মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:১৫ অপরাহ্ন


এক অপ্রত্যাশিত মুগ্ধতা

এক অপ্রত্যাশিত মুগ্ধতা


শেয়ার বোতাম এখানে

ফারজানা ইসলাম নিলু

বয়সের তুলনায় ভারিক্কি স্বভাবের কারণে আমার ছোট চাচা আমাকে শুনিয়ে শুনিয়ে বলতেন, “জুলেখা বাদশার মেয়ে, তার ভারি অহংকার, সে সব সময় মুখ ভার করিয়া থাকে।”
অহংকার ছিলো কি না জানি না তবে অন্তর্মুখিতা ও অমিশুক স্বভাবের কারণে সেই সময় অনেক আপনজনের সান্নিধ্যে ও ভালোবাসা থেকে বঞ্চিত হয়েছি।

তাইতো আজ মধ্য বয়সে এসে রূপকথার গল্পের এই লাইনগুলো আমি খুব মিস করি। মিস করি বড় অসময়ে চলে যাওয়া আপনজনদের নিখাঁদ ভালোবাসা।

“যেখানে দেখিবে ছাই উড়াইয়া দেখো তাই”

মায়ার পেছনে ছায়ার মতো ছুটতে গিয়ে কখনো সখনো পেয়েও যাই মমতায় মোড়ানো অমূল্য রতন।

মানুষের পরম মমতা আমি উপেক্ষা করতে পারি না। এইসব মায়া মমতা দুর্দিনে যেমন উঠে দাঁড়াতে সাহায্য করেছে, তেমনি সুদিনে প্রবল বেগে দৌড়াতে প্রেরণা দিয়েছে।

২১ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সাল। পুরো ঢাকা শহর লোকে লোকারণ্য। বই মেলার আশেপাশে কি মাইল দুয়েক দুরেও যানবাহন নিষিদ্ধ। জনস্রোত ঠেলে মেলা প্রাঙ্গনে যাওয়া দুষ্কর। সকালে বেরিয়ে বই মেলায় পৌছাতে পৌছাতে দুপুর।
বেঁচে থাকার জন্য জরুরি বিশুদ্ধ বাতাসে অক্সিজেনের বড় অভাব। এই দূষণের শহরে একবার করোনাভাইরাস ঢুকতে পারলেই সেরেছে। বের হওয়ার রাস্তা না পেয়ে লুটা কম্বল নিয়ে জন্মের মতো ঘাঁটি গেড়ে বসবে।

এক পিতৃস্থানীয় অভিভাবক লিখালিখির শুরু থেকেই উৎসাহ দিয়ে আসছেন। এই দুর্যোগময় মুহুর্তে জানালেন, বই মেলায় তিনি আসছেন আমার বই নিতে। অনেক খুশি হলেও মনে মনে ভাবলাম, এই দুর্গম জনস্রোত ঠেলে আসবেন কেমনে?

অনেক দূরে গাড়ি রেখে প্রবেশ পথের সকল প্রতিবন্ধকতা ঠেলে হাঁটতে হাঁটতে সত্যিই চলে আসলেন চৈতন্যতে।
ঢাকা শহরের বড় বড় প্রকাশকদের সাথে পরিচয়। আমাকেও সাথে নিয়ে গেলেন কয়েকটা প্যাভিলিয়নে। পরিচয় করিয়ে দিলেন, আমার ভাতিজি, বড়লেখা বাড়ি। প্রথম উপন্যাস “রুমানা”বেরিয়েছে এই বই মেলায়।

বই মেলায় পাঠক নয় দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভীড়। দিনব্যাপী ঘুরাঘুরি করে ক্লান্তির সীমা নেই। কিন্তু বাসায় নিয়ে যাবেন তিনি আমাকে। তীব্র অনিচ্ছা হলেও স্নেহের ডাক উপেক্ষা করতে পারি না।

মমতাময়ী গৃহকর্ত্রী চাচির চমৎকার আতিথেয়তায় অপ্রত্যাশিত এক মুগ্ধতা। শ্রান্তি, ক্লান্তি আপনা আপনি উধাও। ভোজনে, গল্পে ভালোই কাটলো সময়।

ব্যারিস্টার, ব্যাংকার ও ডাক্তার পুত্রদের গর্বিত পিতামাতার নাতি নাতনিরাও মেধাবী। প্রতিভাবান শ্যামা শ্রেয়া ও শৌভিককে দেখলেই বুঝা যায় মেধার উত্তরাধিকার তাদের হাত ধরে এগিয়ে যাবে বহু দূর।

প্রতিষ্ঠিত পরিবারের সফল কর্তা সুপ্রিম কোর্টের সুপরিচিত সিনিয়র আইনজীবী বীর মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট তবারক হোসেইনকে নতুন করে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার কিছু নেই।

আমার দেখা অসাধারণ একজন মানুষ ঘুরে ঘুরে দেখালেন নিজের বইয়ের সুসজ্জিত লাইব্রেরি। ইশ কি সুন্দর! আকাশের কাছাকাছি আলোয় মাখামাখি এক চিলতে পড়ার ঘর।পূর্ণিমার জোছনা পথ ভুলে নয়, পথ চিনেই আসবে এইখানে। ঝুমঝুম বৃষ্টি হাত বাড়ালেই ধরা যাবে পড়ার টেবিল থেকে।

বই পাগল এই হিতৈষী নিজের এলাকা শাহবাজপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রতিষ্ঠিত করেছেন বিশাল এক সমৃদ্ধ লাইব্রেরি।

দিনক্ষণ ঠিক করিনি, তবে লাইব্রেরি দর্শনে যাচ্ছি শীঘ্রই। ঘুরে এসে মনের মাধুরী মিশিয়ে লিখবো সেই লাইব্রেরি নিয়ে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin