বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০২:০৫ পূর্বাহ্ন


ওসমানী বিমান বন্দরে গণশুনানি সমস্যা অনেক, সমাধানের ইঙ্গিত

ওসমানী বিমান বন্দরে গণশুনানি সমস্যা অনেক, সমাধানের ইঙ্গিত


শেয়ার বোতাম এখানে

স্টাফ রিপোর্ট;

বুধবার সকালে সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরের সম্মেলন কক্ষে ব্যবস্থাপক মো. হাফিজ আহমদের সভাপতিত্বে সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধি, সাংবাদিক এবং যাত্রীর উপস্থিতিতে গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়। এতে বেশ কয়টি সমস্যার কথা তুলে ধরা হয়।

তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য, বিমানে বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের আন্তর্জাতিক ফ্লাইটে অতিরিক্ত ওজনের জন্য যুক্তরাজ্য থেকে কোন যাত্রী কেজিপ্রতি গুনতে হয় ১০ পাউন্ড অর্থাৎ বাংলাদেশী টাকায় প্রায় ১১৩৬ টাকা। সেই ক্ষেত্রে দেশ থেকে যুক্তরাজ্য যেতে কেজিপ্রতি দিতে হয় ২৬৩০ টাকা। সিলেট বিমান অফিসে কোন যাত্রী টিকেটের পরিবর্তন, বাতিল অথবা এ সংক্রান্ত কোন সমস্যা নিয়ে প্রবেশের ক্ষেত্রে গেইটে বাধার সম্মুখীন হতে হয়। উপস্থিত সাংবাদিক এর মাধ্যমে একজন মহিলা যাত্রীর অভিযোগ, তিনি অসুস্থ শরীর নিয়ে ৩ দিন এসে ঘুরে গেছেন, ভেতরে প্রবেশ করতে ব্যর্থ হয়েছেন। এরপরও সকালে বিমান অফিসে গেলে কাজ শেষ করে ফিরতে হয় সন্ধ্যায়।

মজুমদারী বিমান অফিস এ আন্তর্জাতিক ফ্লাইটের টিকেট কিনতে গেলে কাউন্টারে দেখা যায় সিট খালি নেই অথচ একলক্ষ টাকার সেই টিকেট কিছু অসাধু সিন্ডিকেট ট্রেভেলস ব্যবসায়ীর কাছে সহজেই পাওয়া যায়, দিতে হয় ১ লক্ষ ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা।

শুনানিতে জানানো হয়, সিলেট ওসমানী বিমান বন্দরের ভেতরে আভ্যন্তরিন ফ্লাইটের যাত্রীদের জন্য কোন স্ন্যাকসবারের এর ব্যবস্থা নেই; এছাড়াও ফ্লাইটে পানীয় ছাড়া কোন ধরনের স্ন্যাকস পরিবেশন করা হয় না। এছাড়া বিদেশ থেকে সিলেট এসে বিমানের যে সকল ফ্লাইট ঢাকা যায়। সেই সব ফ্লাইটের সিলেট-ঢাকা টিকেটের মূল্য যাতে কম রাখা হয়। অধিক মূল্য নেয়ায় অনেক সিট খালি থাকে। এটি বিমানের লোকসানের একটি বড় খাত।

শুনানিতে এয়ারপোর্টের বোর্ডিং কার্ড সংগ্রহের লাইনে বা চেকিং কাউন্টার লাইনে একজন লাইন্ সুপারভাইজার থাকার দাবি জানানো হয়। পাশাপাশি সিভিল এভিয়েশন কর্তৃপক্ষের কাছে সিলেট ওসমানী বিমান বন্দরে বিদেশী ফ্লাইট নামার ব্যবস্থা করার জন্য অনুরোধ জানানো হয়। তাতে সিলেটের পর্যটন শিল্পও প্রসারিত হবে এবং প্রতিযোগিতার কারনে যাত্রী সাধারণও লাভবান হবে বলে উল্লেক করা হয়। বলা হয়, অসুস্থ বা পুঙ্গু যাত্রীদের জন্য বিমান বন্দরে হুইল চেয়ার ঠিকই আছে কিন্তু বিমানের হুইল চেয়ারের এটেন্ডেন্স নাই বললেই চলে।

বাস্তবে বিমানের যাত্রী সাধারণ বিভিন্ন সময়ে সংবাদ সম্মেলনে অথবা সশরীরে অভিযোগ নিয়ে সাংবাদিকদের দারস্ত হন সেক্ষেত্রে উপরে উল্লেখিত অভিযোগ গুলো যাত্রীদের পক্ষে তুলে ধরেন দৈনিক পুন্যভূমি পত্রিকার সম্পাদক আবু তালেব মুরাদ; দৈনিক শুভ প্রতিদিনের নির্বাহী সম্পাদক ফয়সল আহমদ মুন্না, যাত্রীদের মধ্যে সাব্বির আহমদ চৌধুরী সহ কয়েক জন যাত্রী।

ওসমানী বিমান বন্দরে সদ্য যোগদানকারী বিমানের স্টেশন ম্যানেজার মো. আব্দুস সাত্তার বলেন সমস্যা সমন্ধে আমি অবগত হলাম, এয়ারপোর্ট ম্যানেজারের সাথে পরামর্শ করে দ্রুত যাতে সব সমস্যার সমাধান হয় সেক্ষেত্রে কাজ করে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি ব্যাক্ত করেন। তিনি আরও বলেন গত আড়াই বছর বিমানে নতুন কোন নিয়োগ না থাকার কারনে জনবল সমস্যা বেড়েছে। ইদানিং প্রচুর জনবল নিয়োগ দেয়া হচ্ছে। মো. আব্দুস সাত্তার বলেন সব সমস্যা নিয়ে তিনি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলাপ করে সমাধানের পথ খুঁজে বের করবেন।

গণশুনানির সভাপতি সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরের ব্যবস্থাপক মো. হাফিজ আহমদ গুরুত্বপূর্ণ সব সমস্যাগুলো সমাধানের জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে কাজ করার আহবান জানান। পাশাপাশি সমস্যা সমাধানকল্পে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের শরনাপন্ন হওয়ার আশাবাদ ব্যাক্ত করেন। হাফিজ আহমদ বলেন আভ্যন্তরীণ যাত্রীদের বিমান বন্দরের ভেতরে স্ন্যাকসবার এর সমাধান অচীরাই হবে। তিনি বলেন গণশুনানির মুখ্য উদ্দেশ্যই হচ্ছে গণমাধ্যম কর্মী এবং যাত্রীদের কাছ থেকে সরাসরি জানা এবং তা সম্মিলিতভাবে সমাধানের রাস্তা খুঁজে বের করা।

অনুষ্ঠানে সিভিল এভিয়েশন, বিমান, কাস্টমস, ইমিগ্রেশনসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin