শনিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২১, ০৪:৩৪ অপরাহ্ন

ইভিএম ভোট পদ্ধতি ও সুষ্ঠু নির্বাচনের বার্তা

ইভিএম ভোট পদ্ধতি ও সুষ্ঠু নির্বাচনের বার্তা


শেয়ার বোতাম এখানে

অধ্যাপক ড. জহিরুল হক শাকিল :
বাংলাদেশে সর্বশেষ ভোট দিয়েছিলাম ২০০৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে। ২০০৯ সালে উচ্চ শিক্ষার্থে যুক্তরাজ্য চলে যাই। ২০১১ সালে দেশে ফিরে এক বছর পর আবার যুক্তরাজ্যে চলে যাই পিএইচডি গবেষনা সম্পন্ন করতে। স্থায়ীভাবে দেশে ফিরি এ বছরের ফেব্রুয়ারী মাসে। বিগত সংসদ ও উপজেলা নির্বাচনে প্রচারণার সময় এদেশে থাকলেও নির্বাচনের ৯ দিন আগে যুক্তরাজ্যে চলে যাওয়ায় ভোট দেয়া আর হয়নি। গত ২৪ জুন হবিগঞ্জ পৌরসভার উপ নির্বাচনে দীর্ঘ ১ যুগ পর ভোটাধিকার প্রয়োগ। যা আমার কাছে এক ব্যতিক্রমী অভিজ্ঞতা। ইভিএম বা ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিনের মাধ্যমে ভোট প্রদান করে বিশেষত শান্তিপূর্ণ সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশে আমার পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে পেরে ভাল লাগছে।

যুক্তরাজ্যকে পৃথিবীর অন্যতম সভ্য ও আদি গণতন্ত্রের দেশ বলা হয়। অর্ধ পৃথিবী জুড়ে গণতন্ত্র চর্চায় বিশেষত নাগরিকদের ভোটাধিকার নিশ্চিত ও অবাদ স্বাধীন প্রয়োগে যে যুক্তরাজ্যের অবদান সর্বজন স্বীকৃতি, সেই গণতন্ত্রের শীর্ষস্থান ইংল্যান্ডের তিনটি জাতীয় নির্বাচন, পাঁচটি স্থানীয় নির্বাচন ও একটি গণভোটে ভোট দেওয়ার অভিজ্ঞতা আমার হয়েছে। তথ্য প্রযুক্তি খাতে ইর্ষণীয় সাফল্য অর্জনকারী দেশ যুক্তরাজ্য এখনও ব্যালটের মাধ্যমে ভোট গ্রহণ করছে। নিকট ভবিষ্যতে ইভিএম বা যান্ত্রিকভাবে ভোট আয়োজনের চিন্তা পর্যন্ত তাদের নেই। এমনকি পৃথিবীর বৃহৎ গণতান্ত্রিক দেশ আমাদের পার্শ্ববর্তী বন্ধুরাষ্ট্র ভারতে পর্যন্ত ইভিএম নিয়ে বেশ বিতর্ক দেখা দিয়েছে।

সেখানে বাংলাদেশের মতো একটি দেশে ইভিএম ব্যবহারে নির্বাচন কমিশন এবং সরকারের অতি আগ্রহ নিয়ে অনেকের সাথে আমারও একটি প্রশ্নবোধক অবস্থান ছিল। কিন্তু গতকাল হবিগঞ্জ পৌরসভার উপ নির্বাচনে ইভিএম এ ভোট দিয়ে আমার দ্বিধা অনেটা কেটে গেছে। সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ অবাধ ভোট সম্পন্ন হওয়ার পিছনে প্রশাসন ও কর্তৃপক্ষের সাথে স্বীকৃতি দিতে চাই সেই ইভিএমকেও।

যে কোনও কারণেই হোক হবিগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচন যত ঘনিয়ে আসছিল, প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী ও ভোটারদের মধ্যে উত্তেজনা বেড়েই চলছিল। বিশেষ করে ভোটের আগের দিন রাতের হবিগঞ্জ শহর দেখার সুযোগ যাদের হয়েছে, তারা আমার সাথে একমত হবেন যে- হবিগঞ্জ একটি সহিংস নির্বাচনের দিকেই যেন অগ্রসর হচ্ছিল। এরকম থমথমে পরিস্থিতি, প্রশাসনের কঠোর অবস্থান, ব্যাপক তল্লাসী, যান চলাচলের উপর কঠোর বিধি-নিষেধ, মোটরবাইক আটক প্রভৃতি তোরজোড় জাতীয় নির্বাচনের সময়ও পরিলক্ষিত হয়নি। আর এমন একটি উত্তেজনাকর নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে প্রশাসনের সাথে সাথে ইভিএম কিভাবে কৃতিত্বের দাবিদার তার কয়েকটি উদাহরণ তুলে ধরছিঃ


(১) প্রতিদ্বন্দ্বি মূল দুই প্রার্থীর কর্মী সমর্থকদের মধ্যে ভোটকেন্দ্র দখল বা জাল ভোট প্রদানের একটি পাল্টা পাল্টি অভিযোগ থাকলেও ইভিএম সেই তৎপরতা নাকচ করে দেয়। এর পরিবর্তে প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীরা জোর দেন কিভাবে প্রার্থীরা তাদের ভোটারদের ভোট কেন্দ্রে উপস্থিত করাবেন সেটার উপর। কারণ- ভোটারদের আঙ্গুলের ছাপ ব্যতিত ভোটিং মেশিনটিতে সংশ্লিষ্ট ভোটারের ব্যালট তথা স্ক্রীনটি আসবে না।
(২) ব্যাপক শান্তিপূর্ণ নির্বাচনেও একটা টেলা ধাক্কার ঘটনা ঘটে। ব্যালট ছিড়তে, ভাজ করতে বা সীল মারতে একটু আধটু অনিয়ম হয়ে থাকে। যা সংঘর্ষে রূপ নেয়।
পরবর্তীতে সুক্ষ্ম বা স্থুল কারচুপির অভিযোগ আসে পরাজিত প্রার্থীর পক্ষ থেকে। অন্তত হবিগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে এই অভিযোগ ছিল না।
(৩) ব্যালট পেপার পদ্ধতিতে ভোট গননাকে কেন্দ্র করে অনেক সময় সহিংসতা দেখা দেয়। যা হবিগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে ছিল না।
(৪) বিকাল ৫টার মধ্যে ভোট সম্পন্ন হয়ে সাড়ে ৫টার মধ্যেই আমরা ফলাফল পেয়ে গেলাম। অনেক সময় এই বেসরকারি ফলাফল ঘোষণাকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ও সংঘর্ষ দেখা দেয়। ২০১৩ সালের হবিগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা উত্তেজনা পূর্ণ সময়ের কথা হবিগঞ্জবাসী আজও ভুলে নাই। রাত আড়াইটায়ও ফলাফল ঘোষণার নজিরও রয়েছে।
(৫) প্রতিটি নির্বাচনে সঠিকভাবে সীল ও ব্যালট বাজ না করায় হাজার হাজার ভোট বাতিল হয়ে যায়। কিন্তু এই নির্বাচনে ইভিএম এর মাধ্যমে ভোট নেয়ায় ভোট বাতিল হয়নি। তবে ইভিএম পদ্ধতিতে হবিগঞ্জ পৌর নির্বাচনে ভালো অভিজ্ঞতা থাকলেও কিছু সমস্যাও ছিল। যেমনঃ

(১) অনেক বয়স্ক ভোটারের আঙ্গুলের ছাপ দিতে গিয়ে সংশ্লিষ্ট ব্যালটের স্ক্রীন পেতে বার বার চেষ্টা করতে হয়েছে। ৮/১০ বার চেষ্টা করে অনেকের তথ্য খোলা হলেও কারো কারোরটা একেবারে হয়নি।
(২) অনেক অশিক্ষিত ও বয়স্ক মহিলা ভোটার ভোট দেয়ার সময় নির্ধারিত কক্ষে গিয়ে বাটন চাপতে সমস্যায় পড়েন। বাইরে থেকে নির্বাচনী কর্মকর্তারা বেশ জুড়ে শব্দ করে তখন নির্দেশনা দেন। অনেক সময় এতেও তারা না বুঝলে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের ভোট কক্ষের ভিতরে গিয়ে নির্দেশনা দিতে দেখা গেছে। সুতরাং নির্বাচন কর্মকর্তাদের সততা ও প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীর এজেন্টদের কড়া নজরদারী এক্ষেত্রে একান্ত প্রয়োজন।
(৩) অনেক ভোট কেন্দ্রে বিশেষ করে উমেদনগর এলাকায় ভোটারদের প্রচন্ড চাপের সময় ইভিএমে সময় বেশি নেয়ায় ভোটার বিরক্ত হয়েছেন। অনেক ভোটার বিরক্ত হয়ে গুমট গরমে চলে গেছেন।
(৪) অনেক ভোটারকে বলতে শোনা গেছে- যে বাটনে ভোটার চাপ দেন না কেন, সফটওয়্যার জালিয়াতির মাধ্যমে নাকি কোনও বিশেষ প্রার্থীর পক্ষে ভোট গননা হয়ে যাবে। এরকম প্রশ্ন না আসলেও আম জনতা যাতে এ ধরণের প্রশ্ন না তুলতে পারে সেটা সরকার ও নির্বাচন কমিশনকে আরো স্পষ্টভাবে জনগণকে বুঝাতে হবে।
(৫) অনেক সময় পেশি শক্তিমূলে কোনও বিশেষ প্রার্থী যাতে ভয়ভীতি দেখিয়ে বাটনে চাপ দিতে চাপ প্রয়োগ না করেন সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

যাই হোক গতকালের শান্তিপূর্ণ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী মিজানুর রহমান মিজান প্রদত্ত ভোটের ৬৩ শতাংশ ভোট পেয়ে জয়লাভ করে দীর্ঘ দেড়যুগ পর মেয়র পদটি আওয়ামী লীগ পেয়েছে। ২য় গোপালগঞ্জ তথা নৌকার ঘাটি খ্যাত হবিগঞ্জ জেলায় সদর পৌরসভায় বিএনপির প্রার্থীর তিনবার নির্বাচনে জয়লাভ করায় অনেক সময়ই আওয়ামী লীগকে অস্বস্তিতে ফেলতো। এ নির্বাচনে হবিগঞ্জ পৌরসভা সে অস্বস্তিমুক্ত হলো। বিগত ৮/৯ বছর যাবত পৌরসভার উন্নয়ন নিয়ে সাবেক মেয়র ও সদর আসনের সংসদ সদস্যের মধ্যে বুঝাপড়ার অভাবে পৌরসভা কাংখিত উন্নয়ন থেকে বঞ্ছিত হয়েছে। এবার যে কয়েকদিন সময় রয়েছে তার মধ্যে সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট মো: আবু জাহির এর সহায়তা ও দিক নির্দেশনা নিয়ে মিজানুর রহমান মিজান তার প্রতিশ্রুতি রক্ষা করে একটি নাগরিক ও পরিবশে বান্ধব পৌরসভা উপহার দিবেন এই প্রত্যাশা রইল। অন্যদিকে ক্ষমতাসীন দলের আরো তিন প্রার্থী যেন নব নির্বাচিত মেয়রকে আন্তরিকভাবে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন। এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

লেখক : ড. জহিরুল হক শাকিল
অধ্যাপক, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin