বৃহস্পতিবার, ১৭ Jun ২০২১, ০১:৩২ অপরাহ্ন

এবার সিলেটে মুক্তিযোদ্ধাদের নামে টিলা কাটার মহাউৎসব!

এবার সিলেটে মুক্তিযোদ্ধাদের নামে টিলা কাটার মহাউৎসব!


শেয়ার বোতাম এখানে

স্টাফ রিপোর্টার:
টিলা কেটে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে প্লট বানিয়ে দেওয়া হবে এমন কথা বলে অবৈধভাবে টিলা কেটে সমতল করছে সিলেটের একটি ভুমিখেকো একটি চক্র। সিলেট সদর উপজেলার খাদিমনগর ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের টিলারগাও এলাকায় চলছে টিলাকাটার মহাউৎসব। দুই সপ্তাহ ধরে তিন দিক থেকে প্রকাশ্য দিবালোকে টিলাকাটা হলেও প্রশাসন রয়েছে নিরব ভূমিকায়। অনুমোদন নিয়েই টিলা কাটা হচ্ছে কর্তৃপক্ষের এমন বক্তব্যেরও পাওয়া যায়নি কোনো সত্যতা। এনিয়ে এলাকাবাসী ও মুক্তিযোদ্ধারা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। অভিযোগ উঠেছে পরিবেশ অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করেই চলছে টিলাকাটার এই মহোৎসব।

সরেজমিনে ওই এলাকায গিয়ে জানা গেছে, সিলেট মহানগরের বিভিন্ন এলাকায় প্রশাসনের নজরদারির আড়ালেই টিলা কেটে গড়ে তোলা হচ্ছে বাসাবাড়ি এবং নানা স্থাপনা। সিলেট সদর উপজেলার খাদিমনগর ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের টিলারগাও এলাকায় বিগত কয়েকবছর ধরে টিলা কাটা চলছে। বিগত কিছুদিন ধরে মুক্তিযোদ্ধাদের নামে প্লট বানানোর অনুমোদন সরকারের কাছ থেকে পেয়েছেন এমন কথা বলে টিলা কেটে সমতল ভূমিতে পরিণত করা হচ্ছে। আর এই টিলা কাটার নেতৃত্ব দিচ্ছেন টিলার বাসিন্দা ও সিলেট বিভাগ উন্নয়ন পরিষদের সাবেক সদস্য সচিব লুৎফুর রহমান নামের এক টিলাখেকো। আর তাঁর সাথে দালাল হিসেবে কাজ করছে শমশের, বকুল ও লাভলুসহ অন্যরা। এরা এলাকা প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে কেউ মুখ খুলছেন না। সরকার দলের এই প্রভাবশালী নেতারাই এই টিলা কেটে প্লট তৈরী করছেন বলে অভিযোগ স্থানীয়দের।

নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক বাসিন্দা বলেন, লুৎফুর রহমান নামের এক ব্যক্তি এই টিলা কাটছেন। তিনি ্েই টিলা এলাকার বাসিন্দা। গত সপ্তাহে টিলা কাটার প্রতিবাদ করায় তিনি আমাদের জানিয়েছেন তিনি সরকার দলের লোক। টিলা কেটে মুক্তিযুদ্ধাদের পরিবারকে প্লট বানিয়ে দেয়ার জন্য তিনি নাকি সরকারের কাছ থেকে এই কাজ পেয়েছেন। টিলা কাটার জন্য সরকার ও পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমতিপত্র জালালাবাদ থানায় দিয়েছেন। থানা অবগত আছে তাই এই জায়গায় প্রতিদিন টহল পুলিশ আসবে যাতে কেউ টিলা কাটায় তাদের বাধা প্রদান না করতে পারে।

সরেজমিনে দেখা যায়, ১০-১২ জন শ্রমিক টিলা কেটে ঠেলাগাড়ি দিয়ে মাটি সরাচ্ছেন। গত ২ সপ্তাহ ধরে শ্রমিকরা টিলার তিন দিক থেকে কাটছেন। টিলা কাটার অভিযোগ পেয়ে সোমবার ঘটনাস্থলে দৈনিক শুভ প্রতিদিনের ফটো সাংবাদিক শহীদুল ইসলাম সবুজ ছবি তুলতে গেলে কর্মরত শ্রমিকরা সরঞ্জামাদি রেখে পালিয়ে যায়। এর কয়েক মিনিটের মধ্যে বেশ কয়েকজন দারাল অস্ত্র দিয়ে তাকে ধাওয়া করে।

তবে ফটো-সাংবাদিক ধাওয়া করার বিষয়টি অস্বিকার করে লুৎফুর রহমান বলেন, সাংবাদিক আমাদের বন্ধু। আমরা কখনো অন্যায় করিনা বা অন্যায়ের প্রশ্রয়ও দেই না। সাংবাদিককে ছবি তুলতে কেউ বাধা দেয় নি। টিলা কেন কাটা হচ্ছে এমন প্রশ্নের জবাবে লুৎফুর বলেন, মুক্তিযোদ্ধাদের সন্তানদের নিয়ে মুক্তিযোদ্ধা পল্লি সমবায় সমিতি আছে। এই সমিতির মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধাদের প্লট বানিয়ে দেয়ার জন্য তারা সরকারের কাছ থেকে এই কাজ পেয়েছেন। এই অনুমোদনের বিষয়ে পরিবেশ অধিদপ্তর, জালালাবাদ থানাপুলিশ জানে বলেই এখনো কেউ বাধা দেয়নি। অবৈধ হলেতো বাঁধা আসতো। এব্যাপারে জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার মির্জা জামাল পাশা বিস্তারিত জানেন। তাঁর কাছ থেকেই আপনারা সব বিষয়ে জানতে পারবেন বলে জানান তিনি। তার কথামতো মির্জা জামাল পাশার সাথে যোগাযোগের জন্য তাঁর ব্যাক্তিগত মোবাইল নাম্বারে সোমাবর সন্ধ্যায় বেশ কয়েকবার কল দিলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

এব্যাপারে বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সিলেট জেলা ইউনিট কমান্ডের সাবেক কমান্ডার সুব্রত চক্রবর্তী জুয়েল শুভ প্রতিদিনকে বলেন, এ টিলাটি নিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের প্লট বানানোর বিষয়ে তিনি কিছুই জানেন না বা প্রাতিষ্ঠানিকভাবে এই টিলার সাথে মুক্তিযোদ্ধাদের কোনো সর্ম্পক নেই। এটা হয়তো কোনো ব্যাক্তি মালিকানা টিলা। টিলাটি কাটার জন্য মুক্তিযোদ্ধাদের নাম ব্যবহার করছে একদল টাউট-বাটপার টিলাখেকো চক্র। মুক্তিযোদ্ধাদের নাম ভাঙিয়ে সুবিধাভোগীদের শাস্তি দাবি করে তিনি তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

এদিকে জালালাবাদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অকিল উদ্দিনের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, ওই এলাকা জালালাবাদ থানা এলাকার না। এটা এয়ারপোর্ট থানার অধিনে। আর টিলা কাটার বিষয়টি তাঁর জানা নেই।

এ বিষয়ে কিছুই জানেন না জানিয়ে এসএমপির এয়ারপোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম শাহাদাত হোসেন বলেন, কোথাও টিলা কাটা হলে আমরা তা বন্ধ করি।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন-বাপা সিলেটের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল করিম কিম বলেন, এভাবে টিলা কাটার কারণে হুমকির মুখে পড়ছে পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য। বাড়ছে তাপমাত্রাও। আর এ জন্য কর্তৃপক্ষের গাফিলতিকেই দুষছেন তিনি। কিম বলেন, পরিবেশ অধিদপ্তরের নজরদারির অভাবে ঠেকানো যাচ্ছে না টিলা কাটা। বেশ কয়েক বছর ধরে সিলেটেটিলা কাটার মহাউৎসব চলছে। এ নিয়ে সিলেট বিভাগের পরিবেশ অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে ব্যবস্থা নেয়া হবে এমন বক্তব্য অনেকবারই সংবাদ মাধ্যমে এসেছে। কিন্তু রহস্যজনক কারণে আদৌ তেমন কোনো আইনি পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি।

এ বিষয়ে সিলেট বিভাগের পরিবেশ অধিদপ্তরের বিভাগীয় পরিচালক ইসরাত জাহান পান্না বলেন, যে কোনো বিষয়ে জানতে অফিস টাইমে যোগাযোগ করবেন। অফিস টাইমের পর কোনো বক্তব্য দেয়া যাবেনা।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin