বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২১, ০২:৪১ অপরাহ্ন

এখনো শঙ্কা কাটেনি সিলেটবাসীর!

এখনো শঙ্কা কাটেনি সিলেটবাসীর!


শেয়ার বোতাম এখানে

স্টাফ রিপোর্ট: নির্বাচন শেষ। নতুন ভাবে সরকার গঠন হচ্ছে। নতুন উদ্দিপনায় নতুন বছরের শুরু হওয়ার কথা থাকলেও সেটা লক্ষ করা যাচ্ছে না। সিলেটে নির্বাচনে বড় কোন সহিংসতার ঘটনা না ঘটলেও জনমনে ভয়, শঙ্কা ও হতাশা কাটেনি। এখনো রাস্তাঘাটে যানচলাচল তেমন নেই। সাধারণ মানুষ একান্ত প্রয়োজন ছাড়া বাসা বাড়ি থেকে বের হচ্ছেন না। শহরে মানুষের তেমন কোলাহল নেই। প্রয়োজনীয় কাজ সম্পন্ন করে বাসা বাড়ির দিকে ছুটছেন অনেকেই। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও সেনাবাহিনীর সদস্যরা শহরের গুরুত্বপূর্ণ মোড় ও স্থাপনা এবং জনগুরুত্বপূর্ণ এলাকায় বন্দুক উঁচিয়ে টহলরত রয়েছে। রাজনৈতিক সংঘাতের আশঙ্কা নেই বললেই চলে তবুও জনমনে যেন একটা ভয় কাজ করছে।
সিলেটের ৬টি সংসদীয় আসনের ৫টিতে জয় পেয়েছেন মহাজোট প্রার্থীরা। অপরদিকে ৫টি আসনে বিএনপির প্রার্থীরা শোচনীয়ভাবে পরাজিত হয়েছে। ফলে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতার সম্ভাবনায় সাধারণ মানুষ বাইরে আসতে চাইছে না। অঘোষিত হলেও গত দুইদিন নির্বাচনের দ্বিতীয় দিনের মতো বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম ছিলনা। বিভিন্ন বিপনি বিতান, স্কুল-কলেজ ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকতে দেখা গেছে। বিশেষ করে জনমনে শঙ্কা কাটতে আরো কয়েকদিন সময় লাগবে। সাধারণ মানুষ নিজেদের নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কিত। নির্বাচনে জয় পরাজয়ে তাদের কোন আগ্রহ নেই। ৬টি আসনের সবকটি উপজেলা সদরের বাজারগুলো খবর নিয়ে জানা যায় একই অবস্থা। এদিকে নির্বাচনের আগে চায়ের দোকান গুলোতে যেমন ভীড় ছিল তেমনি রয়েছে। আলোচনায় উৎসাহ উদ্দিপনা কম থাকলেও সবার কাছে আলোচনা শুধুই নির্বাচন। অনেকের দেয়া অংক মেলেনি, আবার কারো কারো মিলেছে এই নিয়ে তর্ক-বিতর্ক জমেই রয়েছে। তবে আলোচনাটা একটা সীমারেখার ভিতরে রেখেই।
আওয়ামী লীগের কর্মি সমর্থকরা আনন্দে মনে সময় কাটালেও বিএনপির নেতাকর্মি ও সমর্থকরা সময় কাটাচ্ছেন অলস ও অবসরে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জেলা বিএনপির এক সিনিয়র নেতা বলেন, অবসরে টিভির সংবাদ দেখেই সময় কাটাচ্ছেন। ফেনে নেতাকর্মিদের সাথে যোগাযোগ রাখছেন। কেন্দ্রীয় যে কোন নির্দেশনার অপেক্ষা করছেন তারা।
আবার সকল পরিস্থিতিতে শান্তিপূর্ণ পরিবেশের খোঁজে থাকে কর্মজীবী ও পেশাজীবীরা। বিশেষ করে ব্যবসায়ী ও পরিবহন সংশিষ্টরা সুন্দর এবং নিরাপদ পরিবেশ চায়। তাদের মাঝেও স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে আসছেনা। এদিকে সিলেট শহরের প্রতিটি শপিংমলগুলোতে ভাটা পড়েছে। সাধারণ মানুষ এখনো আশ্বস্ত হতে পারছে না বলে তারা এখনো কেউ বের হচ্ছেন না বাসা-বাড়ি থেকে। অনেক ব্যবসায়ী বলছেন নতুন বছরের শুরুতেই কেনাকাটার বাজারটা অনেক জমজমাট থাকে। কিন্তু ভাটা ব্যবসার মাধ্যমেই এবছরটা শুরু হলো। জনমনে শঙ্কা কেটে এ পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে আরো কয়েকদিন লাগতে পারে বলে অভিমত ব্যক্ত করেন সিলেটের বু ওয়াটারের ব্যবসায়ী মতিউর রহমান। নগরীর হাসান মার্কেটের ব্যবসায়ী শফিক আহমেদ বলেন, শহরে লোকজন না আসায় ব্যবসা বাণিজ্য নেই। তাই বসে অলস সময় কাটাচ্ছেন।
শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন শেষ হলেও পুঁজিবাজারের বিনিয়োগকারীদের মধ্যেও এখনো আশঙ্কা-শঙ্কা-দুশ্চিন্তা কমছেনা। কারণ পুঁজিবাজার খুবই স্পর্শকাতর। যে কোনো বিষয়ের প্রভাব এখানে দেখা যায়।
জেলা পুলিশের এক কর্মকর্তা জানান, জেলায় নির্বাচনে কোন উলেখযোগ্য সহিংসতা হয়নি। তবে জনমতে আতংক কাজ করছে। স্বাভাবিক হতে দু’একদিন সময় লাগবে।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin