শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল ২০২১, ০৬:৫৭ পূর্বাহ্ন

আলমের চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন ‘তিন প্রবাসী’

আলমের চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন ‘তিন প্রবাসী’


শেয়ার বোতাম এখানে

স্টাফ রিপোর্ট
সাড়ে ৮ বছর বয়সের শিশু আব্দুল আলম জন্ম থেকে চোখের একটি অজ্ঞাত রোগে চোখ দুটি নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে। মাত্র ১ লাখ টাকার অভাবে চিকিৎসা করাতে পারছে না পরিবার। আলমকে নিয়ে গত বৃহস্পতিবার শুভপ্রতিদিনে আমাদের স্টাফ রিপোর্টার নবীন সোহেলের একটি সরেজমিন প্রতিবেদন ‘সুস্থ হয়ে দ্বীনে আলেম হতে চায় আলম’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ হয়। পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর মানবিকতার এক উজ্জল দৃষ্ঠান্ত দেখালেন ওই ইউনিয়নের তিন যুক্তরাজ্য প্রবাসী। আলমের চিকিৎসার সম্পূর্ণ দায়ভার গ্রহণ করলেন তারা। প্রবাসীরা হলেন, দৌলতপুর ইউনিয়ন এডুকেশন ট্রাস্ট ইউকে’র সভাপতি শামছুদ্দিন তালুকদার শামস, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ মোহাব্বত শেখ ও সহ-সাধারণ সম্পাদক হাসিন উজ্জামান নুরু। তাদের পক্ষ থেকে আলমের চোখের চিকিৎসার জন্য পরিবারের কাছে নগদ ৬০ হাজার টাকা তুলে দেওয়া হয়। গত শুক্রবার সকালে বিশ্বনাথ উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়নের মীরগাঁও গ্রামে আব্দুল আলমের বাড়ীতে গিয়ে প্রবাসীদের পক্ষে আলমের মা রাশিয়া বেগমের হাতে এ টাকা তুলে দেন স্থানীয় ইউপি সদস্য ওয়াহাব আলী, চাউলধনী স্কুল এন্ড কলেজ বাস্তবায়ন কমিটির সদস্য মোহাম্মদ আলতাফ হোসেন ও শফিক আহমদ পিয়ার।

এসময় তারা আলমের পরিবারের সদস্যদের কাছ থেকে তার চিকিৎসার খোঁজখবর নেন এবং দ্রুত ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে অপারেশন করানোর জন্য বলেন।
শফিক আহমদ পিয়ার বলেন, আমাদের এলাকায় এমন একটি সংবাদ দেখে ট্রাস্টের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ মোহাব্বত শেখ’কে বলি। তিনি তাৎক্ষণিক যোগাযোগ করে প্রবাসী তিনজন তাদের নিজস্ব তহবিল থেকে ৬০ হাজার টাকা আলমের পরিবারকে চিকিৎসার জন্য দেন।
টাকা পাওয়ার পর আলমের মা রাশিয়া বেগম প্রতিবেদককে মোবাইল ফোনে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে আবেগআপ্লুত কন্ঠে জানান, কাল আপনি আসলেন আর আজ কয়েকজন ফেরেশতার মতো লোক এসে আমার ছেলের চিকিৎসার জন্য ৬০ হাজার টাকা দিয়ে গেলেন। যা আমি জীবনে কল্পনাও করতে পারিনি। তাদের এই ঋণ আজীবন মনের মধ্যে গেঁথে থাকবে।

দৌলতপুর ইউনিয়ন এডুকেশন ট্রাস্ট ইউকে’র সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ মোহাব্বত শেখ বলেন, শুভ প্রতিদিনে এই সংবাদটি আমাদের নজরে আসে। বর্তমানে আমি দেশে রয়েছি। আমাদের এলাকার একটি ছেলের এমন জটিল রোগে আক্রান্ত তা ভাবতেই কষ্ট হচ্ছে। তিনি আলমের চিকিৎসার পর পরবর্তি সময়েও তাদের প্রতি খোঁজখবর নেবেন বলে জানান।

স্থানীয় ইউপি সদস্য ওয়াহাব আলী বলেন, মানবতার সেবায় এগিয়ে আসা মানুষ আমাদের সমাজে দিন দিন কমে যাচ্ছে। একটি সংবাদের উপর ভিত্তি করে আব্দুল আলমের সম্পূর্ণ চিকিৎসার দায়ভার নেয়া তিন প্রবাসীরা এলাকায় মানবিকতার এক উজ্জল দৃষ্ঠান্ত স্থাপন করলেন।
উল্লেখ্য, চোখে একটি অজ্ঞাত রোগে দীর্ঘদিন যাবৎ ভূগছে বিশ্বনাথ উপজেলার দৌলতপুৃর ইউনিয়নের মিরগাঁও গ্রামের মৃত আব্দুর রশিদের পুত্র আব্দুল আলম। সে হযরত বড়পীর (র.) দাখিল মাদ্রাসার ৩য় শ্রেণীর ছাত্র। চিকিৎসকরা বলছেন, তার দুই চোখে অপারেশন করলেই সে সুস্থ হবে।



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin