সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১:২১ অপরাহ্ন



করোনার প্রভাবে সিলেটে অভুক্ত দুই শতাধিক বানর: এগিয়ে এলেন পরিবেশবাদীরা

করোনার প্রভাবে সিলেটে অভুক্ত দুই শতাধিক বানর: এগিয়ে এলেন পরিবেশবাদীরা


স্টাফ রিপোর্ট :
মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে সিলেট নগরের গোয়াইটুলা এলাকার হজরত চাষনী পীর (র.)-এর মাজারে থাকা দুই শতাধিক অভুক্ত বানরকে কলা ও বনরুটি খাওয়ালেন পরিবেশবাদীরা।

মানুষের মমতায় অভুক্ত বানরগুলো কলা,বনরুটি আর টমেটো পেয়ে পেটপুরে খেয়েদেয়ে মানুষের সাথ খুনসুটিতে মেতে উঠে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে কলা বনরুটি নিয়ে চাষনীপীরের টিলায় যান বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন-বাপা সিলেটের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল করিম কিম, ভূমিসন্তান বাংলাদেশের সমন্বয়ক আশরাফুল কবির ও
বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন-বাপা সিলেটের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ছামির মাহমুদ।

এসময় পরিবেশকর্মীদের সাথে সিলেট সিটি করপোরেশনের স্থানীয় কাউন্সিলর রেজওয়ান আহমদও বানরগুলোকে কলা খাওয়ান।

স্থানীয়রা জানান, হজরত চাষনী পীর (র.)-এর মাজারে টিলার উপরে গাছগাছালিতে দুইশতাধিক বানরের বাস। এমনিতে স্বাভাবিক সময়ে এ মাজারে প্রতিদিন দর্শনার্থী-পর্যটকদের ভিড় লেগে থাকে।

এখানে ভক্তরা আসেন মাজার দর্শনে, বানর দেখতেও আসেন অনেক পর্যটক। কলা-বিস্কিট-বনসহ বানরদের জন্য নানান খাবার নিয়ে আসেন দর্শনার্থীরা। এরফলে বানরের খাবারের কোনো অভাব হতোনা।

কিন্তু হঠাৎ করে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সারাদেশে গণপরিবহন বন্ধ ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতে সরকার উদ্যোগ নিলে এ বানরগুলো খাদ্য সংকটে পড়ে। প্রায় এক সপ্তাহ ধরে অনেকটা অভুক্ত অবস্থায় ছিলো এখানকার বানরগুলো।

এক জীবাণুর সংক্রমণ ঠেকানোর উদ্যোগে বিপাকে পড়ে এখানকার অসংখ্য জীব। বিপাকে পড়েছে মানুষও। বিশেষত নিম্নবিত্ত-দিনমজুর মানুষেরা। তাদের পাশে তবু দাঁড়িয়েছেন সামর্থ্যবানেরা।

সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে সারাদেশেই অসহায় মানুষদের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হচ্ছে। ব্যক্তি উদ্যোগেও সহায়তা করছেন অনেকে। কিন্তু এই বানরগুলোর ভাগ্যে জুটেনি কিছুই।

তবে বৃহস্পতিবার এগিয়ে এসেছেন কিছু পরিবেশ কর্মী, স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ কয়েকজন সহৃদয় ব্যক্তি। চাষনী পীরের মাজারের বানরদের খাবার বিতরণ করেন তারা।

প্রাণিপ্রেমি বিভিন্ন মানুষের অর্থ সহায়তায় এই বানরদের একমাসের খাবারের ব্যবস্থা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সিলেট সিটি করপোরেশনের স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর রেজওয়ান আহমদ।

জানা যায়, চাষনী টিলার পাশেই দলদলি চা-বাগান। এই বাগানেই ছিলো বানরগুলোর আদি নিবাস। আশির দশকে চা-বাগানের একাংশের বন কেটে গড়ে ওঠে আবাসন। ১৯৮৪ সালের শুরুর দিকে সেখানকার বানরগুলো এসে মাজার এলাকায় বসত গড়ে।

সেই থেকে ওরা এখানেই আছে। তবে গত কয়েকবছর ধরে এই টিলার আশপাশের বন ও টিলা ধংস করে গড়ে ওঠেছে আবাসন। ফলে আবার সঙ্কটে পড়ে বানরগুলো। তবে গত এক সপ্তাহের মতো সঙ্কটজনক অবস্থা আগে কখনো তৈরি হয়নি বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

বাপা সিলেটের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল করিম কিম বলেন, এই টিলা তো বানরেরই আবাসস্থল ছিলো। মানুষজন ওইদিকে গিয়ে বানরের আবাস ও খাদ্যসংগ্রহের গাছগুলো ধ্বংস করেছে। ফলে এরা খাবার ও আবাস সঙ্কটে পড়েছে। এখন পর্যটকদের দেওয়া খাবারই এদের একমাত্র ভরসা ছিলো।

এখন পর্যটক না থাকায় এরা চরম বিপাকে পড়েছে। প্রায় অভূক্ত অবস্থায় আছে।তিনি বলেন, আজকে আমরা এই বানরদের কলা ও বনরুটি প্রদান করেছি। সকল মানুষকেই নিজেদের আশপাশের প্রাণিদের সহায়তায় এগিয়ে আসা উচিত। কারণ এই সময়ে প্রাণিগুলোও সঙ্কটে রয়েছে।


সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin