বুধবার, ১৬ Jun ২০২১, ১০:৪১ অপরাহ্ন

আরিফও কি সেই পথে!

আরিফও কি সেই পথে!


শেয়ার বোতাম এখানে

স্টাফ রির্পোট : দেশের রাজনীতির অঙ্গনে উজ্জ্বল নক্ষত্র হিসেবে খ্যাতরাই এবার চমকের সৃষ্টি করেছেন। নির্বাচনের মাসখানেক আগেও যারা বিপরীত দলের সমালোচনা করেছেন, তারাই এবার ওই দলের প্রার্থী। অনেকে অভিমানে, আবারে কেউবা মনোনয়ন লাভে-এভাবেই পাল্টে গেছে তাদের পরিচিতি। ‘রাজনীতিতে শেষ বলে কিছু নেই’- এ কথাটি যেন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আবারো জলন্ত প্রমাণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। শুধু বাংলাদেশের রাজনীতিতে নয় সারাবিশ্বের রাজনীতির অঙ্গনেও দল পরিবর্তন অহরহ হয়ে থাকে। তবে যখন সেটা কোন প্রতিষ্ঠিত রাজনীতিবিদের ক্ষেত্রে হয়ে যায়, তখন তা আলোচনা-সমালোচনার জন্ম দেয়। যেমনটি ঘটেছে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে। চমক সৃষ্টি হয়েছে জাতীয় রাজনীতি থেকে সিলেটের রাজনীতিতেও। সুতারাং এই যখন প্রেক্ষাপট তখন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ‘নাস্তানাবুদ’ পরাজয়ের পর সারাদেশে বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে যখন ক্ষোভ আর হতাশা তখন সেই হতাশার আগুনে যেন ঘি ঢাললেন সিলেটের জনসাধারনের আস্তা আর বিশ্বাসের
প্রতীক হয়ে উঠা সিসিক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীসহ সিলেটের বিএনপির জনপ্রিয় নেতারা নেতা।কারন তারা বিএনপির রাজনীতিতে ব্যস্ত নাহয়ে আওয়ামীর রাজনীতির সাথে জড়িয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ছেন। এ অবস্থায় তিনটি শুভেচ্ছা বিনিময় নিয়ে সিলেট বিএনপির ভেতরে তৈরি হয়েছে চরম ক্ষোভ। এ নিয়ে বিভিন্ন মাধ্যমে বিএনপির অনেকেই তাদের ক্ষোভের কথা প্রকাশ করছেন। এমনকি করছেন নানা হিসেব নিকেশও। যদিও তিনজনই এটার সাথে রাজনীতি মেলাতে নারাজ। তাদের আওয়ামীলীগ রাজনীতির সাথে গুপন সেতুবন্ধন কে বিএনপির রাজনীতিতে অশনি সংকেত হিসেবে দেখছেন।
ঘটনার ঘনঘটায় দেখা যায়, ১৭ জানুয়ারি- নতুন সরকারের মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়ে মঙ্গলবার সিলেটে আসেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন ও প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী ইমরান আহমদ। মন্ত্রী হয়ে সিলেট ফেরার পর রাতেই ড. মোমেনের বাসায় শুভেচ্ছার ফুল নিয়ে হাজির গেল নির্বাচনে বিএনপির পরাজিত প্রার্থী ও বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য শফি আহমদ চৌধুরী। এ নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা শুরু হতে না হতেই গত বুধবার সকালে ড. মোমেনের বাসায় এবার বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও বিএনপির প্রার্থী হয়ে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচিত মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। তারা শুধু ফুলই দিলেন না, কথাও বললেন দীর্ঘ সময়। এদিকে তাদের শুভেচ্ছা বিনিময়ের রেশ ধরে একইদিনে গোয়াইন ঘাটে নিজ এলাকায় প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী ইমরান আহমদকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানালেন- বিএনপির হয়ে নির্বাচিত গোয়াইনঘাট উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা বিএনপির সহ সভাপতি আব্দুল হাকিম। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ‘নাস্তানাবুদ’ পরাজয়ের পর সারাদেশে বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে যখন ক্ষোভ আর হতাশা তখন সেই হতাশার আগুনে যেন ঘি ঢাললেন সিলেটের ৩ বিএনপি নেতা। এ অবস্থায় তিনটি শুভেচ্ছা বিনিময় নিয়ে সিলেট বিএনপির ভেতরে তৈরি হয়েছে চরম ক্ষোভ। এ নিয়ে বিভিন্ন মাধ্যমে বিএনপির অনেকেই তাদের ক্ষোভের কথা প্রকাশ করছেন।
এ ব্যাপারে, সাবেক সিটি মেয়র ও কেন্দ্রিয় আওয়ামীলীগের সদস্য, নগর সভাপতি বদর উদ্দিন আহমদ কামরান বলেন, এখন আমাদের দলে কাউকে নেয়া হচ্ছে না, তবে কেন্দ্র থেকে যে সিদ্ধান্ত আসবে সে সিদ্ধান্ত কে স্বাগত জানাবেন তারা, তিনি বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন ধীরে ধীরে সবাইকে নৌকায় তুলে নিবেন, আরিফ হয়তো এই কথাকে আমলে নিয়ে নৌকার পতাকা তলে আসার প্রস্তুতি নিচ্ছেন, তিনি বলেন শুধু আরিফ নয় আরিফের চাইতে অনেক বড় নেতাই তো আসছেন, সুতারাং আরিফ সাহেব আসলে, এবং কেন্দ্র যদি তাকে গ্রহণ করে তাহলে, তাকে স্বাগত জানাবেন বলে জানান এই নেতা। এদিকে জন নন্দিত সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবুল মুহিতের ভাই, ড. এ কে আবদুল মোমেনকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানোর বিষয়টি অনেকে কালো চোখে দেখছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিএনপির হেভিওয়টে নেতা থেকে তৃণমূল নেতা পর্যন্ত সমালোচনার তথা তীব্র নিন্দার ঝড় বইছেন নগর থেকে বহি:বিশ্বে। তারা বলছেন, যে আওয়ামীলীগ আরিফের কাটা হয়ে দাঁড়ায় সেই আওয়ামী লীগের সাথে আরিফ, হায়রে সেলুকাস! এব্যাপারে বিএনপির আদর্শের বিশ্বাসী নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শাবিপ্রবির একাধিক অধ্যাপকরা বলেন, সিটি মেয়র ও বিএনপির কেন্দ্রীয় সদস্য আরিফুল হক চৌধুরী আওয়ামীলীগের মন্ত্রীকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়েছেন তা কেবল তাদেরকে আহত করেনি বরং এ জাতির জাতীয়তাবাদের আদর্শ কে বুলন্ঠিত করেছেন। তা নিশ্চয় অমার্জিত আচরণের মধ্যে পরে, তার এই আতাত কে বিএনপির রাজনীতিতে ভবিষ্যতে অশনিসংকেত হিসেবে তিনি দেখছেন তারা। অনুরূপভাবে সিলেটের কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের তরুণ প্রজন্মর মাঝে বইছে সমালোচনার ঝড়। তারা বলছেন, সিটি মেয়র ও বিএনপির কেন্দ্রীয় সদস্য আরিফুল হক চৌধুরীকে সিসিক নির্বাচনে আওয়ামীলীগ ভোট দেয় নি ? তারা বলেন, আরিফ বর্তমানে ধরি মাছ না ছুই পানির মতো। তরুণ প্রজন্মরা আরিফ কে হুশিয়ারি করে শুভপ্রতিদিন কে বলেন, আরিফ হয় বিএনপিতে থাকতে হবে? না হয় আওয়ামীতে যোগদান করতে হবে? একবার আওয়ামী অনুষ্ঠানে আরেকবার বিএনপির অনুষ্ঠানে তা তো হতে পারেনা বলে মন্তব্য করেন। সিলেট মহানগর বিএনপির সাধারন সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তাঁর নিজস্ব ওয়ালে লিখেছেন, আরিফের আগের অবস্থান ছিল, ৫০ ভাগ আওয়ামীলীগ আর ৫০ ভাগ বিএনপি। আর এখন আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসায়, আরিফ আওয়ামীলীগে ৭০ ভাগ রয়েছেন এবং বিএনপিতে ৩০ ভাগ তার অবস্থান দেখা যাচ্ছে বলে। সিলেট মহানগর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুব চৌধুরী বলেন জাতীয়তাবাদী দল বিএপিতে থাকতে মতলববাজি থেকে অব্যাহত থাকতে হবে। তিনি বলেন আরিফ যে কাজটি করেছেন তা দলের নিয়মের মধ্য পরে না। সুতারাং তিনি বিষয়টি নিয়ে মহানগর বিএনপির আগামি সাধারন মিটিংয়ে উত্থাপন করবেন। তার এই খামখেয়লিপনা রাজনীতির জন্য কেন্দ্র থেকে যে সিদ্ধান্ত আসে আমরা তা ভেবে দেখব।
আরিফ কোন পথে হাটছেন এব্যাপারে শুভপ্রতিদিনের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি বিএনপির মানুষ বিএনপিই আমার ঠিকানা। আওয়ামীলীগে যোগদান গুঞ্জন নিয়ে তিনি বলেন, যারা এসব মন্তব্য করেন আসলে তাদের কোনো টিক ঠিকানা নেই। আপনারা মনে রাখবেন মুত্যুর পর আমি বিএনপির আরিফ বিএনপিই আমার ঠিকানা।
এদিকে বিএনপির হয়ে নির্বাচিত গোয়াইনঘাট উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা বিএনপির সহ সভাপতি আব্দুল হাকিম ও গোয়াইনঘাটে নিজ এলাকায় প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী ইমরান আহমদকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। তিনি বিএনপির হয়ে নির্বাচিত গোয়াইনঘাট উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা বিএনপির সহ সভাপতি আব্দুল হাকিম দায়িত্ব পালন করেছেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ‘নাস্তানাবুদ’ পরাজয়ের পর সারাদেশে বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে যখন ক্ষোভ আর হতাশা তখন সেই হতাশার আগুনে যেন ঘি ঢাললেন সিলেটের বিএনপি নেতারা। এ অবস্থায় তিনটি শুভেচ্ছা বিনিময় নিয়ে সিলেট বিএনপির ভেতরে তৈরি হয়েছে চরম ক্ষোভ। এ নিয়ে বিভিন্ন মাধ্যমে বিএনপির অনেকেই তাদের ক্ষোভের কথা প্রকাশ করছেন। এমনকি করছেন নানা হিসেব নিকেশও। যদিও তিনজনই এটার সাথে রাজনীতি মেলাতে নারাজ। তাদের কেউ এটাকে বলছেন কর্তব্যবোধ এবং কেউ বলছেন পারিবারিক সম্পর্কের কথা। বিষয়টি নিয়ে জেলা বিএনপির সহ সভাপতি আব্দুল হাকিম বলেন- ‘আমি উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি।
অপরদিকে সিলেট-৩ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য শফি আহমদ চৌধুরী। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও ধানের শীষ প্রতিক নিয়ে তিনি নির্বাচন করেন। সেই নির্বাচনে বিএনপি’র ভরাডুবি, আর আওয়ামী লীগ’র জয়লাভ হয়। সিলেট-১ আসন থেকে বিজয়ী হন সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিতের ভাই ড.একে মোমেন। তিনি বর্তমান সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রীও হয়েছেন। গত দুই দিন থেকে সিলেটে অবস্থান করছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তাঁর নিজ বাসায় গিয়ে ফুলের তোড়া হাতে দিয়ে শুভেচ্ছা জানান শফি আহমদ চৌধুরী। সেই থেকে সিলেট-৩ আসনের বিএনপি’র সাবেক ঐ সংসদকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ সিলেট জুড়ে বইছে আলোচনার ঝড়। বিএনপি’র অনেকেই বলছেন ইনাম আহমদ চৌধুরীর পথ ধরে হাঁটছেন শফি আহমদ চৌধুরী। তবে বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সাবেক সংসদ শফি আহমদ চৌধুরী জানান, এটা সামাজিকতা। অর্থমন্ত্রীর ইমিডেট ছোট ভাই তার বন্ধু। আর গত ৬০ বছর থেকে তাদের পরিবারের সাথে রয়েছে সর্ম্পক। তাই মোমেনকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানাতে তার বাসায় তিনি গিয়েছিলেন। সিলেট বিএনপি’র একাধিক নেতাকর্মীরা জানান, শফি আহমদ চৌধুরীর মতোই ইনাম আহমদ চৌধুরী নির্বাচনের পূর্বে সাবেক অর্থমন্ত্রীর বাসায় গিয়েছিলেন। পরে তিনি বলেছিলেন নেতাকর্মীদের হয়রানীর বন্ধের বিষয়ে আলোচনা করতে তিনি অর্থমন্ত্রীর বাসায় যান। কিন্তু পরবর্তীতে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি সিলেট-১ আসন থেকে মনোনয়ন বিএনপির মনোনয়ন পাননি। যার ফলে তিনি নির্বাচনের পূর্বেই গত ১৯ ডিসেম্বর রাতে গণভবনে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে ফুলের তোড়া দিয়ে তিনি আওয়ামী লীগে যোগ দেন। তিনি বিএনপির অন্যতম ভাইস চেয়ারম্যান ছিলেন। আর মঙ্গলবার রাতে নতুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড.একে আব্দুল মোমেনের হাতে ফুলের তোড়া দিয়েছেন সাবেক সংসদ সদস্য শফি আহমদ চৌধুরী। এতেই মনে হচ্ছে তিনিও হাটছেন ইনাম আহমদ চৌধুরীর পথ ধরে। তাই তিনি আগেভাগে গিয়েই রাস্তা পরিস্কার করছেন। তাদের ধরণা ফুলেই চড়াচ্ছে দল বদলের সুভাষ ছড়াবে। আর এমনটি এখন সিলেট জুড়ে আলোচনার কেন্দ্র বিন্দু। সূত্র জানায়, একাদশ জাতীয় নির্বাচনে শফি আহমদ চৌধুরী সিলেট-৩ আসন থেকে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট মনোনীত বিএনপির প্রার্থী ছিলেন। মঙ্গলবার রাত সাড়ে দশটার দিকে নতুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে মোমেনের সাথে দেখা করতে তার সিলেটস্থ বাসভবনে যান। এসময় তিনি মোমেনকে ফুলের তোড়া দিয়ে অভিনন্দন জানান। সেইরাতেই অভিনন্দনের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। তাই শফি আহমদ চৌধুরীও কি ইনাম আহমদ চৌধুরীর পদাঙ্ক অনুসরন করছেন? এমন প্রশ্ন এখন সিলেটের জনসাধারণের মুখে মুখে। সিলেট দক্ষিণ সুরমা উপজেলার বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শামীম আহমদ জানান, মোমেনকে ফুলের তোড়া দিয়ে শফি চৌধুরীর অভিনন্দনের ছবিটি আমিও দেখেছি। তবে আমি সিলেটের বাইরে থাকায় এ বিষয়ে কিছুই জানিনা।
সিলেট জেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ জানান, শফি আহমদ চৌধুরীর পারিবারিক সর্ম্পক রয়েছে সাবেক অর্থমন্ত্রী পরিবারের সাথে। তাছাড়া সাবেক অর্থমন্ত্রীর ইমিডেট ছোট ভাই তার বন্ধু। আর পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে মোমেনের সাথেও রয়েছে তার ভাল সর্ম্পক। তাই শুভেচ্ছা জানাতে তার বাসায় গিয়েছিলেন। সিলেট-৩ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য শফি আহমদ চৌধুরী জানান, অর্থমন্ত্রীর ইমিডেট ছোট ভাই তার বন্ধু। আর গত ৬০ বছর থেকে তাদের পরিবারের সাথে রয়েছে গভীর সর্ম্পক। আর সৌজন্য সাক্ষাৎ কিংবা রাজনৈতিক কোন ফায়দা লাভের উদ্দেশ্যে আমি মোমেনের বাসায় যাইনি। সিলেটের একজন মন্ত্রী হিসেবে আমি তার কাছে গিয়েছিলাম। যাতে নির্বাচনের জের ধরে আমার যেসব নেতাকর্মীদের হয়রানি করা হচ্ছে এবং আমার যেসব নেতাকর্মী এখনো কারাগারে বন্দী আছে তাদের যেনো ছেড়ে দেওয়া হয়। এসব অনুরোধ করতেই আমি তার সাথে দেখা করতে গিয়েছিলাম। আওয়ামী লীগে যোগদান করছেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, মোমেনের সাথে পারিবারিক সম্পর্ক রয়েছে সত্য। মোমেনের সাথে দেখা করেছি বলেই যে আমি আওয়ামী লীগে যোগদান করেছি-এরকম প্রোপাগান্ডা সত্য নয়। আমি এর আগেও এরশাদ সরকারের আমল ছাড়াও অন্য সরকারের আমলেও মন্ত্রীত্বের প্রস্তাব পেয়েছিলাম। আমার রক্তে বিএনপি। বিএনপি ছাড়া অন্য কোন দলের সাথে রাজনৈতিক সম্পৃক্ততা চিন্তা করতে পারিনা। অপরদিকে, আলোচনা-সমালোচনা যাই থাকুক না কেন? সিলেটে যে স¤প্রীতির রাজনীতি বিরাজ করছে তা আরেকবার প্রমাণিত হলো। মোমেনের হাতে ফুল দিয়ে শফি চৌধুরীর অভিনন্দন জানানো বিষয়টিকে ইতিবাচকভাবেই নিয়েছেন শান্তি প্রিয় সিলেটবাসী। গত বুধবার সাবেক সংসদ সদস্য শফি আহমদ চৌধুরীর পক্ষে প্রেরিক এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সাবেক এমপি আলহাজ্ব শফি আহমদ চৌধুরী তার নির্বাচনী এলাকার বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দের উপর দায়েরকৃত রাজনৈতিক মামলা সমূহ প্রত্যাহার করতে এবং সন্ত্রাসী কার্যকলাপ ও চাঁদাবাজি বন্ধ করতে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে মোমেনের হস্থক্ষেপ কামনা করেছেন। গত মঙ্গলবার রাতে মন্ত্রীর সিলেটস্থ বাসায় সৌজন্য সাক্ষাত করে তিনি পররাষ্ট্র মন্ত্রীকে এই অনুরোধ জানান। শফি চৌধুরী বলেন, বিগত নির্বাচনী কার্যক্রম চলাকালে তার নির্বাচনী এলাকা দক্ষিণ সুরমা, ফেঞ্চুগঞ্জ ও বালাগঞ্জের অসংখ্য বিএনপি নেতাকর্মীদের উপর রাজনৈতিকভাবে প্রায় ২০টিরও বেশি মামলা করা হয়েছে। এসব মামলায় নেতাকর্মীরা এখন চরম হয়রানীতে আছেন। তিনি এসব মামলা প্রত্যাহার করতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চান। এছাড়াও আলহাজ্ব শফি আহমদ চৌধুরী শহরতলীর বাদাঘাট এলাকায় তার ক্রয়কৃত সম্পত্তিতে অবৈধভাবে মাটি ভরাটকারী কতিপয় লোকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে মন্ত্রীর প্রতি অনুরোধ জানান।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin