শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:২৭ পূর্বাহ্ন


আবারও করোনার ‘হটস্পট’ হয়ে উঠছে বিশ্বনাথ

আবারও করোনার ‘হটস্পট’ হয়ে উঠছে বিশ্বনাথ


শেয়ার বোতাম এখানে

জাহাঙ্গীর আলম খায়ের, বিশ্বনাথ:: ২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা রুগী শনাক্ত করা হয় এবং ১৮ মার্চ প্রথম একজনের মৃত্যু হয়।

এর একমাস পর ৫মে সিলেটের বিশ্বনাথে প্রথম এক নারী করোনাক্রান্ত হন। এরপর থেকে আক্রান্ত হন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা কর্মচারিসহ শতাধিক লোকজন। এক পর্যায়ে করোনার ‘হটস্পট’ হয়ে উঠে বিশ্বনাথ।

২০২১ সালের ১৫এপ্রিল থেকে এবারও আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ার পাশাপাশি বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। কেবল মে মাসেই আক্রান্ত হযেছেন ৬১জন। ফলে, আবারও করোনার ‘হটস্পট’ হয়ে উঠছে প্রবাসী অধ্যুষিত এ জনপদ।

স্বাস্থ্যবিধি না মানা, মাস্ক না পরে সর্বত্র অবাধ চলাফেরা, করোনা পরীক্ষা না করা, পরিবারের কেউ আক্রান্ত হলে গোপন রাখা ও বলতে লজ্জাবোধ করা এবং গ্রামাঞ্চলের মানুষের একগুয়েমির কারণেই করোনা সংক্রমন আরও তীব্র হওয়ার আশংকা করছেন চিকিৎসকসহ সচেতন মহল। যে কারণে শতভাগ স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে রয়েছেন বিশ্বনাথ উপজেলা ও পৌরশহরের প্রায় পৌনে ৩লাখ জনগোষ্ঠি।

চিকিৎসকদের সমীক্ষা মতে, ওই পৌনে ৩লাখ জনগোষ্ঠির মধ্যে ১লাখ ৮০হাজার বাসিন্দারা কোন না কোন রোগে ভোগছেন। আর লকডাউনের মধ্যেই গত ১৪ এপ্রিল পালন করা হয় ঈদুল ফিতর। ঈদ উপলক্ষে গত ৫এপ্রিল থেকে উপজেলায় শুরু হয় স্বাস্থ্যবিধি না মেনে এবং মাস্ক ছাড়া অবাধ চলাফেরার ধূম। সরকার মাস্ক পরা বাধ্যতামুলক করলেও অভিযানের নামে নামমাত্র জরিমানাতেই সীমাবদ্ধ রয়েছে প্রশাসন।

সম্প্রতি এ উপজেলায় সর্দি, জ্বর ও শ্বাসকস্টজনিত রোগে সহাস্রধিক জনসাধারণ আক্রান্ত হলেও করোনা পরীক্ষা করাতে তাদের অনীহা। অভিযোগ রয়েছে, করোনা আক্রান্ত হওয়ার পরও অনেকেই অবাধে চলাফেরা করছেন। অনেকেই সংকটাপন্ন হওয়ার আগপর্যন্ত লজ্জায় তিনি কিংবা তার পরিবারের কেউ করোনা সংক্রমণ মুখেও আনছেননা। যে কারণে করোনা সংক্রমণ আরও তীব্র হচ্ছে।

তবে, সহাস্রাধিক মানুষ অসুস্থ থাকলেও কেবল করোনায় আক্রান্ত হয়ে সিলেট নগরীর বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিকে চিকিৎসা নিচ্ছেন অনেকেই। এর মধ্যে রয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ফখরুল আহমদ মতছিন চেয়ারম্যান ও উপ-দপ্তর সম্পাদক নুরুল হক মেম্বার। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দোয়া চেয়ে অনেকেই তাদের জন্য ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন। বর্তমানে তারা শংকামুক্ত বলে জানাগেছে।

উপজেলা হাসপাতলের সূত্র মতে, ২০২০ সালের ৫মে শান্তি রানী মালাকার (২৫) নামে উপজেলায় প্রথম এক নারীর শরীরে করোনাভাইরাস ধরা পড়ে। এর পর ইউএইচও ডা. আব্দুর রহমান মুসাসহ একে একে আক্রান্ত হতে থাকেন পুলিশ, চিকিৎসক, ব্যাংকার, সাংবাদিকসহ অসংখ্য লোকজন। ওই বছরের মে মাসে ৪১জন, জুন মাসে ৫৯জন এবং জুলাই মাসে আক্রান্ত হন ৫২জন। ফলে করোনার ‘হটস্পট’ হয়ে উঠেছিল বিশ্বনাথ আর আক্রান্তদের মধ্যে কেবল ৪৫জন পুলিশ সদস্যই ছিলেন। ২০২০সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ২০৯জন এবং মৃত্যুবরণ করেন ৫জন।

অন্যদিকে ২০২১ সালের ৯জুন বুধবার পর্যন্ত মারা গেছেন ৭জন। বুধবার নতুন ২জনসহ মোট আক্রান্ত হয়েছেন ১১৮জন। এরমধ্যে কেবল মে মাসেই আক্রান্ত হয়েছেন ৬১জন। নতুন করে আইসোলেশনে রয়েছেন ৩০জন, নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে৯৩৬জনের এবং গত এক বছরে মোট সুস্থ্য হয়েছেন ২৮৩জন।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আব্দুর রহমান মুসা বলেন, স্বাস্থ্যবিধি না মানা আর করোনাক্রান্ত হয়ে গোপন রাখা এবং সামাজিকভাবে লজ্জিত হওয়ার বিষয়টি মাথায় রেখে অবাধ চলাফেরার কারণে উপজেলায় করোনা সংক্রমন বাড়ছে। স্বাস্থ্য সচেতন না হলে এ সংক্রমন আরও তীব্র হওয়ার আশংকা রয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও পৌর প্রশাসক সুমন চন্দ্র দাসও একই বক্তব্য দিয়েছেন। তিনি এ প্রতিবেদককে বলেন, শতভাগ মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করতে প্রশাসন মাঠে কাজ করছে। প্রয়োজনে নজরদারি আরও বাড়ানো হবে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin