বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ১০:০৫ অপরাহ্ন


এ কেমন সাদা পোশাক?

এ কেমন সাদা পোশাক?


শেয়ার বোতাম এখানে

শাহ শরীফ উদ্দিন:
সাদা পোশাক বলতে আমাদের সাধারণ ধারনা সাদা রঙের কোন পোশাক। আর সাদা মানেই শান্তি। গরম হোক আর শীত হোক পরতে তুলনামূলক আরামদায়ক সাদা পোশাকের প্রতি সব বয়সের মানুষের আগ্রহ আছে। কিন্তু সম্প্রতি সাদা পোশাকে আতঙ্ক ছড়াচ্ছে। এতটাই আতঙ্ক যে সাদা পোশাকের ভয়ে সিলেটের অর্ধশত সাংবাদিক জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে জিডি করেছেন। তবে কি আরো হাজার হাজার মানুষ সাদা পোশাকের ভয়ে জিডি করবেন? কিন্তু এ কেমন সাদা পোশাক! শান্তির সাদা পোশাকে অশান্তি কেন?

এবার আসি মূল আলোচনায়। সম্প্রতি যে সাদা পোশাক আতঙ্ক ছড়াচ্ছে তা হলো পুলিশ প্রশাসনের সাদা পোশাক। না সাদা রঙের কোন পোশাক নয়। এটি হচ্ছে পুলিশের পোশাকের বদলে সাধারণ পোশাক। যে পোশাক পুলিশ আর সাধারণ মানুষ কিংবা কোন অপরাধীকে আলাদা করতে পারে না। সম্প্রতি এমনই এক পোশাক পরা কয়েকজন সিলেটের উইমেনস হাসপাতালের করিডর থেকে একজন পরিচিত সাংবাদিককে গ্রেপ্তার করেন। এর পর থেকেই মূলত সাদা পোশাকে আতঙ্ক।

কিন্তু কেন এ আতঙ্ক? এমন প্রশ্ন আসাটা স্বাভাবিক। আমরা জানি পুলিশের একটি নির্ধারিত পোশাক আছে। এই পোশাক দিয়েই আমরা তাদেরে পরিচয় পাই। কিন্তু পোশাক না থাকলে কে পুলিশ আর কে সাধারণ মানুষ আর কে অপরাধী তা বুঝা কোন ভাবেই সম্ভব না। অবশ্য পাঞ্জাবি ছাড়া মসজিদের ইমাম বলেন আর লগুনবিহীন ব্রাহ্মন বলেন সবাই সমান।

এমতাবস্থায় সাদা পোশাক বা পুলিশের পোশাক ছাড়া কাউকে গ্রেপ্তার করার ক্ষেত্রে আতঙ্ক থাকতেই পারে। আর সে আতঙ্ক সম্ভবত জাতীর বিবেক সাংবাদিকদের মধ্যে। না এ আতঙ্ক কেবল নিজের জীবনের নয়, এ আতঙ্ক সমাজের মানুষের জন্য। কারণ এমন যদি চলতে থাকে তাহলে সদা পোশাকে এই সমাজে ছড়াবে গুম, খুনসহ অপরাধীরা সহজেই অপরাধ সংগঠিত করতে পারবে। তখন অপরাধীকেও পুলিশ মনে হবে। তাই জাতীর বিবেক হিসেবে সাংবাদিকদের কি এমন গ্রেপ্তার পদ্ধতির প্রতীবাদ করা নৈতিক দায়িত্ব নয়? তাই হাজারো মানুষ সাদা পোশাকের ভয়ে জিডি করার আগে সাংবাদিকরাই জিডি করলেন। আমি বলি সাংবাদিকের চোখে শান্তির যে বাংলাদেশ সেখানে সাদা পোশাকে গ্রেপ্তার নিশ্চয় একটি আতঙ্ক। তাইতো সাবেক প্রধান বিচারপতি এন কে সিনহা নিজেই সাদা পোশাকে গ্রেপ্তার পদ্ধতির বিরোধিতা করেছিলেন। তিনিও বলেছিলেন সাদা পোশাকে গ্রেপ্তার নয়, প্রয়জনে জ্যাকেট এবং গলায় আইডি কার্ড জুলীয়ে রাখতে হবে।

এখন আসি সাদা পোশাকের আইনি বৈধতা। পেশা হিসেবে সাংবাদিকতায় থাকলে আমার পড়াশোনা আইন বিভাগে। সেই সুবাদে যেটুকু জানি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সংবিধান অনুচ্ছেদ ৩৩ (১) কাউকে যখন গ্রেপ্তার করা হয় তখন তাকে সন্তুষজনক পরিচয় প্রদান করতে হয়। এমনকি গ্রেপ্তারের সময় ঘটনাস্থলে উপস্থিত অন্য কোন ব্যক্তি থাকলে তাকেও সন্তোষজনক পরিচয় প্রদান করতে হবে। বাসা বা কর্মস্থল ছাড়া অন্য কোন স্থান থেকে গ্রেপ্তারের এক ঘন্টার ভিতর নিকটাত্মীয় বা পরিচিত কারো কাছে টেলিফোনে বা বিশেষ বার্তাবাহকের মাধ্যমে খবর জানাতে হবে। কিন্তু সাংবাদিক মঈনুল হক বুলবুলকে গ্রেপ্তারের সময় সে নিয়ম মানা হয়েছে কি না তা আমার জানা নেই।

এখানেই শেষ না। ব্যাপারটা জানার জন্য সিলেটের বিজ্ঞ আইনিজিবী এমাদ উল্লাহ শহীদুল ইসলাম স্যারের কাছে জানতে চাইলাম। স্যার জানালেন সাদা পোশাকে পুলিশের স্বাভাবিক দায়িত্ব পালন আইনত অপরাধ। পুলিশ আইনে পুলিশের পোশাকের ব্যাপারটা বাধ্যতামূলক। তবে ডিবি পুলিশ সাদা পোশাকে বিশেষ ক্ষেত্রে অভিযান চালাতে পারে। যাই হোক এখন আসি ভিন্ন কথায়।

সকল আলোচনার পর বুঝা যায় সবার জন্য সাদা পোশাক মানে সাদা রঙের পোশাক হলেও পুলিশের ক্ষেত্রে সদা পোশাক ব্যাপক শক্তিশালী। মানে বিশেষ ক্ষেত্র ছাড়া পুলিশ সাদা পোশাকে দায়িত্ব পালন করতে পারেন না। কিন্তু আমার প্রশ্ন হলো সাংবাদিক মঈনুল হক বুলবুল সাহেবকে গ্রেপ্তারের ব্যাপারে এমন বিশেষ পদ্ধতি ব্যাবহারের খুব প্রয়োজন ছিল কি? মামলা থাকলে গ্রেপ্তার হবেন, পুলিশ মামলার আসামি গ্রেপ্তার করবে এটা তাদের দায়িত্ব বটে। কিন্তু উনাকে গ্রেপ্তারের ক্ষেত্রে এতো বিশেষ পদ্ধতির প্রয়োজন কেন? ফোন দিলে কি উনি থানায় হাজির হতেন না? তবে কি প্রিয় সাদা পোশাক আতঙ্কের হতে চলেছে?


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin