বৃহস্পতিবার, ০৪ মার্চ ২০২১, ০৬:০৯ অপরাহ্ন

‘এইচ বি রিতার একগুচ্ছ দ্রোহের কবিতা’

‘এইচ বি রিতার একগুচ্ছ দ্রোহের কবিতা’


শেয়ার বোতাম এখানে
  • 17
    Shares

সাহিত্য ডেস্ক:

(১)
কেন নই আমি

গাল মন্দ- অভিশাপে
বাড়ছে বুকের ধুকপুক, এ্যাড্রেনালিন উচ্চে
থামছিনা-মানছিনা
তুমি-তাঁরা
বিদ্যার জোরে দেখছো বিশ্ব বৈজ্ঞানিক বিশ্বাসে
কেন নয় আমি? কেন তাঁরা-তুমি?
এভাবেই চলছে গোঁজামিলে দাপাদাপি
বিদ্যা গ্রহণের বোধটুকু খেয়ে।
খন্ডানোর জোর নেই যার
নিয়ম অস্বীকার করে কেবল তাঁরাই
বোকার দল বুঝেনা
দুর্গম পথে ছুঁটবার বিদ্যা যার হাতে
সেই নেয় প্রাপ্তীর প্রথম ভাগ।

(২)
স্বাগতমে প্রজন্ম

ধৃষ্টতা নিয়ে প্রজন্ম বাড়ে লিকলিকিয়ে
বুকের ভাঁজে নীল খাম নয়, ঘ্রাণেন্দ্রিয়ের ঘর্ষণে
প্রেমাহত
এ তো মানুষ নয়; সময়ের দাবী।

স্পর্ধা বাড়িয়ে মধ্যকাল সেদিন
কোট-টাই বুকে সমধিকারে
মিডল ফিঙ্গারে দেখিয়েছিল ঘুনে ধরা সমাজ
প্রজন্মের নতুন বিপ্লব স্লোগানে
ছিলে তুমি-ছিলাম আমি
তবে কেন আগত স্বাগতমে
ইতিহাস উপেক্ষা করে যাই?

আজ জটিল সমীকরণে বন্দি জীবন
অস্তিত্ব সঙ্কট নয়, অথেন্টিসিটিতে সংজ্ঞায়ীত হয়
সূত্রটুকু মিলে যায়, ব্যবধান শুধু
বস্তুবিশ্বে আচমকা পাওয়া অহেতুক জীবনকে
অর্থবহ করার প্রাণান্তকর চেষ্টা।

(৩)
সাদাই কেন নিব

সাদাই কেন নিব, কেন নিতে হবে
কেন নয় গাঢ় সবুজ,
টুটটুকা লাল বা হলদে কমলা?
প্রিয় পৃথিবী বিদায় কালে সাদামাটা নয়
রংধনু ছড়িয়ে এলোকেশে
জ্বল জ্বলে টিপে টোল পরা গালে;
স্বার্থক চুম্বনে দাগ কেটে; বেদৌরা বেশভূষায় যাব।
বেলাল্লাপনা জোছনায় পুকুর জলে
শুদ্ধ স্নান সেরে
সাদা নয়, প্রিয় রঙ নিয়ে যাবো।
সাদাই কেন?
কেন নিতে হবে?

(৪)
আ্যাকেরণের অন্ধকার জল

একদিন হাত থেকে বেলুন ছুঁটে যাওয়া আমি আকাশ ছুঁতে দৌড়েছিলাম ভীষণ তেজে জেনেছিলাম সেদিন একটি ঘুড়ি উড়ে গিয়েছিল অবুঝ শিশুটির সবটুকু নিয়ে।

অবেলায় সেদিন শরৎ এর আকাশে শুভ্র মেঘখন্ড চোখ নেড়ে গিয়েছিল, উড়ে যাওয়া বালিহাঁসের ডানা দু’টো ভেঙ্গে সেদিন নিয়মের সবটুকু আঁচলে গিঁট বেঁধে হেসেছিলাম খিক খিক করে হারানোর উপমা ছিলনা জানা, নিয়মমাফিক মহাজন দিয়েছিল বেতন; বুঝার ছিলনা বয়স হারাবার কি ছিল বাকি!

এরপর তোমাকে পেতে দিয়েই দেখি স্পর্শের আকুতি নেই প্রেমের কথা বলার সুযোগ নেই; বেহুদা স্পন্দনে তোমার বুকের জমিনে অবাধ বিচরণে ঘুম নেই, কি অদ্ভূত বিরতিহীন উপাসনায় চন্দন ফোঁটায় মুনি-ঋষিরা তখনো ধৈর্য্য-শক্তির পাহাড় গড়েন।

এখন আর হারাবার কিছু নেই ক্রমশ গাঢ় অন্ধকারে নির্মল ভোর-বিশুদ্ধ বাতাস নেই আকাশের বুকে মেঘ-মেঘের বুকে কান্নার ঢল নেই শরৎ এর আকাশে নীল-সাদা মেঘ, সবুজের কাশফুল নেই, ‘ঢেঁকি’-ইঁদারায় প্রাচীন সভ্যতা রুপসী নদী-পাহাড়, অরণ্যে পোষাপাখী চলতি পথে লাজুকলতার কম্পিত শিহরণ নেই জন্ম থেকে আজ অবধী আকাঙ্খার অনুতাপে বিরহের শোক নেই।

এখন কেবল নিবিড় আলিঙ্গনে ভোর না হতেই আচমকা বিচ্যুত হয়ে যাবার গল্প সেটে মনে কল্পনায় গন্ধকোস্তের মুগবাদল ডাষ্টবিনে ফেলে এ যুগ থেকে মধ্য যুগ অতপর গ্রীক সভ্যতা গোগ্রাসে গিলে আ্যাকেরণের অন্ধকার জলে আত্মাদের সংমিলনে এক অবাক করা বিষ্ফোরণ নিয়ে শেষ বিদায়ী সকালের অপেক্ষায়।
এখন আর হারাবার কিছু নেই।

 

(৫)
তোমাদের শোধরাবার কেউ নেই

কারো কর্ণরন্ধ্রে পৌছানোর মত চিৎকার,
আমার কণ্ঠে নেই
কবির মত বুক পকেট ভরা শব্দ, তাও নেই
বলা যায় একেবারেই নিন্মবিত্তের ভাতের মার
কিংবা মেয়াদৌত্তীর্ণ ভেষজে ভিয়েতনামী ফো’র মত
একদমই তরল, সাদামাটা আমি।

‌অনেকটা হাট শহর গ্রামের নঁকশাহীন
মাটির হাড়ি-পাতিলের মত
সুনীল বাবুর মতই জুতোয় পেরেক ঠুকার বাহানায়,
পথে হয়ে যায় দেরী
মৃত লখিন্দরকে জাগিয়েছিল যে বেহূলা,
মিছে গল্পে তার জন্যও কেঁদে বুক ভাসানো;
সস্তা শ্রোতা আমি।

তাই সভ্যতার লেবাসে অসভ্যরা ভেবে নাও,
‘দে লাথি চোয়াল বরাবর’
তারপর খিলখিলিয়ে হাসি!
না না না! গন্ডমূর্খের দল
তোমরা জানো না জননী আমায় জন্ম দিয়েছিলেন
একই জনননালী পথে‌, নাভিমূল ছিঁড়ে
সস্তা পথে নয়।
বোকা তোমরা সভ্যতা বেস্টিত মানুষকে দূর্বল ভাবো।
বড্ড আফসোস লাগে
তোমাদের শোধরাবার মত কেউ নেই।

(৬)
নেইয়েন

হায়মোক্রোম্যাটোসিস দখলে নিল যে প্রাণ;
‌অনাধীকারে
অবশেষে সেও ছুঁয়ে গেল মায়ের হাত,
মিথ্যে মমতায় চরম শোকে।
কেমেরায় বন্দি জীবন
তবু দৃশ্যমান পর্দায় জাংজি সাং
জন্মদাত্রীর ঋণশোধে গেয়ে গেল গান,
সিউইড স্যুপে।
প্রিয় এক টুকরো মধুর কেইক হাতে
আঙ্গুলের সাথে গাল স্পর্শে,
পরখ করে দেখে নাড়ির বাঁধন।
সে বলে, বিদায় মা!
আমি তোমাকে অনেকদিন স্মরণে রাখবো।
ভালোবাসি তোমাকে।
বুক পুড়ে যায় তাঁর ভার্চুয়াল রিয়ালিটির বদান্যতায়
‘মিটিং ইউ’ সত্য-মিথ্যার আবরণে, জেনেও
ব্যথাতুর হ্নদয়ে ‌অন্ধ চোখে দেখে নেয় সে;
প্রজাপতির ডানায় উড়ন্ত মৃত নেইয়েনকে।

(৭)
এক টুকরো নারকেল

বলেছিলাম সব বলে দিব
আজ নয় কাল, কোন একদিন বলে দিব
সুনামীর ভয়ে থরথর কম্পনে,
ধরা পরে যাওয়া কুয়াশা মুড়ানো আ্যাড্রিয়াটিকের সেনেটা দাঁড়িয়ে ছিল দরোজার কোনে
নীল জলে ‌অসহায় একটি শিশু
ভীষণ আহত!
অনির্দেশ্য সে সময়কাল গলা চেপে ধরে আজও
ক্ষীপ্ত দানব হুংকার চোখে সে
পরখ করে নিয়েছিল শিশুটির হাতের
এক টুকরো নারকেল।
বলেছিলাম সেদিন বলে দিব তাঁর কথা
অ‌ধিকার হরণে যে,
সৎমা’য়ের; সংজ্ঞা দিয়েছিল।

এইচ বি রিতা
নিউইয়র্ক
লেখক, সাংবাদিক, কলামিষ্ট, কবি, শিক্ষক



শেয়ার বোতাম এখানে
  • 17
    Shares

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin