মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০১:৫৭ পূর্বাহ্ন


করোনায় সিলেটে চায়ের বাজারে ভাটা : নিলামে এক-তৃতীয়াংশ অবিক্রিত!

করোনায় সিলেটে চায়ের বাজারে ভাটা : নিলামে এক-তৃতীয়াংশ অবিক্রিত!


শেয়ার বোতাম এখানে

সাত্তার আজাদ:

করোনায় সারা বিশ্বের ব্যবসা-বাণিজ্য হুমকির মুখে ফেলে দিয়েছে। ভাটা পড়েছে যেমন বিক্রিতে তেমন উৎপাদনে। এর প্রভাব পড়েছে চায়ের উপরও। মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে দেশের দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক চা নিলাম কেন্দ্রে চলতি মৌসুমের নবম নিলামে প্রায় এক কোটি টাকার চা বিক্রি হয়েছে। অবিক্রিত থেকে গেছে প্রায় অর্ধকোটি টাকার চা। বুধবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত এ নিলাম কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হয়।
শ্রীমঙ্গল ব্রোকার্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হেলাল আহমদ জানান, নিলামে প্রায় ৭২ হাজার কেজি চা বিক্রির জন্য অফার ছিল। এরমধ্যে প্রায় ৫০ হাজার কেজি চা বিক্রি হয়েছে। যার বাজারমূল্য প্রায় ১ কোটি টাকা।
নিলামে দামের সাথে কমেছে ক্রেতাও। দেশে এবার ২০টি নিলাম অনুষ্ঠিত কবার কথা ছিল। কিন্তু বছরের শেষে এসেও নবম নিলাম (দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক চা নিলাম কেন্দ্র শ্রীমঙ্গলে তৃতীয় নিলাম) অনুষ্ঠিত হয় বুধবার। এ নিলামে শ্রীমঙ্গলের তিনটি প্রতিষ্ঠান অংশগ্রহণ করে। প্রতিষ্ঠানগুলো হচ্ছে- শ্রীমঙ্গল ব্রোকার্স লিমিটেড, রুপসিবাংলা ও জালালাবাদ ব্রোকার্স।

দেশের চা ব্যবসায়ীরা বলছেন, বাংলাদেশে চায়ের বড় ক্রেতা টং দোকান এবং হোটেল-রেস্তোরাঁ। মহামারি করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে মার্চের ২৬ থেকে ৩০ মে পর্যন্ত সব বন্ধ ছিল। এখন দোকান খুললেও বিক্রি আগের মতো নেই। মানুষ দোকানে এসে চা কম খাচ্ছে। ফলে আশঙ্কাজনক হারে চা বিক্রি কমে গেছে।

আন্তর্জাতিক বাজারে চায়ের দাম পর্যালোচনা করে দেখা যায়, চায়ের দামে মহামারি করোনাভাইরাসের নেতিবাচক প্রভাব আন্তর্জাতিক বাজারেও পড়েছে। করোনার প্রকোপ শুরু হওয়ার আগে গত বছরের নভেম্বরে আন্তর্জাতিক বাজারে চায়ের কেজি ছিল ৩ দশমিক ৪১ ডলার। ডিসেম্বরের শেষের দিকে চীনে করোনার প্রকোপ শুরু হলে চলতি বছরের জানুয়ারিতে দাম কমে ২ দশমিক ৫০ ডলারে নেমে আসে। করোনার প্রকোপ বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে চায়ের দামে দরপতনও চলতে থাকে। মার্চের শুরুতে দাম আরও কমে ২ দশমিক ২৫ ডলারে নামে।

এরপর কিছুটা দাম বেড়ে মার্চের শেষ সপ্তাহে আন্তর্জাতিক বাজারে চায়ের কেজি ৩ দশমিক ২৫ ডলারে ওঠে। তবে এপ্রিলে আবার দাম কমে যায়। দফায় দফায় দাম কমে জুনে ১ দশমিক ৯০ ডলারে নেমে যায়।

বাংলাদেশ চা বোর্ডের বিপণন কর্মকর্তা আহসান হাবিব জানান, গত মৌসুমে (এপ্রিল ২০১৯ থেকে মার্চ ২০২০) চট্টগ্রাম এবং শ্রীমঙ্গলের ৪৫টি নিলামে চা বিক্রি হয়েছে ৯০.৪৪ মিলিয়ন কেজি। যার গড় দাম ছিল ১৭৬.০৮ টাকা। চলতি মৌসুমে এখন পর্যন্ত চট্টগ্রামে ছয়টি এবং শ্রীমঙ্গলে তিনটি নিলাম অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিক্রি হয়েছে ৬.৬৬ মিলিয়ন কেজি। গত বছরের চেয়ে এ বছর চায়ের দামও কমেছে।
নাহার চা বাগানের জেনারেল ম্যানেজার পিযুষ কান্তি বলেন, ওয়্যারহাউসগুলোতে (চা রাখার স্থান) চা জমছে, কিন্তু বিক্রি হচ্ছে না। আমাদের ওয়্যারহাউসে জমা আছে প্রায় ৩০ হাজার কেজি চা। আমরা চ্যালেঞ্জিং সময় পার করছি। চা বিক্রি হচ্ছে না, আবার শ্রমিকদের বেতন বাকি রাখা যাচ্ছে না। তার ওপর চায়ের দাম স্মরণ কালের মধ্যে সবচেয়ে কম। বর্তমানে ১৫৫ টাকা গড় দামে চা বিক্রি হচ্ছে।

বাংলাদেশ চা সংসদ সিলেট ভ্যালির সভাপতি জি এম শিবলি জানান, করোনার কারণে চা বিক্রি তিনগুণের বেশি কমেছে। ভালো কোয়ালিটির চা বিক্রি হলেও সাধারণ মানের চা যা সাধারণ চায়ের দোকান বা রেস্তোরাঁয় বিক্রি হয় তা কমেছে। নিলামে যে চা উঠছে তার প্রায় অর্ধেক অবিক্রীত থেকে যাচ্ছে। ফলে ওয়্যারহাউসগুলোতে চা জমছে। এভাবে আরও কয়েক মাস গেলে চা রাখার জায়গার যেমন অভাব হবে তেমনি নষ্ট হবে চায়ের কোয়ালিটি। এই শিল্পের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের বেতন-ভাতা দিয়ে উৎপাদন অব্যাহত রাখা বড় চ্যালেঞ্জ হবে। এ বছর আবহাওয়া অনুকূলে না থাকায় চায়ের উৎপাদন গত বছরের তুলনায় কম হচ্ছে।

হামিদিয়া চা বাগানের ম্যানেজার মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, চা বিক্রি হচ্ছে না, দামও কমেছে। ওয়্যারহাউসে চা জমে আছে। এতে নষ্ট হতে পারে চা এবং চায়ের মান। গত বছর আমরা এক লাখ ৮৫ হাজার কেজি চা উৎপাদন করেছি। যার দাম ছিল কেজিপ্রতি গড়ে ১৭৬ টাকা। এ বছর গত বছরের চেয়ে চা উৎপাদন কিছুটা কমেছে, সঙ্গে দামও কমেছে। এ বছর গড়ে ১৫৫ টাকা করে চা বিক্রি হচ্ছে। তার চেয়ে বড় বিষয় ৬০ শতাংশ চা অবিক্রীত থাকছে। আমার বাগানের ওয়্যারহাউসে প্রায় ২৫ হাজার কেজি চা জমে আছে, বিক্রি হচ্ছে না। চরম সংকটে আমরা। বাগান বন্ধ হওয়ার উপক্রম। শ্রমিকদের বেতন দিতে হিমশিম খাচ্ছি। প্রধানমন্ত্রীর প্রণোদনাও পাইনি। ব্যাংকও আমাদের লোন দিচ্ছে না।

টি প্লান্টার্স অ্যান্ড ট্রেডার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (টিপিটিএবি) সদস্য সচিব জহর তরফদার বলেন, এ বছর আমাদের শ্রীমঙ্গলের নিলাম কেন্দ্রে ২০টি নিলাম অনুষ্ঠিত হওয়ার পরিকল্পনা ছিল। এখন পর্যন্ত তিনটি নিলাম অনুষ্ঠিত হয়েছে। আর সারা দেশ মিলিয়ে ৯টি। দেশের অস্টম নিলামে ১৮ হাজার ৭০০ কেজি চা বিক্রি হয়েছে। ক্রেতাদের অংশগ্রহণ কমেছে, সঙ্গে চায়ের দামও কমেছে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin