সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৫৫ পূর্বাহ্ন


করোনাভাইরাসের টিকা নিয়ে কেমন আছেন সিলেটের রাফি?

করোনাভাইরাসের টিকা নিয়ে কেমন আছেন সিলেটের রাফি?


শেয়ার বোতাম এখানে

শুভ প্রতিদিন ডেস্ক:

গত বছরের ডিসেম্বর মাসে আবুধাবি যান রাহাত আহমেদ রাফি (২৬)। সেখানে ভাইয়ের সঙ্গে মিলে ব্যবসা শুরু করেন। সেখানে যাওয়ার আগে বাংলাদেশে থাকার সময়ে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সঙ্গে জড়িত ছিলেন রাহাত আহমেদ রাফি। তার ধারাবাহিকতায় আবুধাবিতে গিয়েও রেডক্রিসেন্টের সঙ্গে যুক্ত হন। এরই মধ্যে করোনা পরিস্থিতে টিকা আবিষ্কারে কাজ করছে বিভিন্ন দেশ। চীনের তৈরীর টিকার পরিক্ষা চলছে আবুধাবিতে।

চীনা কোম্পানি সিনোফার্মের সঙ্গে যৌথভাবে আবুধাবির স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এই পরীক্ষা শুরু করেছে। সংযুক্ত আরব আমিরাতের আবুধাবিতে সেই টিকা উদ্ভাবনে পরীক্ষায় অংশ নিয়েছেন বাংলাদেশি তরুণ রাহাত আহমেদ রাফি। তিনি সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার লক্ষিপ্রসাদ পশ্চিম ইউনিয়নে ব্যবসায়ী আব্দুল মতিনের ছেলে। তিনি আবুধাবিতে ব্যবসা করছেন। ৬ বোন ২ ভাইয়ের মধ্যে তৃতীয় তিনি। প্রবাসে থেকেও মানব সেবায় এগিয়ে এসেছেন।

অংশ নিয়েছেন করোনা ভাইরাসের টিকা উদ্ভাধনের পরীক্ষায়। নিজের অভিজ্ঞতা এবং এই টিকায় অংশ নেওয়ার অভিজ্ঞতা জানিয়েছেন।

তিনি জানান, প্রথমে যখন জানতে পারি যে করোনাভাইরাসের টিকার জন্য স্বেচ্ছাসেবী চাওয়া হচ্ছে, তখন আমিও ইচ্ছুক হলাম, করোনার এই সময়ে মানব সেবায় অংশ নেওার সুযোগ পেয়ে সাথে সাথে ইন্টারনেটে নাম তালিকাভুক্ত করি। এরপর কয়েকদিন পরেই আমার সাথে আবুধাবির স্বাস্থ্য অধিদপ্তর যোগাযোগ করে আমার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে। এর পর করোনাভাইরাস পরীক্ষা করা হয়।

আমি শারিরিক ভাবে করোনা ভাইরাসের টিকা পরীক্ষার জন্য ফিট হওয়ার পর গত মাসের ২৪ জুলাই আমার শরিরে টিকার প্রথম ডোজ দেওয়া হয় এবং ২১দিন পরে ১৫ আগষ্ট সকালে আবার দ্বিতীয় ডোজ দেয়। আমার জানা মতে প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে আমি এই টিকার পরীক্ষায় অংশ নিয়েছি।

তিনি জানান, প্রথম থেকেই আমার কোন ভয় লাগেনি। প্রথম প্রথম একটু মাথা ঘুরানো ছাড়া আমার আর কোন সমস্যা হয়নি। বর্তমানে আমি সুস্থ আছি তবে এই পত্রিক্রিয়া কোন কিছু হলেও আমার আফসোস নেই। আজ হোক কাল হোক এমনিতেই মারা যেতে হবে। কিন্তু যদি মানুষের জন্য এবং এই কঠিন পরিস্থিতে কোটি কোটি মানুষের নিরাপত্তার জন্য যদি আমার সামান্যতম অবদান থাকে সেটাই আমার কাছে জীবনের সার্থকতা।

টিকা দেওয়ার পর থেকেই সময়ে সময়ে আমার সঙ্গে তারা যোগাযোগ করছে। জেনেছি আগামী এক বছর এভাবেই খবর রাখবে। নিয়মিত নির্দিষ্ট জায়গায় গিয়ে তিনদিন পরপর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাতে হচ্ছে।

রাফি স্থানীয় সংবাদপত্রের বরাত দিয়ে জানান, আবুধাবি এবং আল আইন শহরে পরীক্ষায় অংশ নিতে সাত হাজারের বেশি স্বেচ্ছাসেবী নাম তালিকাভুক্ত করেন। সবমিলিয়ে ১৫ হাজার মানুষের ওপর পরীক্ষা চালানো হচ্ছে। দেশটিতে প্রথম টিকা নিয়েছেন দেশটির স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রধান। আমার জানামতে আমিই একমাত্র বাংলাদেশি।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin