা, মুদি দোকানিসহ যারা অতি সাহসী এবং রোজগারে নিরূপায় এঁরা পেটের তাগিদে সব সাটার বন্ধ করেও কবুতরের খোপের মতো একটি সাটার খুলে খদ্দেররের অপেক্ষায় থাকে। তবুও যদি বাচ্চাকাচ্চার মুখের আহার জুটে।

কতটা বীভৎস হয়েছে পৃথিবীর চেহারা! বছর খানেক আগেও পৃথিবীর এমন রূপ কেউ কল্পনা করেনি। আমাদের দেশ তো না-ই। উন্নত দেশগুলো নিরাপদ ও সুরক্ষার নামে কত অস্ত্রসস্ত্র বানিয়েছে। পারমাণবিক অস্ত্রের মহড়া করেছে। নিজ দেশের লাখো মানুষকে অভুক্ত রেখে সমরাস্ত্রের মজুদ বাড়িয়েছে। পৃথিবী যখন কোভিড-১৯’ এ আক্রান্ত তখন দেখা গেলো মারনাস্ত্র, পরমাণু বোমা সবই অকেজো। যত শক্তিধর দেশই হোক, এই সঙ্কটে সেসব দেশের কোনো বোমা করোনা মোকাবেলায় ভূমিকা রাখতে পারছে না। আমেরিকা নিজেদের সবচেয়ে শক্তিধর ভাবে। অথচ কোভিড-১৯’র ছোবল এখন সেখানেই বেশি।

আমেরিকাকে দোষারোপ করে তৃপ্তির সময় এটি নয়। বলছি, এটি সচেতনতার বিষয়। সময় মতো সচেতন হলে ইরান, ইটালি, স্পেন, যুক্তরাজ্য এবং আমেরিকা এই বিপর্যয় ঠেকাতে পারতো। কিন্তু উন্নত দেশগুলো বিষয়টিকে গুরুত্ব দেয়নি। আজ এর খেসারত দিচ্ছে। ঘণবসতির বাংলাদেশে এই সঙ্কট কতটা ঝুঁকিপূর্ণ তা অকল্পনীয়। গায়ে গায়ে লেগে আছি আমরা। ঘরবন্দী থাকা বাঙালির স্বভাব বিরুদ্ধ। ফলে একজন আক্রান্ত হলে লাফিয়ে বাড়বে আক্রান্তের সংখ্যা। সেজন্য উচিৎ হবে সরকারি নির্দেশ মেনে চলা। নিজে বাঁচুন, অন্যকে বাঁচান। সর্বোপরি দেশ বাঁচান। সঙ্কট যতই গভীর হোক আঁধার শেষে আলোর দেখা মিলবেই।

লেখক: সাবেক সাধারন সম্পাদক,গোলাপগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগ।



শেয়ার বোতাম এখানে
  • 92
    Shares

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin