মঙ্গলবার, ১১ মে ২০২১, ১০:২২ পূর্বাহ্ন

আশংকার মধ্যে শ্রীমঙ্গলে র‍্যাব পুলিশের প্রচেষ্টায় এক ধর্মীয় নেতার দাফন প্রক্রিয়া সম্পন্ন

আশংকার মধ্যে শ্রীমঙ্গলে র‍্যাব পুলিশের প্রচেষ্টায় এক ধর্মীয় নেতার দাফন প্রক্রিয়া সম্পন্ন


শেয়ার বোতাম এখানে

আবুজার বাবলা, মৌলভীবাজার:
বিপুল সংখ্যক লোকসমাগমের শঙ্কা পাশ কাটিয়ে নির্বিঘ্নে সম্পন্ন হলো মৌলভীবাজার জেলার বরুনা মাদ্রাসার মুহাদ্দিস মাওলানা আব্দুল মুমিতের দাফন প্রক্রিয়া।

বুধবার (২৯ এপ্রিল) ভোর ৪ টা ৩০ মিনিটে মৌলভীবাজার সদর উপজেলার ঢেওপাশা গ্রামে মরহুমের বাড়ির উঠানে দুই শতাধিক মুসল্লির উপস্থিতিতে নামাজে জানাযা শেষে মৃতদেহ সমাহিত করা হয়।

জনপ্রিয় এই ধর্মীয় ব্যক্তিত্বের মৃত্যুর পর লক ডাউন উপেক্ষা করে তাঁর নামাজে জানাজায় বিপুল সংখ্যক মানুষের উপস্থিতি নিয়ে আশংকায় ছিলেন স্থানীয় প্রশাসন। সম্প্রতি পার্শ্ববর্তি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সরাইলে মাওলানা আনসারির নামাজে জানাজায় সামাজিক দূরত্ব ভেঙে হাজার হাজার মুসল্লীর অংশগ্রহণ করায় দেশজুড়ে ব্যাপক প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করে।

এ ঘটনার পুনরাবৃত্তির আশংকা থেকে এই দাফন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে শ্রীমঙ্গল প্রশাসন থেকে ব্যপক প্রস্তুতি নেয়া হয়।

জানা গেছে, জামেয়া লুৎফিয়া আনওয়ারুল উলুম হামিদ নগর বরুনা মাদরাসার মুহাদ্দিস পদে দীর্ঘ ৩০ বছর যাবৎ দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন শায়খুল হাদিস আল্লামা আবদুল মুমিত ঢেউপাশি।

বহুদিন এই মাদ্রাসায় দায়িত্বরত থাকায় সিলেটসহ দেশ বিদেশে তাঁর বিপুল ভক্ত ও গুনগ্রাহী ছিলেন। ছিল অসংখ্য ছাত্রছাত্রী। মূলত এই কারনেই জানজায় বিপুল লোকসমাগমের সম্ভাবনা তৈরি হয়। দেখা দেয় ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সরাইল ট্রাজেডির পুনরাবৃত্তির সম্ভাবনাও।

কিন্তু র‍্যাব, পুলিশ ও প্রশাসনের কড়া নজরদারি ও রাত জেগে সময়োচিত সিদ্ধান্তের কারনে কোন রকম অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতির উদ্ভব ছাড়াই লাশ দাফন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়।

মরহুমের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার দুপুরে মাথায় তীব্র যন্ত্রণা অনুভব করলে মুহাদ্দিস আব্দুল মুমিতকে দ্রুত সিলেটে মাউন্ট এডোরা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে সেখানে তাকে মৃত ঘোষণা করা হয়।

সিলেট থেকে মৌলভীবাজারে লাশ আনার পর খবর পেয়ে দাফনের পূর্ব পর্যন্ত সারারাত ঘটনাস্থলে উপস্থিত থেকে দাফন প্রক্রিয়ায় ভূমিকা পালন করেন র‍্যাব-৯, শ্রীমঙ্গল ক্যাম্পের কমান্ডার এএসপি মো. আনোয়ার হোসেন শামীম।

রাতভর নির্ঘুম দায়িত্ব পালনের পর সেহেরি খেতে যেতে না পারায় শুধু পানি পান করেই রোজা রাখেন এ র‍্যাব কর্মকর্তা ও সাথে থাকা অন্যান্য র‍্যাব সদস্যরা।
সেহাব উদ্দিন নামে এক লোক জানান, ফেইসবুকে বুধবার দুপুর ২ টায় কেহ আবার সকাল ৬ টায় জানাজার সময় দিয়েছিলো আমরাও প্রস্তুতি নিয়েছিলাম জানাজায় শরীক হতে ।

এর মধ্যে ভোরে একাধিক ফেইজবুক স্ট্যাটাসে লিখেছে ভোরই নামাজে জানাজা সম্পন্ন হয়ে গেছে। জানাজা নামাজের আনুষ্ঠানিকতায় শ্রীমঙ্গল থানা ওজেলা পুলিশের অফিসাররাও উপস্থিত ছিলেন।



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin