বুধবার, ১২ মে ২০২১, ০১:৫১ পূর্বাহ্ন

করোনাভাইরাস : অনাহারে দিন কাটছে মানসিক প্রতিবন্ধীদের

করোনাভাইরাস : অনাহারে দিন কাটছে মানসিক প্রতিবন্ধীদের


শেয়ার বোতাম এখানে

ছায়াদ হোসেন সবুজ, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ  :
আমরা সবাই মানুষ। প্রত্যেকের আবার আলাদা আলাদা পরিচয় আছে। আছে নামও। কিন্তু তাদের একটাই পরিচয়। একটাই নাম। পাগল। আমরা অনেকেই তাদের বৈশিষ্টের সাথে মিল রেখে একেকটা নাম দিয়ে থাকি। তাদের আলাদা কোনো পরিচয় নেই, ব্যক্তিত্ব নেই। নির্দিষ্ট কোনো থাকার স্থান নেই।

লকডাউন হওয়ার জায়গা নেই। কোয়ারেন্টাইন মানার কোনো বালাই নেই। তারা রাস্তা কিংবা বিভিন্ন বাজারে ছিলেন এবং এমন উদ্ভুত পরিস্থিতিতে রাস্তাতেই আছেন। হয়তো করোনা জয়ের পরে তারা রাস্তাতেই পড়ে থাকবেন। আবার কেউ কেউ হয়তো করোনায় কিংবা পেটের ক্ষুধায় চলেও যেতে পারেন না ফেরার দেশে।

বলছিলাম দক্ষিণ সুনামগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় পাগলদের বুভুক্ষু থাকার কথা। করোনাভাইরাসের কারণে বন্ধ হয়ে আছে উপজেলার বিভিন্ন বাজারের রেস্টুরেন্ট, চায়ের স্টলসহ অন্যান্য খাবারের দোকান। রাত কিংবা দিনের কোনো বেলাতেই খুলছে না এসব দোকান।

মূলত খাবারের দোকানগুলোই ছিলো ছিন্নমূল পাগলদের পেট পুরে খাওয়ার একমাত্র ভরসা। এসব দোকান বন্ধ হওয়াতে অনাহারে দিন কাটাচ্ছেন এসব মস্তিষ্ক বিকৃত পাগল নামধারী মানুষেরা। মানবিক দৃষ্টিতে দেখলে, একেবারে অনাহারেই আছেন তারা। পেটের ক্ষধায় কাতরাচ্ছেন কেউ কেউ। নিস্তেজ হয়ে পড়ে আছেন যাত্রী ছাউনি, বন্ধ দোকানের দরোজার সামনে অথবা কুকুরের একপাশে শুয়ে আছেন রেস্টুরেন্টের বারান্দায় একমুঠো খাবারের আশায়। এদের নিয়ে একটু হলেও ভাববার দরকার আমাদের সকলের।

সমাজের দরিদ্র, অতিদরিদ্র, নিম্ন-মধ্যভিত্তদের নিয়ে ভাববার মতো মানুষ অনেকই আছেন। তবে সমাজে বিচ্ছিন্নভাবে বসবাস করা পাগলদের নিয়ে তেমনভাবে ভাবছেন না কেউ-ই। এদেরও যে জীবন আছে সেই ভাবনাটা একবার মানবিকভাবে ভাবলে কিছু সময়ের জন্য হলেও মন খারাপ হবে যে কারো।

সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার পাগলা বাজারে ৫-৭জন ছিন্নমূল পাগল বসবাস করেন। তাদের নির্দিষ্টভাবে থাকার কোনো জায়গা নেই। যে যেখানে পারেন সেখানেই শুয়ে পড়েন রাত হলে। অধিকাংশেরই খাবার জোটে না। দোকানপাট বন্ধ না হলে ব্যবসায়ীরা তাদের মুখে খাবার তুলে দেন বিনামূল্যে।

এখন দোকান বন্ধ হওয়ায় সে আহার আর তাদের জোটে না। এমন অবস্থা যে শুধু পাগলা বাজারের পাগলদের তা কিন্তু নয়। উপজেলার ৮টি ইউনিয়নের প্রতিটি বাজারেই দু’চারজন করে পাগল বসবাস করছেন। বিভিন্ন মাধ্যমে জানা যায়, পাগলা বাজার ছাড়াও উপজেলার পাথারিয়া বাজার, নোয়াখালি বাজার, শান্তিগঞ্জ বাজার, চিকারকান্দি বাজার, আক্তাপাড়া (মিনাবাজার) ও বীরগাঁও বাজারে একাধিক পাগল থাকছেন। তাদের প্রত্যেকের অবস্থা প্রায় একই রকম।

কেউ কেউ মানবিকখাতিরে হয়তো নিয়ম করে বাড়িতে ডেকে নিয়ে একদুজন পাগলকে দু’বেলা খাওয়াচ্ছেন। আবার কেউ কেউ হয়তো এসব নিয়ে ভাবছেন-ই না। যদি আমরা এক দু‘জনের কথা বাদ দেই তাহলেও তো আরো অনেকজনই বাকী থাকছেন।

এসব মস্তিষ্ক বিকৃত পাগল নামধারী মানুষের সেবায় এগিয়ে এসে মানবিকতার পরিচয় দিতে সংশ্লিষ্টদের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন উপজেলার বিভিন্ন এলাকার সাধারণ মানুষেরা। আবার অনেকে বলছেন, আমরাই যদি দায়ীত্ব নিয়ে নেই তাহলে হয়তো একজন পাগলও অনাহারে থাকবে না।

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি কাজি জমিরুল ইসলাম মমতাজ বলেন, ‘আমরা অনেক সময় অনেক খাবার অপচয় করি। যদি এসব খাবার অপচয় না করে একজায়গায় জমিয়ে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে তাদের (পাগলদের) দিয়ে আসি তাহলেও কোনো পাগল না খেয়ে থাকবে না। বিষয়টি মানবিকভাবে সকলের দেখা উচিত।



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin