শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৮:৩৫ অপরাহ্ন


আশাতেই কেটে গেছে ২৭ বছর! হাসান মার্কেটে বহুতল ভবন নির্মাণ কবে?

আশাতেই কেটে গেছে ২৭ বছর! হাসান মার্কেটে বহুতল ভবন নির্মাণ কবে?


শেয়ার বোতাম এখানে

সাত্তার আজাদ:

কবে হবে হাসান মার্কেটের উন্নয়ন পরিকল্পনা বাস্তবায়ন। এই প্রশ্ন অনেকের, উত্তর অজানা। খোদ সিলেট সিটি কর্পোরেশন সঠিক করে কোনো কিছু বলতে পারছেনা। তবে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মালিকানাধীন এই একতলা বিপনী বিতানটি ভেঙ্গে বহুতল আধুনিক বিপনী বিতান নির্মাণ যে হবে- এমন নিশ্চয়তা দিচ্ছে তারা। এই আশাতেই কেটে গেছে ২৭ বছর।
সিলেট নগরীর গুরুত্বপূর্ণ প্রবেশ ফটকে হাসান মার্কেট। বন্দরবাজারে এটির অবস্থান। এটির উন্নয়ন পরিকল্পনা নেয়া হয়েছিল নব্বইয়ের দশকে। এরপর নগরে কত পরিবর্তন এসেছে। অনেক নর্দমা ভরাট হয়েছে, তাতে গড়ে উঠেছে নান্দনিক ভবন। বহু পুরাতন ভবন ভেঙে গড়ে উঠেছে আকাশ ছোঁয়া দালান। কিন্তু হাসান মার্কেট তার সেই পৌঢ়ত্ব ধরে রেখেছে। তাতে নগরে প্রবেশের মুখে চোখে পড়ে অসুন্দর এই মার্কেটটি। বন্দরবাজারের ব্যবসায়ী আজির উদ্দিন জানালেন, হাসান মার্কেট এখন নগরের বোঝা। আধুনিক নগরে এটা বেমানান। দ্রুত ভেঙে ফেলে পরিকল্পনা অনুযায়ী আধুনিক বহুতল মার্কেট নির্মাণ করা হোক।

কিন্তু আজির উদ্দিনের কথা কে শুনবে। দেখতে দেখতে পাশের জায়গাগুলোয় একের পর এক বহুতল ভবন আকাশ ছুঁয়েছে। শহর থেকে নগরীর রূপ নিয়েছে সিলেট। ২৭ বছরে কেউ কথা রাখেনি। হাসান মার্কেট এখনও টিনের চালেই ঢাকা। বৃষ্টি হলে এখনও চাল বেয়ে পানি পড়ে মার্কেটের ভেতরে। সিলেটের প্রাচীন বিপণি বিতান হাসান মার্কেটে এখনও আধুনিকতার ছোঁয়া লাগেনি। যদিও আধুনিক বহুতল মার্কেটের স্বপ্ন দেখিয়ে পৌর আমল থেকে কয়েক দফায় ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে বিশাল অঙ্কের টাকা নিয়েছে সিলেট সিটি কর্পোরেশন। ২৭ বছরে সিলেটের পৌর বা নগর পিতার চেয়ারে মুখ পরিবর্তন হয়েছে অনেকবার। পৌর চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আফম কামালের মেয়াদের শেষ বেলায় হাসান মার্কেট নিয়ে স্বপ্ন দেখানোর শুরু। পৌর চেয়ারম্যান ও মেয়র পদ মিলিয়ে দীর্ঘ মেয়াদে দায়িত্ব পালনকারী প্রয়াত বদর উদ্দিন আহমদ কামরান সে স্বপ্নকে উসকে দিলেও কাজের কাজ কিছু কিছুই হয়নি। তার আমলে বহুতল হাসান মার্কেট নির্মাণের কথা বলে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে বিপুল অঙ্কের টাকাও তোলা হয়। হিসাব নেই সে টাকারও। একটি বিশ্বস্ত সূত্র নিশ্চিত করেছে সোনালী ব্যাংক সিটি কর্পোরেশন শাখার যে দু’টো অ্যাকাউন্টে (চলতি হিসাব নং-৪৪৪ ও স য়ী হিসাব নং-২৮৭৮) টাকা জমা নেয়া হয়েছিল। পরিবর্তনের সুর তুলে নগর ভবনের দায়িত্ব পাওয়া আরিফুল হক চৌধুরীও এ ক্ষেত্রে এখন পর্যন্ত কোন আশার আলো দেখাতে পারেননি।
যদিও তার নির্বাচনী ইশতেহারে হাসান মার্কেট প্রসঙ্গটিও ছিল। আশা জাগানো তো দূরের কথা এক বছরেও সে প্রসঙ্গটি আলোচনার টেবিলেও উঠে আসেনি। হাসান মার্কেট সিলেটের ঐতিহ্যবাহী এক বিপণি বিতান।

১৯৫৯ সালে তৎকালীন পশ্চিম পাকিস্তানের বাসিন্দা জেলা প্রশাসক আবুল হাসানের নামে নগরীর বন্দরবাজারে এ মার্কেটটি গড়ে তোলা হয়। তখন এর নাম ছিল গোবিন্দ পার্ক। ভাষা আন্দোলনের স্মৃতিবিজড়িত এ পার্কটি ছিল ঐতিহ্যবাহী এমসি কলেজের প্রথম ক্যাম্পাস। হাসান মার্কেটে সব মিলিয়ে ৩০৫টি দোকান-পাট রয়েছে। এর মধ্যে ভেতর অঙ্গনে ২২৮টি আর বাইরে ৭৭টি। আধুনিক ও বহুতল হাসান মার্কেটের স্বপ্ন দেখানো শুরু ১৯৯৩ সালে। তখনও সিটি কর্পোরেশন হয়নি সিলেটে। পৌর চেয়ারম্যানের দায়িত্বে ছিলেন অ্যাডভোকেট আফম কামাল। সে বছরের ২৬শে ডিসেম্বর হাসান মার্কেট উন্নয়ন কমিটি ও তৎকালীন সিলেট পৌরসভার মধ্যে অনুষ্ঠিত সভায় বহুতল মার্কেট নির্মাণ প্রকল্প চূড়ান্তভাবে অনুমোদিত হয়। সিদ্ধান্ত হয় পুরনো মার্কেট ভেঙে পাঁচতলাবিশিষ্ট নতুন মার্কেট তৈরি হবে। এরপর মার্কেটের নকশা তৈরির জন্য টেন্ডারও আহ্বান করা হয়। নকশা তৈরির দায়িত্ব পান প্রকৌশলী অলক দত্ত। তারপর অনেকটাই গতি হারায় বহুতল মার্কেট প্রকল্প।

১৯৯৩ সালের ২৬ ডিসেম্বর হাসান মার্কেট উন্নয়ন কমিটি ও তৎকালীন সিলেট পৌরসভা কর্তৃপক্ষের মধ্যে অনুষ্ঠিত যৌথ সভা। এ সভায় সর্বসম্মতিক্রমে বহুতল মার্কেট নির্মাণ প্রকল্প চূড়ান্তরূপে অনুমোদিত হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৯৬ সালের ৩০ মে পৌরসভার পক্ষে তৎকালীন পৌর চেয়ারম্যান প্রয়াত বদর উদ্দিন আহমদ কামরান ও দোকান গ্রহিতাদের মধ্যে চুক্তিপত্র সম্পাদিত হয়। কিন্তু চুক্তি সম্পাদনের ২৪ বছর অতিবাহিত হলেও এই কার্যক্রমের কোনো অগ্রগতি ঘটছে না বলে অভিযোগ করেছেন মার্কেট উন্নয়ন কমিটির একাধিক সদস্য।

মার্কেট উন্নয়ন কমিটির এক সদস্য জানান, জনৈক মুছলেহ উদ্দিনের কানাডা প্রবাসী ছেলে সিলেট সিটি করপোরেশনের এক কাউন্সিলরের কাছ থেকে ৫ম তলায় ৩ লক্ষ টাকা দিয়ে একটি দোকান কোঠা কিনে নিয়েছেন। এভাবে বেশ কয়েকজন দোকান গ্রহিতারা দোকান কোঠা কিনেছেন বলে জানা গেছে। দোকান ক্রয়ের বছরের পর বছর অতিবাহিত হলেও মার্কেট নির্মাণের কোনো উদ্যোগ নেই।
হাসান মার্কেট নির্মাণ কাজ শুরুর আগেই বিক্রি হয় দোকান কোঠা। যার কোনো অস্তিত্ব নেই। বাতাসে দোকান কোঠা কিনে আশায় বসে রয়েছেন মানুষ।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin