বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০১:৪৮ পূর্বাহ্ন



ঐক্যফ্রন্টের এমপি মোকাব্বির খান এখন কার -গণফোরামের না আওয়ামী লীগের?

ঐক্যফ্রন্টের এমপি মোকাব্বির খান এখন কার -গণফোরামের না আওয়ামী লীগের?


স্টাফ রিপোর্ট:: সিলেট-২ আসনের সংসদ সদস্য ও গণফোরামের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোকাব্বির খান এখন কার? ঐক্যফ্রন্টের, গণফোরামের, বিএনপির নাকি আওয়ামী লীগের। এমন প্রশ্ন এখন জনসাধরনের মুখে মুখে। কারণ তিনি উপজেলা গণফোরামের নেতাদের ছেড়ে আওয়ামী লীগের নেতাদের নিয়ে চষে বেড়াচ্ছেন চারদিকে।  তবে, এমপি মোকাব্বিরের দাবি তিনি শুধুমাত্র জণগনের। আর জনগনের কল্যাণে কাজ করে তিনি জীবন উৎসর্গ করতে চান। এদিকে এমপি মোকাব্বিরকে পুঁজি করে কেউ নিজের রাজনৈতিক আধিপত্য বিস্তারে সুকৌশলে এমপি মোকাব্বিরের ছায়তলে প্রবেশ করেন। আর কেউ মোকাব্বিরকে প্রতিহত করে আগামী নির্বাচনের এমপি হওয়ার সম্ভাবনার পথ খুঁজছেন।

এমন অপরাজনীতির শিকার এখন এমপি মোকাব্বির। তবে, এমপি মোকাব্বিরেরও অতি দ্রুত অবস্থান পাল্টানোরও জনশ্রুতি রয়েছে। তবে তাঁর দাবি, বিশ্বনাথের উন্নয়নে সকলের সমন্বয়ে স্বচ্ছভাবে কাজ করতে চান তিনি। এদিকে, বিশ্বনাথে এমপি মোকাব্বিরকে নিয়ে যে রাজনীতি শুরু হয়েছে তা নিয়েও উদ্বিগ্ন সচেতনমহল।

অপরদিকে, এমপি মোকাব্বির নির্বাচিত হওয়ার ২০মাস পেরিয়ে গেলেও তাঁর নির্বাচনি এলাকায় তাঁর কোন দৃশ্যমান উন্নয়ন হয়নি এমন কারনে উপজেলার জনসাধারণ তাঁর প্রতি ক্ষুব্ধ রয়েছেন। করোনাভাইরাসের প্রাদুভার্বের সংকটকালীন সময়ে তিনিও করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় জনগনের পাশে দাড়াতে পারেননি। এরপর বন্যা পরিস্থিতির সময় দুএকটি চ্যারিটেবল ট্রাস্ট্রের হয়ে দূর্ভোগে থাকা মানুষের পাশে দাড়াতে দেখা গেলেও নিজের বা সরকারি কোন সাহায্য নিয়ে তাকে হাজির হতে দেখা যায়নি।

তিনি বিভিন্ন অনুষ্ঠানে জাতীর পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গুণকৃর্তন করে বক্তব্য রাখেন। প্রতিটি অনুষ্ঠানে দূর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টল্যারেন্সে কাজ করবেন এমন প্রতিশ্রুতি দিলেও উপজেলায় গত দেড় বছরে কোন খোঁজখবর নেননি বা উপজেলার কোন আইনশৃঙ্খলা সভায়ও উপস্থিত হননি। উপজেলা বিভিন্ন দপ্তরে দূর্নীতি প্রকাশ পেলেও কোন বিষয়ে তিনি হস্তক্ষেপ করেননি। হঠাৎ করে দেড় বছর পর আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় উপস্থিত হওয়ার বিষয়টিও নিয়ে উপজেলাজুড়ে নানা গুঞ্জন দেখা দিয়েছে।

জানা গেছে, ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর একাদশ নির্বাচনে ঐক্যফ্রন্টের ব্যানারে নির্বাচিত হন গণফোরামের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোকাব্বির খান। কথায় আছে যে যায় বঙ্গে, কপাল যায় সঙ্গে। কথাটি সৌভাগ্য এবং দুর্ভাগ্য-দুটি অর্থেই ব্যবহৃত হয়। কিন্তু গণফোরামের মোকাব্বির খান সৌভাগ্য নিয়েই নির্বাচনের আগে এই বঙ্গ দেশে এসেছিলেন। প্রবাস থেকে দেশে এসে বিএনপি নেতা এম. ইলিয়াস আলীর জনপ্রিয়তাকে পুঁজি করে শখের বসে হয়ে যান এমপি। তাকে কেউ না দেখলে না চিনলেও সূর্যপ্রতিক ভোট দিলে বিএনপির নিখোজ নেতা এম ইলিয়াস আলীকে ফিরিয়ে পাওয়া যাবে ইলিয়াস পরিবারের এমন প্রচারণায় ভোটে জোয়ার সৃষ্ঠি হয়ে যায়।

কিন্তু নির্বাচিত হওয়ার পরপরই তিনি ভূলে যান ইলিয়াস পরিবারকে। ইলিয়াসপতœী তাহসিনা রুশদির লুনা ও বিশ্বনাথ সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান এবং বিএনপি নেতা সুহেল আহমদের দলীয় দ্বন্ধে তিনি পক্ষ নেন চেয়ারম্যান গ্রুপে। তাকে নিয়েই বেশ কিছু অনুষ্ঠানও করেন। এছাড়া অনেক জায়গায় জনগনকে বলেছেন, আমি এমপি নয়, আপনাদের এমপি সুহেল আহমদ চেয়ারম্যান। কিন্তু সেই সখ্যতাও টিকেনি বেশী দিন। এছাড়া গণফোরামের উপজেলা কমিটি থাকলেও তাদের সাথে এমপির বর্তমান সম্পর্ক বিচ্ছিন্ন। ইদানিং উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির সাথে সখ্যতা গড়ে উঠে এমপি মোকাব্বির খানের। এই মোকাব্বির ইস্যুতেই ফের ফাটল ধরে দীর্ঘদিন পর এক হওয়া উপজেলা আওয়ামী লীগে। গত ২৬ জুলাই উপজেলা প্রসাশনের বঙ্গবন্ধুর শতবার্ষিকী উপলক্ষে গাছের চারা বিতরণ অনুষ্ঠানে উপজেলা চেয়ারম্যান এসএম নুনু মিয়াকে বাদ দিয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পংকি খানের নেতৃত্বে অনুষ্ঠান হয় এমপি মোকাব্বিরকে নিয়ে। এই অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে প্রকাশ পায় উপজেলা চেয়ারম্যান নুনু মিয়া ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পংকি খানের মধ্যকার অভ্যন্তরিন বিরোধের। এরপর থেকে আধিপত্য বিস্তারে দুই গ্রুপ নানা কৌশলী কার্যক্রম চালান। আর এই দ্বন্ধের বলির পাঠা হয়ে যান এমপি মোকাব্বির। গত সোমবার (১০আগষ্ঠ) বিশ্বনাথ উপজেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভায় এসে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মিদের কাছেই লাঞ্চিত হন এমপি।

এ বিষয়ে বিশ্বনাথ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব পংকি খান শুভ প্রতিদিনকে বলেন, বিশ্বনাথ উপজেলায় আওয়ামী লীগের মধ্যে কোন দ্বন্ধ নেই, গ্রুপ নেই উপজেলা আওয়ামী লীগ এখন সুসংগঠিত। আমরা সভাপতি সাধারণ সম্পাদকসহ সবাই এক সাথে আছি এখানে কেউ বিরোধ সৃষ্টি করে গ্রুপ করারও কোন সুযোগ নেই।

এ প্রসঙ্গে উপজেলা চেয়ারম্যান এসএম নুনু মিয়া বলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের কিছু নেতা এমপিকে নিয়ে নতুন রাজনীতি শুরু করেছেন। আওয়ামী লীগ গণমানুষের সংগঠন। তাই আওয়ামী লীগের নীতি আদর্শে সবসময় অটল রেখে শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে চাই। এমপিকে লাঞ্চিত করার ঘটনা দু:খজনক। কে হামলা করেছে তাকে আগে চিহ্নিত করা প্রয়োজন। কেউ আন্দাজে নাম বললেতো হবে না। এখানে থানা ও উপজেলার একাদিক সিসি ক্যামেরা আছে। তদন্ত স্বাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য পুলিশ প্রশাসনকে তিনি আহবান জানান।

এ ব্যাপারে সিলেট-২ আসনের সংসদ সদস্য ও গণফোরামের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোকাব্বির খান শুভ প্রতিদিনকে বলেন, আওয়ামী লীগের সাথে সখ্যতা গড়ার কোন অবকাশ নেই। আমি সবার এমপি, সকলকে নিয়ে বিশ্বনাথের উন্নয়ন করতে চাই। তিনি বলেন, বিশ্বনাথ আওয়ামী লীগের বিরোধের কারনে আমার উপর এ হামলা হয়নি। এটা একটা পরিকল্পিত হামলা। আশা করি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দ্রুত এর একটা ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। দেড় বছর পর আইনশৃঙ্খলা কমিটি যোগদান নিয়ে তিনি বলেন, আমি প্রথমেই উপজেলার প্রশাসনের সাথে মতবিনিময় সভা করেছি। আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় যাইনি বলে যে কোন দিনও যাব না তা তো হতে পারে না। আমি নির্বাচিত হওয়ার ৪মাস পরে শপথ গ্রহণ করেছি। গত ছয় মাস শারিরিক অসুস্থতায় ছিলাম। এই কম সময়েও উপজেলায় আমার মাধ্যমে অনেক উন্নয়ন হয়েছে।


সমস্ত পুরানো খবর




themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin