শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:৫৭ পূর্বাহ্ন


আলী আহমেদ এর একগুচ্ছ কবিতা

আলী আহমেদ এর একগুচ্ছ কবিতা


শেয়ার বোতাম এখানে

সাহিত্য ডেস্ক:

আলী আহমেদ এর একগুচ্ছ কবিতা

(১)
ত্রিশ

অমাবস্যা পূর্ণিমার খেলা দেখতে দেখেতে
বৃষ্টির জল ছুঁতে ছুঁতে
ঝিঝি পোকার ডাক শুনতে শুনতে
নদীর মায়ায় ঝড়াতে ঝড়াতে
ব্যাটে-বলের গল্প ছড়াতে ছড়াতে
পেরিয়ে যাচ্ছে ত্রিশের উপখ্যান।

ষোড়শী প্রেমিকার হরেক রঙ ঢঙ দেখতে দেখতে
বিকেল বেলার হৈ-হুল্লোড় আড্ডা দিতে দিতে
যাবতীয় কামনা বাসনা চাইতে চাইতে
এক হাজার একশো একটি স্বপ্ন দেখতে দেখতে
পেরিয়ে যাচ্ছে একটি ত্রিশের রংচটা ডায়েরি উপখ্যান।

ত্রিশ মানে শুধু একটি একটি শব্দ নয়
ত্রিশ মানে শুধু একটি কবিতা নয়
ত্রিশ মানে একটি উপন্যাস নয়
ত্রিশ মানে অজস্র বিকেল
ত্রিশ মানে অজস্র রূপালি রাত
ত্রিশ মানে একটা অপ্রাপ্তির জীবন!

একটা ত্রিশ মানে আমি তোমাকে চেয়েছিলাম নিশিদিন
একটা ত্রিশ মানে আমি হাঁটতে হাঁটতে নদীর কিনারায় গিয়েছিলাম,
একটা ত্রিশ মানে আমি মায়ায় পড়েছিলাম বিষাক্ত নগরীর
একটা ত্রিশ মানে আমি আমাকে বিলিয়ে দিয়েছিলাম আমার অজান্তে,বিচিত্র সব প্রান্তরে;
একটা ত্রিশ মানে আমি, আমার আড়াই যুগের উপখ্যান।

 

(২)
যে কথা হয়নি বলা

অনেক কথা বলা হয়েছে তোমাকে,অনেক পথ পাড়ি দেয়া হয়েছে আমাদের,
তবুও একটা কথা বলা হয়নি;
যে কথাটা তোমাকে বলা হয়নি, সে কথাটা বলার সাহস হৃদয়ে ধারণ করতে পারি না!

অনেক সুখ দুঃখ কষ্ট ভাগ করে নিয়েছিলাম আমরা,
জানিয়েছিলাম অজস্র স্বপ্ন ও সাধের কথা,
একটা সাধের কথা বলা হয় নি তোমায়;
যে সাধের কথা বলতে পারিনি তোমায়, ভালোবাসি বলতে পারিনি বলেই
অপূরনীয় থেকে যায় ছুঁয়ে দেয়ার সাধ!

অনেক স্বপ্ন দেখেছি দুজন, আলাদা আলাদা স্বপ্ন
যে স্বপ্নটা একসাথে দেখতে পারিনি;
যে স্বপ্নের কথা বলতে পারিনি তোমায়, সেই স্বপ্নটা অপূরণীয় রয়ে যায়,
শুধু ভালোবেসে তোমার হাত ধরতে পারিনি বলে!

ভালোবাসি বলে স্বপ্ন দেখেছিলাম,
একটা লাল নীল সংসার বাঁধার,
একটি উঠোনে বসে দুজনে পূর্ণিমার চাঁদ দেখার,
লাল নীল ঘর বাঁধার স্বপ্নটা অপূর্ণ রয়ে যায়,
শুধু একটি কথা বলা হয়নি বলে;
যে কথাটা বলা হয়নি, সে কথাটা বলার সাহস হৃদয়ে ধারণ করতে পারিনা!

(৩)
ভালো থেকো

তোমার বাড়ির দক্ষিণে যে রক্তজবা গাছটা
তার খেয়াল রেখো,
যেখানেই থাকো যেভাবেই থাকো
ভালো থেকো প্রিয় ভালো থেকো

তোমার ডায়েরির পাতায় কৃষ্ণচূড়া গাছের
একটা ললাট ছবি এঁকো,
যার সাথেই থাকো, যার কাছে থাকো
ভালো থেকো প্রিয় ভালো থেকো।

স্মৃতির আয়নায় যদি আবার ফিরে আসি আমি
দুচোখে কভু জল ফেলো নাকো,
যার সুখের লাগি ঘর বেঁধেছো, যার ফুল খোঁপায় গেঁথেছো
তার চরণেই ভালো থেকো, ভালো থেকো।

যে মন ফড়িং উড়ে যায় দূরে
তার পানে চেয়ে থেকো নাকো,
তোমার নীল আকাশে উড়াও রঙিন ঘুড়ি
রঙে রঙে শুধু ভালো থেকো।

ভুলে যেও আমি কে ছিলাম তোমার
ভুলেও আমায় মনে করো নাকো,
তোমার শহরে আমায় মিথ্যে বাসিন্দা করে
কভু আমায় আর কাছে ডেকো নাকো।

ভুল করে যদি বহমান নদী কাছে ডাকে তোমায়
সাড়া দিয়ো নাকো,
যে নদীতে ডুবে আছি আমি,
সেই নদীর মায়ায় কভু পরো নাকো।

কে ছিলাম আমি; কি ছিলাম তোমার
কভু মনে রেখো নাকো,
আমার স্মৃতির ডায়েরির শেষ পাতায় লিখে দিয়ছি
তুমি শুধু প্রিয় ভালো থেকো।

 

(৪)
দিওয়ানা

তোমার একজন প্রেমিক হোক
আষ্টেপৃষ্টে জড়িয়ে থাকুক,
সকাল দুপুর দিবানিশি
প্রেমের গল্প জমে উঠুক।

তোমার গায়ে জড়ুক নীল শাড়ি
কপালে লাল টিপ,
তোমার রূপে মুগ্ধ হয়ে
কারও হৃদয়ে জ্বলুক প্রেমের প্রদীপ।

তোমার হাতে থাকুক রঙিন চুড়ি
খোঁপায় লাল গোলাপ,
তোমায় দেখে মাতাল যুবক
বলুক প্রেমের পাগল প্রলাপ।

তোমায় গাঁয়ে থাকুক মিষ্টি গন্ধ
কন্ঠে দারুণ ছন্দ,
তোমায় ছেড়ে দূরে যাওয়ার
হাজার দুয়ার হোক বন্ধ।

তোমার ঠোঁটে থাকুক প্রেমের ছোঁয়া
চোখে থাকুক হাসি,
এক পৃথিবীর মানুষ জানুক
কেউ একজন আছে তোমার কাছাকাছি।

(৫)
তোমাকে চেয়েছি

আমি একবার নদী হতে চেয়েছিলাম,
শুনেছিলাম,
তিতাস নামের একটি নদী;
তোমার বাড়ির সামনে দিয়ে বয়ে গেছে,
আমি নদী হয়ে প্রতি বেলা তোমাকে দেখতে চেয়েছিলাম।

আমি একবার চাঁদ হতে চেয়েছিলাম,
শুনেছি তোমার বাড়ির উঠোনে
পূর্ণিমা তিথিতে জ্যোৎস্না উৎসব হয়
আমি সেই উৎসবের কেন্দ্রবিন্দুতে তোমাকে চেয়েছিলাম।

আমি একবার বৃষ্টি হতে চেয়েছিলাম,
শুনেছি আকাশে মেঘ করলেই
তুমি উঠোনে আসতে বৃষ্টি ভিজবে বলে
আমি বৃষ্টি হয়ে তোমাকে ছুঁয়ে দিতে চেয়েছিলাম।

আমি একবার রক্তজবা হতে চেয়েছিলাম
শুনেছি রক্তজবা হাতে পেলে
তুমি পরম মমতায় খোঁপায় গুজতে
রক্তজবা হয়ে তোমার মমতায় থেকে যেতে চেয়েছিলাম।

আমি কতভাবে কতবার তোমাকে চেয়েছি
তার কোন ইয়ত্তা নেই;
আমি কতশত কবিতা-গল্পে তোমাকে চেয়েছি,
আমি অজস্রবার পথে ঘাটে মাঠে তোমাকে খুঁজেছি
তোমার সংস্পর্শে থাকতে চেয়েছি।

(৬)
তৃষ্ণাদগ্ধ

ওপারে তে তরী ভিড়ায়
দয়াল আমায় কেনো ডাকো,
এপারে তে পিপাসিত আমি
দয়াল খবর কি গো রাখো?

জলের মাঝে ভেসে ভেসে
দয়াল পাই না তো কুল কিনার,
নদীর বুকে থেকেও দয়াল
কেন এতো তৃষ্ণা আমার?

হারিয়েছি সবই আমার
তবুও আরও দিতে চাই,
আমায় কেহ প্রেম দিবে
দয়াল এমন কেউ তো নাই!

অনল জ্বালায় পুড়েও দয়াল
আলোর দেখা মিলে না,
জগৎ জুড়ে আলোর খেলা
তবুও আমার ঢেড়ায় আসে না!

তোমায় প্রেম দিবো দয়াল
সময় কোথায় বলো,
ভব মায়ায় পাগল আমি,
স্বপ্নে আঁখি টলমল।

তৃষ্ণায় আমি মরি দয়াল
একবার ফিরে চাও,
আমি তোমায় কিছু নাহি দিলাম
আমায় আচল ভরে দাও।

(৭)
আরাধ্য বৃষ্টি

বৃষ্টি, আমি ছুঁবো তোমায়
বৃষ্টি,
ওগো অনেক আরাধ্যের বৃষ্টি;
যত কামনা বাসনা,বেদনা, যাতনা
ধুঁয়ে নিয়ে যাবে অচেনায়,
অনেক সাধনার বৃষ্টি
বৃষ্টি আমি ছুঁবো তোমায়।

যত ধুলোবালি কণা
মনে আছে জমা,
আকাশে-বাতাসে চারদিকে উড়ে বেড়ায়
বিলীন করে দিয়ে যাও
ওগো বৃষ্টি তোমার ছোঁয়ায়।

যে হৃদয় ফেঁটে চৌচির
খাঁ খাঁ মরুভূমি,
তোমারই ছোঁয়ায় শীতল হোক
প্রেমের চারণভূমি।
জীর্ণ ঝড়তা গ্লানি ভাসিয়ে নিয়ে যাও
তোমার ঝড়ো হাওয়ায়,
ওগো বৃষ্টি আমি ছুঁবো তোমায়।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin