শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০, ০২:৪৮ পূর্বাহ্ন



এমসি কলেজের ভেতরে এস্কেভেটর মেশিন লাগিয়ে টিলা কাটা চলছে

এমসি কলেজের ভেতরে এস্কেভেটর মেশিন লাগিয়ে টিলা কাটা চলছে


                        আব্দুল করিম কিম  

টিলাগড় এলাকাকে গডফাদার ও দূর্বৃত্বমুক্ত করার দাবিতে গতকাল ১০ অক্টোবর শনিবার বিকেলে এমসি কলেজ-এর মূল গেইটে ‘দুষ্কাল প্রতিরোধে আমরা’ নামের নাগরিক মোর্চার পক্ষ থেকে আয়োজিত প্রতিবাদী কর্মসুচি পালনের জন্য সমবেত হয়েছিলাম। কর্মসুচিটি ব্যাতিক্রমধর্মী ছিল।

আমরা কলেজের মূল ফটকে লাল নিশান উড্ডয়ন করে এই এলাকাকে সর্বসাধারণের জন্য বিপদজনক বলে ঘোষণা করি। আমরা এমসি কলেজ সহ গডফাদারদের নিয়ন্ত্রিত এলাকাতে সম্প্রতি ঘটে যাওয়া আলোচিত গণধর্ষণ ও পরবর্তীতে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের বরাতে পাওয়া অন্যান্য অপকর্মের ফিরিস্তি জেনে উপলব্ধি করি এলাকাটি দেশের ভেতরে আরেকটি দেশ হয়ে বসে আছে। এখানে হত্যা, নারী নিগ্রহ, ধর্ষণ, চাঁদাবাজি, মাদক ব্যাবসা সহ নানান অপকর্ম ঘটলেও এর কোন প্রতিকার পাওয়া যায়না। এলাকাটি দুর্বৃত্তদের স্বর্গরাজ্যে পরিণত হয়েছে। আর এর মূল কারন ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দলের একাধিক প্রভাবশালী নেতার আশ্রয়-প্রশ্রয়।

এই নেতাদের কারনেই ২০১২ সালে এমসি কলেজের ছাত্রাবাসে অগ্নিসংযোগের মূল হোতাদের চিহ্নিত করা সত্বেও প্রায় এক দশকেও তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নেয়া সম্ভব হয়নি। দুর্বৃত্তায়নের রাজনীতি ও বিচারহীনতার সংস্কৃতির খেসারত দিতে হচ্ছে এমসি কলেজের শিক্ষার্থী ও এলাকার সাধারণ নাগরিকদের।

কলেজের অধক্ষ্য নিজেকে অসহায় দাবী করলেও তিনি কলেজকেন্দ্রীক অপকর্মের দায় এড়াতে পারেন না। আর তিনি যে, সকল অপকর্মের একজন অংশীদার আজ তা আরো ভালো ভাবে উপলব্ধি করলাম।

কলেজ ফটকে প্রতিবাদী কর্মসুচি পালন শেষে ফেরার সময় টং দোকানে চা খেতে খেতে জানতে পারলাম কলেজের ভেতরে এস্কেভেটর মেশিন লাগিয়ে টিলা কাটা চলছে। শুনে হতভম্ব হয়ে যাই। সাথে থাকা একাধিক গণমাধ্যমকর্মীকে সাথে নিয়ে কলেজের ভেতর প্রবেশ করি। গণমাধ্যম কর্মীদের সাথে ক্যামেরা বা বুম ছিলো না। প্রবেশ পথে থাকা নিরাপত্তাকর্মী আমাদের বাঁধা দেয়। আমরা ভেতরে পুকুর দেখে ফিরে আসবো বলে হাঁটা শুরু করি।

প্রথমে কলেজের পুকুরঘাটে দাঁড়াই। এসময় আমাদের নজরে আসে পুকুরের উত্তরপাশে যেখানে এক সময় ক্যান্টিন ছিল সেখানে দশ তলা ভবন নির্মাণ প্রকল্পে এস্কেভেটর দিয়ে থ্যাকারের টিলার ঢাল থেকে মাটি কাটা হচ্ছে। আমরা এমন দৃশ্য দেখে দ্রুত সেখানে যাই এবং দায়িত্বরত ঠিকাদারকে টিলা না কাটতে বলি। তিনি আমাদের বুঝাতে শুরু করেন এটা টিলা নয়। এটা পুর্বের স্তুপ করা মাটি!

এ সময় তিনি কাকে ফোন দেন। একটু পরেই একজন সাব-ইন্সপেক্টর এসে আমাদের অনুরোধ করেন চলে যাওয়ার জন্য। তিনি বলেন, অধ্যক্ষ স্যারের নির্দেশ দিয়েছেন আপনাদেরকে চলে যাওয়ার কথা বলতে। আমরা আর কথা না বাড়িয়ে চলে আসি তবে পুলিশের ঐ কর্মকর্তা তখন টিলা কাটা বন্ধ রাখতে বলেন।

২০১৭ সালে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদ নির্বাহী কমিটিতে (একনেক) এমসি কলেজ-এর এই দশ তলা ভবন নির্মাণ প্রকল্প অনুমোদন করে। যা নির্মানের দায়িত্ব পায় শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর। ছাত্র মিলনায়তন আর ক্যান্টিন ভেঙ্গে এই নতুন দশ তলা ভবন নির্মান করা হচ্ছে। নতুন ভবনের প্রয়োজন আছে তা সত্য কিন্তু এমসি কলেজের আদিরুপ বিনস্ট করে নির্মিতব্য এই দশ তলা ভবন নির্মান কোন্রুপেই সুবিবেচনা প্রসূত নয়।

পুকুর থেকে উত্তর দিকে তাকালে আর পেছনের টিলা ও গাছপালা দেখা যাবে না। সকলের অবগতির জন্য গতকাল বিকেলে তোলা টিলাকাটার ছবি সংযুক্ত করে দিলাম। কলেজের প্রাক্তন ছাত্র ও শিক্ষকেরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করলে নিজেরা আরো ভালো উপলব্ধি করতে পারবেন।

লেখক: আব্দুল করিম কিম, সমন্বয়ক, সিলেটের ইতিহাস-ঐতিহ্য-সংস্কৃতি ও প্রকৃতি রক্ষা পরিষদ।

লেখাটি, লেখকের ফেইসবুক থেকে নেওয়া।


সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin