মঙ্গলবার, ১১ মে ২০২১, ১১:০১ পূর্বাহ্ন

আগামী ১৯-২০ মে ঘূর্ণিঝড়ের আশঙ্কা : বঙ্গোপসাগর লঘুচাপ

আগামী ১৯-২০ মে ঘূর্ণিঝড়ের আশঙ্কা : বঙ্গোপসাগর লঘুচাপ


শেয়ার বোতাম এখানে

শুভ প্রতিদিন ডেস্ক:
বঙ্গোপসাগর ও আন্দামান সাগরে সৃষ্টি হওয়া লঘুচাপটি শক্তিশালী হয়ে সুস্পষ্ট লঘুচাপে পরিণত হয়েছে। এটি আরও শক্তিশালী হলে শেষ পর্যন্ত ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হওয়ার আশঙ্কা করছে আবহাওয়া অধিদফতর। এ ফলে যেকোনো সময় গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয়ে দিক পরিবর্তন করে ঘূর্ণিঝড়ের রূপ ধারণ করতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়াবিদরা।

এদিকে লঘুচাপের কারণে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টির পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। একই কারণে দেশের অভ্যন্তরীণ সব নদীবন্দরগুলোর জন্য সতর্কবার্তা দেওয়া হয়েছে। দেখাতে বলা হয়েছে, ২ নম্বর নৌ হুঁশিয়ারি সংকেত।

আবহাওয়া অফিস জানায়, মৌসুমের শুরু থেকেই সাগরে লঘুচাপ সৃষ্টি হয়। সেই লঘুচাপের কারণে দেশে শুরু হয় ঝড়বৃষ্টি।  এখন এই লঘুচাপই সুস্পষ্ট লঘুচাপে পরিণত হয়েছে। আবহাওয়াবিদ রুহুল কুদ্দুস বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, বঙ্গোপসাগরে সৃষ্টি হওয়া লঘুচাপটি আরও শক্তিশালী হয়ে সুস্পষ্ট লঘুচাপে পরিণত হয়েছে।

এটি আরও শক্তিশালী হলে আগামী দুই একদিনের মধ্যে নিম্নচাপে পরিণত হতে পারে। আর নিম্নচাপ শক্তি হলে ঘূর্ণিঝড়। তবে সেই ঘূর্ণিঝড় তৈরি হতে আগামী সপ্তাহের মাঝামাঝি সময় লাগতে পারে। এদিকে আবহাওয়া পূর্বাভাসে বলা হয়, দক্ষিণ পূর্ব বঙ্গোপসাগরে এবং দক্ষিণ আন্দামান সাগরে অবস্থানরত লঘুচাপটি সুস্পষ্ট লঘুচাপে পরিণত হয়েছে এখন পর্যন্ত একই এলাকায় অবস্থান করছে।

অন্যদিকে আবহাওয়ার দীর্ঘমেয়াদি পূর্বাভাসেও বলা হয়েছে, এই মাসে দুইটি নিম্নচাপ সৃষ্টি হতে পারে। এরমধ্যে কমপক্ষে একটি ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হতে পারে। রংপুর, ময়মনসিংহ, ঢাকা ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রাজশাহী, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের দু এক জায়গায় এবং কুমিল্লা ও নোয়াখালী অঞ্চলে অস্থায়ী দমকা বা ঝড়ো হাওয়াসহ এবং বিজলি চমকানোসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

আবহাওয়া বিশেষজ্ঞদের মতে, নিম্নচাপে পরিণত হয়ে এটি বঙ্গোপসাগর থেকে উত্তর-পশ্চিম দিকে এগিয়ে যেতে পারে।
আবহাওয়া গবেষক মোস্তফা কামাল জানান, লঘুচাপ থেকে যে নিম্নচাপটি হতে যাচ্ছে এটা শেষ পর্যন্ত ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হতে পারে। আগামী ১৯ কিংবা ২০ মে কোনো এক সময়ে উপকূলে এ আঘাত আনতে পারে।

তিনি জানান, ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইসিএমডব্লিউএফ) আবহাওয়া পূর্বাভাস মডেল নির্দেশ করছে যে, ঘূর্ণিঝড়টি ভারতের উড়িষ্যা উপকূলে আঘাত হানতে পারে। তবে অন্যান্য আবহাওয়ার মডেলগুলো ঘূর্ণিঝড়টি বাংলাদেশের উপকূলে আঘাত হানতে পারে বলে ইঙ্গিত দিচ্ছে।

আমেরিকার মডেল নির্দেশ করছে, ঘূর্ণিঝড়টি কক্সবাজার-চট্টগ্রাম উপকূলে আঘাত হানতে পারে। কানাডার মডেল বলছে, এটি সুন্দরবন উপকূলে আঘাত হানতে পারে।
আবহাওয়া অধিদফতরের আবহাওয়াবিদ মনোয়ার হোসেন বলেন, এটি ঘূর্ণিঝড় হবে কি না, তা আজ শুক্রবার বোঝা যাবে। কারণ অনেক সময় নিম্নচাপেও সম্ভাব্য ঘূর্ণিঝড় শক্তি হারায়।

এদিকে আজ শুক্রবার দেশের কয়েকটি জেলায় বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ ভারি বৃষ্টি হতে পারে বলে আবহাওয়া পূর্বাভাসে জানানো হয়েছে।



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin