শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১০:১০ অপরাহ্ন

ইতিকাফ একটি স্বয়ংসম্পূর্ণ ও শ্রেষ্ঠ ইবাদত

ইতিকাফ একটি স্বয়ংসম্পূর্ণ ও শ্রেষ্ঠ ইবাদত


শেয়ার বোতাম এখানে

মাওলানা মাহমুদুল হাসান
আজ ১৯ রমজান ১৪৪০ হিজরি। মাগফিরাতের নবম দিন। আগামীকাল শুরু হবে ইতিকাফের নিয়্যত ও ইচ্ছা পোষণকারী রোজাদার ঈমানদার মুসলমানদের মধ্যে ইতিকাফের পুণ্যময় প্রস্তুতি। অর্থাৎ-আগামীকাল ২০ রমজান বাদ আছর ইতিকাফকারীগণ আল্লাহর ঘর মসজিদে এবং মহিলারা নিজ ঘরের নির্ধারিত স্থানে আল্লাহ তায়ালার সন্তুষ্টি অর্জনের লক্ষ্যে ইতিকাফে বসবেন।

গতকাল ইতিকাফ সম্পর্কে আলোচনা করেছি, তবুও এ প্রসঙ্গে আরো জরুরি কিছু বিষয়াদি পুনরায় আলোচনার প্রয়োজন অনুভব করছি। রমজানের তৃতীয় দশ দিনে ইতিকাফ করা সুন্নাতে মুয়াক্কাদা আলাল কিফায়া। অর্থাৎ-মহল্লার কেউ ইতিকাফ না করলে পুরো মহল্লাবাসী গুনাহগার হবেন, আর একজন ইতিকাফ করলে অন্যরা সে দায় থেকে মুক্ত হয়ে যাবেন। স্বতঃস্ফূর্তভাবে স্বীয় আত্মশুদ্ধিও রেজায়ে মাওলা অর্জনের লক্ষ্যে ইতিকাফের বসার লোক খুঁজে পাওয়া দুষ্কর হয়ে গেছে অনেক স্থানে। বিভিন্ন গ্রাম ও পাড়ামহল্লায় দেখা যায়, চুক্তি করে লোক ইতিকাফে বসানো হয়। এটা খুবই উদ্বেগজনক। রমজান রোজার আত্মশুদ্ধি ও সংযমের আবেদনের সঙ্গে ইতিকাফের ধারণার সামাঞ্জস্য অনেক।

ইতিকাফের মূল তাৎপর্য হচ্ছে, আল্লাহর সন্তুষ্টি হাসিলের জন্য দুনিয়ার সব ঝামেলা, ক্লেদ-কালিমা থেকে মুক্ত হয়ে আল্লাহর ঘরে নিজেকে আবদ্ধ করে ইবাদত-বন্দেগি ও সাধনায় নিমগ্ন হওয়া। এভাবে আত্মনিয়ন্ত্রণ ও আত্মশুদ্ধির গভীর অনুশীলনের মধ্য দিয়ে দুনিয়া-আখিরাতের সফলতা অর্জনের পথ সুগম হয়। ইতিকাফের অন্য একটি প্রধান তাৎপর্য হচ্ছে, শবে কদরের রাত অনুসন্ধান ও পালন। শবে কদরের রাত অনির্দিষ্ট একটি রাত। তবে মাহে রমজানের শেষ দশ দিন বেজোড় যে-কোনো রাতে হবে বলে হাদিস শরিফে উল্লেখ রয়েছে। অনির্দিষ্ট এ রাতটির সৌভাগ্য যেন হাতছাড়া না হয়ে যায়, তার জন্য শেষ ১০ দিনব্যাপী মসজিদে ইতিকাফের চেয়ে অধিক কার্যকর কোনো কর্মসূচি হতে পারে না।

ইতিকাফ একটি স্বয়ংসম্পূর্ণ ইবাদত। ইতিকাফের নিয়্যতে মসজিদে অবস্থান করলে এবং জবান ও চোখের দ্বারা কোনো পাপ না করলেই অনেক সওয়াবের অধিকারী হওয়া যায়। সে হিসেবে ইতিকাফরত অবস্থায় শবে কদর (না জানা অবস্থায়) অতিবাহিত হয়ে গেলেও সে রাতটি ইবাদতের মধ্যেই গণ্য হয়। তবে ইতিকাফকালে শুধু ইতিকাফের সওয়াবের মধ্যে নিজের আমলকে সীমাবদ্ধ না রেখে বেশি পরিমাণে ইবাদত করা উচিত। হজরত নবীয়ে করিম (সা.) সাহাবায়ে কেরাম ও পরবর্তীকালের বুজুর্গ-মনীষীদের আমলে এমনই প্রমাণ পাওয়া যায়। কুরআন শরিফ তেলাওয়াত, নফল নামাজ, তাহাজ্জুদ, তাসবিহ-তাহলিল ক্ষীণ স্বরে জিকির-আজকার, দুআ-দুরুদ, ইস্তেগফার ও তওবার আমল জারি রাখলে ইতিকাফের সুফল বেশি মাত্রায় পাওয়ার আশা করা যায়। এছাড়াও জরুরি মাসআলা-মাসাইল শেখা, সহিহ দ্বিনি কিতাবাদি পাঠ এবং উমরি কাজার নামাজ আদায় করেও ইতিকাফের সুফল ও সাফল্যের ভাগীদার হওয়া যায়।
ইতিকাফের সময় সবচেয়ে বড় সতর্কতার বিষয় হচ্ছে-সময় কাটানোর জন্য অনর্থক কথাবার্তা, গিবত চর্চা ও পরনিন্দা-মিথ্যা বলা থেকে সম্পূর্ণ রূপে বিরত থাকতে হবে। ইতিকাফের সওয়াব হাসিল করতে এসে মুখ ও জবান দ্বারা এসব গুনাহে মগ্ন হয়ে গেলে সওয়াব অর্জনের পরিবর্তে সওয়াবগুলোকে ছাইভস্মে পরিণত করা ছাড়া কোনো লাভ হবে না। সর্বোপরি ইতিকাফ চলাকালে ইতিকাফ সংশ্লিষ্ট বিধি-নিষেধ ও মাসআলা-মাসাইলের প্রতি মনোযোগ রাখতে হবে। তা না হলে ছোট্ট একটি ভুলের জন্য ইতিকাফ ভঙ্গ হয়ে যেতে পারে।

ইতিকাফের ফজিলত ও উপাকারিতা অপরিসীম। আতা আল খোরাসানি (রহ.) বলেছেন, ইতিকাফকারী সেই ব্যক্তির ন্যায়, যে-নিজেকে আল্লাহর সম্মুখে সোর্পদ দিয়েছে এবং বলেছে যে, আমি এ স্থান ত্যাগ করব না; যতক্ষণ না আমাকে ক্ষমা করা হয়। এ জন্য ইতিকাফের গুরুত্ব অপরিসীম। ইতিকাফের মধ্যে বান্দা আল্লাহর ঘরে ইবাদতে মশগুল রাখার মাধ্যমে নিজের অসহায়ত্বের বহিঃপ্রকাশ ঘটিয়ে থাকে। (বাদাউস সানায়ে ২য় খন্ড)
ইতিকাফ সর্বশ্রেষ্ঠ ইবাদত, যদি তা একনিষ্ঠতার সঙ্গে হয়। (বাহরুর রায়েক ২য় খন্ড)

হজরত সাঈ ইবনে যুবাইর হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রাজি.) থেকে বর্ণনা করেছেন, ‘রাসূল (সা.) ইতিকাফকারী ব্যক্তি সম্পর্কে বলেছেন, ইতিকাফ এবং মসজিদে বদ্ধ থাকার কারণে গুনাহ থেকে বেঁচে থাকা যায় এবং তার নেকির হিসাব সব ধরনের নেক কাজ সম্পাদনকারী ব্যক্তির ন্যায় জারি থাকে।’ (ইবনে মাজা) আল্লাহ তায়ালা আমাদেরকে সঠিকভাবে ইতিকাফ পালনের তওফিক দান করুন। আ-মিন



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin