বৃহস্পতিবার, ০৫ অগাস্ট ২০২১, ১১:০০ পূর্বাহ্ন


করোনার বিস্তার রোধ ও সিলেট স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিতে সিলেট বিভাগ গণদাবী ফোরাম’র ১৭ দফা দাবি

করোনার বিস্তার রোধ ও সিলেট স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিতে সিলেট বিভাগ গণদাবী ফোরাম’র ১৭ দফা দাবি


শেয়ার বোতাম এখানে

                         আবু তালেব মুরাদ 
সমগ্র বিশ্বব্যাপী প্রাণঘাতী মহামারী হিসাবে আবির্ভূত মরণব্যাধী করোনা ভাইরাস বাংলাদেশে আগমন ও আক্রমণের প্রায় চার মাস অতিবাহিত হলেও এ নিয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় স্বাস্থ্য বিভাগের উদাসীন আচরণ ও প্রশাসনের সমন্বয়হীনতার কারণে মরণব্যাধী করোনা ভাইরাসের আক্রমণে সিলেট বিভাগের অধিবাসীগণের জীবন সংকটাপন্ন।

২০১৯ইং সনের নভেম্বর মাসে করোনা ভাইরাসের আক্রমণ ও ক্ষতি সম্পর্কে জাতি সংঘের অধিনস্থ্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা হুশিয়ারি প্রদানের পর থেকে সিলেট বিভাগ গণদাবী ফোরাম তার আক্রমণ থেকে সিলেট বাসীকে রক্ষার স্বার্থে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বার বার আবেদন নিবেদন ও দাবী দাওয়া প্রদান স্বত্বেও স্বাস্থ্য বিভাগের সীমাহিন উদাসীনতা ও প্রশাসনের সমন্বয়হীনতার কারণে মরণব্যাধী করোনা ভাইরাসের আক্রমণে সিলেট বাসী অনিশ্চিত ভবিষ্যত ও নির্ঘাত মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।

চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মী ও চিকিৎসা ব্যবস্থার অপ্রতুলতা স্বত্বেও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নিয়মানুযায়ী যেমন লক ডাউন না করে সরকার সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে ঢিলে ঢালা ভাবে নামে মাত্র লকডাউন এর কারণে একদিকে যেমন কর্মহীনতা, সামাজিক অস্থিরতা ও জন দূর্ভোগ বৃদ্ধি পেয়েছে তেমনি করোনা ভাইরাসের আক্রমণে ইতিমধ্যে বহু মূল্যবান জীবন ঝড়ে পড়েছে।

সিলেট বিভাগ গণদাবী ফোরামের ন্যায় সিলেটের বিভিন্ন সামাজিক ও পেশাজীবি সংগঠন সচেতন নাগরিক বৃন্দ বার বার আবেদন নিবেদন স্বত্বেও সিলেট বাসীর স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও চিকিৎসার জন্য যেমন আশানুরূপ বা কার্য্যকর কোন উদ্যোগ গ্রহণ না করায় একদিকে যেমন করোনা ভাইরাসের আক্রমণ ক্রমাগত হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে অন্যদিকে এর অশুভ প্রভাবে জন জীবনে সৃষ্ট অচল অবস্থা ও অনিশ্চয়তার কারণে সমগ্র সিলেট বাসীর জীবন বিপন্ন হওয়ার উপক্রম জানালেন সিলেট বিভাগ গনদাবী ফোরামের সভাপতি এডভোকেট চৌধুরী আতাউর রহমান আজাদ।

এহেন অবস্থায় বিগত ঈদ-উল-ফিতরের পূর্বে ও পরে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তহীনতা ও ঢিলে-ঢালা লকডাউনের কারণে করোনা ভাইরাসের দ্রুত বিস্তার ঘটেছে। ইতিমধ্যে ঈদ-উল-আযহা অতি নিকটবর্তী হওয়ায় এবং ঈদ-উল-আযহাকে কেন্দ্র করে নুতনভাবে হাট বাজার বসানোর কার্য্যক্রম পরিলক্ষিত হওয়ায় এ ভাইরাসের আক্রমণ ও জন জীবন আর বিপন্ন হওয়ার আশঙ্কা সৃষ্টি হয়েছে।

এছাড়াও সিলেট অঞ্চলে গরু-ছাগল সহ সকল পশু পাখির মধ্যে নানা রোগের আক্রমণ জনস্বাস্থ্যের জন্য চরম হুমকির কারণ হয়ে দাড়িয়েছে এবং আকর্ষিক ভাবে সৃষ্ট বন্যায় সিলেট বাসীর জন্য নুতন দূর্ভোগ হয়ে দাড়িয়েছে। এহেন অবস্থায় সিলেট বিভাগের অধিবাসীগণের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিতকল্পে জনস্বার্থে জরুরী ভিত্তিতে নিমোক্ত দাবী সমূহ বাস্তবায়নের যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, সিলেট বিভাগের মাননীয় মন্ত্রী মহোদয়গণ, মাননীয় সংসদ সদস্যবৃন্দ, জেলা ও বিভাগীয় প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ, জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ের স্বাস্থ্য বিষয়ক কর্মকর্তাবৃন্দ, আইন শৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্বে সকল আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তা ও উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছি।

দাবী সমূহ নিম্নরূপ:-

১। মরণব্যাধী করোনা ভাইরাসের বিস্তার প্রতিরোধকল্পে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ঘোষিত নিয়মানুযায়ী কমপক্ষে ত্রিশ দিনের জন্য অবিলম্বে সমগ্র সিলেট বিভাগে কারফিউ জারী করে সিলেট বিভাগের অধিবাসীগণের স্বাস্থ্য সুরক্ষা, জীবনের নিরাপত্তা ও সরকার ঘোষিত লকডাউন ও হোম কোয়ারেন্টাইন যথাযথ ভাবে পালন ও কার্য্যকর সুনিশ্চিত ব্যবস্থা গ্রহণ করার দাবী জানাচ্ছি।

২। প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের বিস্তার প্রতিরোধ ও আক্রান্তদের সু-চিকিৎসা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে দ্রুত পরীক্ষা নিশ্চিতকল্পে সিলেট বিভাগের প্রতিটি উপজেলা সদরে একটি করে করোনা ভাইরাস পরীক্ষার আলামত সংগ্রহের বুথ স্থাপন ও সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জ ও মৌলভীবাজার জেলা সদরে করোনা ভাইরাস টেস্ট ল্যাবরেটরারী স্থাপনের জোর দাবী জানাচ্ছি।

৩। ইতিমধ্যে করোনা ভাইরাস চিহ্নিতকরণের জন্য স্থাপিত পরীক্ষাগার বা টেস্ট ল্যাবরেটরারী সমূহের প্রয়োজনীয় জনবল কিট ও অনুসাঙ্গিক চিকিৎসা সামগ্রীর অভাবে পরীক্ষার আলামত সংগ্রহ ও ফলাফল প্রদানে সীমাহিন বিলম্ব নানারূপ অনিয়ম অব্যবস্থাপনায় একদিকে যেমন জন দূর্ভোগ চরম আকার ধারণ করিয়াছে অন্যদিকে টেস্ট ল্যাবরেটরারী থেকে করোনা ভাইরাসের দ্রুত বিস্তার ঘটিতেছে। এহেন অবস্থা নিরসনে সিলেট বাসীর করোনা ভাইরাস চিকিৎসা সেবা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ইতিমধ্যে স্থাপিত করোনা ভাইরাস পরীক্ষা কেন্দ্র বা টেস্ট ল্যাবরেটরারী সমূহের জনবল, টেস্টিং কিট ও অবকাঠামোগত সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি করে বিদ্যমান টেস্ট ল্যাবরেটরারী সমূহের কাজের পরিধি ও সক্ষমতা বৃদ্ধি ও সম্প্রসারণ করে নুন্যতম ২৪ ঘন্টার মধ্যে টেস্টিং রিজাল্ট বা পরীক্ষার ফলাফল প্রাপ্তি ও প্রদানের বিষয়টি সুনিশ্চিত করার যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জোর দাবী জানাচ্ছি।

৪। বিদ্যমান পরীক্ষাগার সমূহে পরীক্ষার পর ভি.আই.পি দেরকে নেগেটিভ-পজেটিভের সনদ প্রদান করা হইলেও সাধারণ জনগণকে নেগেটিভ রেজাল্টের কোন সনদ বা প্রত্যয়ন পত্র প্রদান না করায় ভুক্তভোগী জন-সাধারণ নানা ভাবে হয়রানী ও ক্ষতির সম্মুখিন হচ্ছে এহেন অবস্থা নিরসনে সকলকে টেস্টিংয়ের প্রত্যয়নপত্র প্রদানের ব্যবস্থা গ্রহণের জোর দাবী জানাচ্ছি।

৫। বর্তমানে সিলেট বিভাগের সর্বত্র তথা পল্লী এলাকায় করোনা ভাইরাসের বিস্তার ঘটিয়াছে এবং করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী আইসোলেশন সেন্টারে না থেকে হোম কোয়ারেন্টারাইনে থাকায় এমনকি হাটবাজারে ঘুরাঘুরি করায় আক্রান্ত ব্যক্তির পরিবার, বাড়ীর লোকসহ পাড়াপ্রতিবেশীর মধ্যে দ্রুত উহা ছড়িয়ে পড়ায় দিন দিন রোগীর সংখ্যা বাড়িতেছে এহেন অবস্থা নিরসনে জরুরী ভিত্তিতে সিলেট বিভাগে প্রতিটি ইউনিয়নের সুবিধা জনক স্থানে (বিদ্যমান স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসা) এক বা একাধিক আইসোলেশন সেন্টার স্থাপন করে আক্রান্তদেরকে গৃহের পরিবর্তে আইসোলেশন সেন্টারে রাখার যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জোর দাবী জানাচ্ছি।

৬। প্রাণঘাতী মরণব্যাধী করোনা ভাইরাসের বিস্তার প্রতিরোধ ও আক্রান্তদের চিকিৎসা নিশ্চিতকল্পে সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জ ও মৌলভীবাজার জেলা সদরে কমপক্ষে একশ শয্যার আই.সি.ইউ সুবিধা সম্বলিত করোনা ভাইরাস চিকিৎসা কেন্দ্র এবং বিভাগীয় শহর সিলেটে একশ শয্যার আই.সি.ইউ সুবিধা সম্বলিত কমপক্ষে আর পাঁচটি হাসপাতাল স্থাপন ও প্রতিষ্ঠার জোর দাবী জানাচ্ছি।

৭। প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের ক্রমাগত বিস্তাররোধ ও আক্রান্তদের চিকিৎসার দায়িত্বে নিয়োজিত ডাক্তার নার্স, টেকনিশিয়ান সহ সকল স্বাস্থ্যকর্মী, প্রশাসনিক কর্মকর্তা-কর্মচারী, সকল আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও জীবনের নিরাপত্তা নিশ্চিতকল্পে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নিয়মানুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানাচ্ছি।

৮। প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসে বিস্তার ও মহামারী রোধ জনসাধারণের স্বাস্থ্য সুরক্ষা, নিরাপত্তা ও সরকার ঘোষিত স্বাস্থ্য বিধি ও হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিতকল্পে সিলেট বিভাগের সকল মাজার, শহরতলী ও পল্লী এলাকার পাড়া মহল্লা গ্রামে ছোট বড় সকল হাট বাজারে প্রশাসন ও আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর নজরদারী ও তৎপরতা বৃদ্ধির দাবী জানাচ্ছি।

৯। প্রাণঘাতী মহামারী করোনা ভাইরাস সৃষ্ট সংকট নিরসনে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর ব্যস্ততার সুযোগে সিলেট বিভাগের শহর কিংবা গ্রামে সর্বত্ম আশঙ্কা জনক ভাবে চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই ও রাহাজানি এবং গুপ্ত হত্যা বৃদ্ধি পেয়ে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির চরম অবনতি পরিলক্ষিত হচ্ছে। এহেন অবস্থায় চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই ও গুপ্তহত্যা রোধকল্পে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর নজরদারী ও তৎপরতা বৃদ্ধির দাবী জানাচ্ছি।

১০। বিগত কয়েক দিনের প্রবল বর্ষনে সিলেট বিভাগের অধিকাংশ এলাকা পানির নিচে তালিয়ে যাওয়ায় জনজীবনে চরম বিপর্যয় নেমে আসছে। এহেন অবস্থা নিরসনে সিলেট বিভাগের বন্যা উপদ্রুত এলাকায় জরুরী ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ত্রাণ শিবির ও আশ্রয় কেন্দ্র স্থাপন করে বন্যার্তদেরকে রক্ষা, প্রয়োজনীয় ঔষুধ, জ্বালানী, পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট ও খাদ্য সামগ্রী সহ ত্রাণ সরবরাহের জোর দাবী জানাচ্ছি।

১১। বিশ্বব্যাপী মহামারীরূপে আবির্ভূত মরণব্যাধী করোনা ভাইরাসের প্রতিক্রিয়ায় সমগ্র দক্ষিণ এশিয়া তথা ভারত বাংলাদেশ ও মিয়ানমারে গরু, ছাগল ও ভেড়া সহ গৃহপালিত পশু পাখি নানারোগে আক্রান্ত হইয়াছে এবং সিলেট বিভাগের সর্বত্র এর বিস্তার ঘটিয়াছে। প্রতিনিয়ত গরু আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংবাদ গণমাধ্যমে প্রচারিত ও প্রকাশিত হচ্ছে। সিলেট বিভাগের থানা/উপজেলা পশু হাসাপাতাল সমূহে চিকিৎসক ও ঔষুধ সামগ্রী চরম সংকট তথা অধিকাংশ এলাকায় নাই বলিলে চলে। ভূক্তভোগী নিরীহ কৃষক ও খামারীদের পালিত পশু রক্ষার স্বার্থে অবিলম্বে সিলেট সকল থানা/উপজেলা/জেলা পশু হাসপাতালে চিকিৎসক নিয়োগ ও প্রয়োজনীয় ঔষুধ সরবরাহ করে কৃষকদের মধ্যে বিনামূল্যে উহা সরবরাহের যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জোর দাবী জানাচ্ছি।

১২। আসন্ন ঈদ-উল-আযহা উপলক্ষ্যে পার্শ্ববর্তী দেশ থেকে চুরাই পথে রোগাক্রান্ত পশু আমদানী চলিতেছে এবং করোনা ভাইরাস সৃষ্ট সংকট কালে পশু কিংবা মানুষের চিকিৎসার সু-ব্যবস্থা কিংবা স্বাস্থ্য বিধি পালনের যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ না করে কোরবানীর পশুর হাট বসানোর তৎপরতা পরিলক্ষিত হচ্ছে ইহাতে একদিকে যেমন করোনা ভাইরাসের বিস্তার ঘটবে অন্যদিকে রোগাক্রান্ত পশু কোরবানী দ্বারা জনস্বাস্থ্য বিপন্ন হয়ে নুতন সংকট সৃষ্টি করবে। এহেন অবস্থা নিরসনে পার্শ্ববর্তী দেশ থেকে বৈধ কিংবা অবৈধ পথে কোরবানীর পশু আমদানী প্রতিরোধের যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ, কোরবানীর হাটে কঠোর ভাবে স্বাস্থ্য বিধি পালন এবং কোরবানীর হাটে বিক্রির জন্য নিয়ে আসা সকল পশু রোগ মুক্তির বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার জন্য সকল কোরবানীর হাটে পশু পরীক্ষার যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জোর দাবী জানাচ্ছি।

১৩। আসন্ন ঈদ-উল-আযহার পূর্বে মরণব্যাধী করোনা ভাইরাস সৃষ্ট সংকটে কর্মহীন, ক্ষতিগ্রস্থ ও সুবিধা বঞ্চিতদের মধ্যে রিলিফ কার্ড প্রদান করে খাদ্য ও জীবন রক্ষাকারী ঔষুধ সহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি সরবরাহের জোর দাবী জানাচ্ছি।

১৪। প্রাণঘাতী করোনার চেয়ে সমগ্র দেশব্যাপী স্বাভাবিক রোগব্যাধীতে আক্রান্ত এবং প্রসূতি মা ও সন্তান বিনা চিকিৎসায় মৃত্যুর হার ক্রমাগত হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং এ ব্যাপারে প্রতিদিন প্রতি মুহুর্তে গণমাধ্যম ও স্যোশাল মিডিয়ায় বহু সংবাদ প্রচারিত হইলেও এ ব্যাপারে সরকারের আদেশ ও নির্দেশনার আশানুরূপ কার্য্যকারিতা পরিলক্ষিত হচ্ছে না। এহেন অবস্থায় করোনা ভাইরাস ব্যতিত স্বাভাবিক রোগ ব্যতিত আক্রান্তদের চিকিৎসা সেবা প্রাপ্তি নিশ্চিতকল্পে দেশের সকল সরকারী-বেসরকারী হাসপাতালের কার্য্যক্রম নিয়ন্ত্রণ ও তদারকি করে একটি মনিটরিং সেল বা কমিটি গঠন করে জনসাধারণের চিকিৎসা প্রাপ্তির বিষয়টি সুনিশ্চিত করার জোর দাবী জানাচ্ছি।

১৫। প্রাণঘাতী মহামারী করোনা ভাইরাস সৃষ্ট সংকট নিরসনে প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর ব্যস্ততার সুযোগে এবং আসন্ন ঈদ-উল-আযহাকে কেন্দ্র করে অসাধু ব্যবসায়ী চক্রের অপতৎপরতায় ক্রমাগত হারে দ্রব্যমূল্যের উর্দ্ধগতি বর্তমান কর্মহীন জনজীবনে মারাত্মক অসুবিধা সৃষ্টি করিয়াছে। একদিকে যেমন সিলেট বিভাগের সর্বত্র নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের উর্দ্ধগতি ও কৃত্রিম সংকট পরিলক্ষিত হচ্ছে অন্যদিকে ভেজাল ঔষুধ, ভেজাল স্বাস্থ্য সামগ্রী, ভেজাল খাদ্য সামগ্রী ও ভেজাল ফল মূলে বাজার সয়লাভ হওয়ায় জনগণের দূর্ভোগ বৃদ্ধি ও জনস্বাস্থ্য চরম হুমকির সম্মুখীন। এহেন অবস্থা নিরসনে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের কৃত্রিম সংকট দূর দ্রব্যমূল্যের উর্দ্ধগতি রোধকল্পে নিয়মিত বাজার মনিটরিং ও ভেজাল প্রতিরোধকল্পে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর ও মোবাইল কোর্টের কার্য্যক্রম বৃদ্ধি ও সম্প্রসারণের জোর দাবী জানাচ্ছি।

১৬। মরণব্যাধী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এ যাবৎকালে দেশে ও বিদেশে চিকিৎসাধীন সকলের সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করছি এবং নিহতদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে শোকসমতপ্ত পরিবার পরিজনদের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।

১৭। প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের বিস্তার রোধ, নিজের পরিবারে ও সমাজের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও নিরাপত্তার স্বার্থে নিজ নিজ বাসস্থানে অবস্থান করা, এ ব্যাপারে সরকারী আদেশ নির্দেশনা ও স্বাস্থ্যবিধি যথাযথ ভাবে মেনে চলা এবং নিজ অবস্থান থেকে প্রশাসন ও আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদেরকে সাধ্য মত সহযোগীতা করার জন্য সিলেট বিভাগের সকল অধিবাসীগণকে সবিনয় অনুরোধ জানাচ্ছি।

লেখক: আবু তালেব মুরাদ, সাংবাদিক 


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin