মঙ্গলবার, ১৬ Jul ২০২৪, ০৬:৫৯ অপরাহ্ন


কমলগঞ্জে সাব রেজিস্ট্রারের বিরুদ্ধে ঘুষ বানিজ্য প্রতিবাদে দলিল লেখকদের কর্মবিরতি

কমলগঞ্জে সাব রেজিস্ট্রারের বিরুদ্ধে ঘুষ বানিজ্য প্রতিবাদে দলিল লেখকদের কর্মবিরতি


শেয়ার বোতাম এখানে

কমলগঞ্জ প্রতিনিধি:

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার সাব রেজিস্ট্রার রহমত উল্লা লতিফের বিরুদ্ধে দলিল প্রতি বিভিন্ন অজুহাতে ঘুষ বানিজ্য ও লিখকদের সাথে অসদাচরণ করার অভিযোগ উঠেছে। দলিল লিখক ঘুষের টাকা না দেয়ায় এজলাস চেয়ার ও দরজায় লাথি মেরে এক দলিল লিখকের সাথে খারাপ আচরনের প্রতিবাদে তাৎক্ষনিক প্রতিবাদ জানান অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতির ঘোষনা দিয়েছে কমলগঞ্জ দলিল লেখক সমিতি। সোমবার ১১এপ্রিল বিকাল ৩টা থেকে কর্মবিরতি ঘোষণা করে দলিল লেখা বন্ধ রেখেছে উপজেলার দলিল লেখকরা। এতে ভোগান্তিতে পড়েছে সাধারণ মানুষ।

কমলগঞ্জ দলিল লেখক সমিতির সভাপতি মো.বখতিয়ার খাঁন সাংবাদিকদের জানান, সাবরেজিষ্ট্রার যোগদানের পর থেকেই নানা কায়দায় আমাদের কাছ থেকে উৎকোচ আদায় করেন। দলিল রেজিস্ট্রি করাতে গেলে দলিল প্রতি অতিরিক্ত টাকা দাবি করে সাব রেজিস্ট্রার রহমত উল্লা লতিফ। এমনকি জাতীয় পরিচয়পত্র আরএস ফর্সার সাথে নামের একটা অক্ষর ভুল থাকলেও তাকে অতিরিক্ত টাকা দিতে হয়। নাহলে তিনি দলিল করে না। প্রতিটি দলিল দাখিল করার আগে তার সাথে কন্টাক্ট করা লাগে না করলে দলিল হয়না।

অফিসের লোকজনের মাধ্যমে আগেই টাকা নিয়ে যান এবং কি তার ব্যবহারও সম্মানজনক নয়,দলিল দাতার জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি দিলে তিনি গ্রহন করেন না । সোমবার একটি দলিল করতে গেলে টাকা দেয়ার দাবী করলে আমি প্রতিবাদ করি। তখন এজলাস থেকে আমার দিকে তেড়ে এসে দরজায় লাথি মারেন। তখন আমার সাথে কথাকাটাকাটি করলে অন্য দলিল লেখকরা এগিয়ে এলে তিনি হুমকি দিয়ে বলেন ভার্সিটির গন্ধ নাকি এখনো যায়নি। আমরা তাকে অপসারণ না করা পর্যন্ত কর্মবিরতি চালিয়ে যাব।

দলিল করতে আসা শমসেরনগর বাজারের মো.মনির হোসেন জানান, জাতীয় পরিচয়পত্রে আফরোজ আলী ও আরএস ফর্সায় আফরোজ মিয়া থাকায় প্রত্যায়নপত্র প্রদান করার পরও টাকা দাবী করেন সাব রেজিস্ট্রার।

উপজেলা সাব রেজিস্ট্রার রহমত উল্লা বলেন, তার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ উঠেছে তা মিথ্যা ও ভিত্তিহীন।
দলিল লেখক সমিতির সভাপতিকে লাঞ্চিতের বিষয়ে তিনি তা সঠিক নয় বলে জানান।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin