বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২১, ১০:১৬ পূর্বাহ্ন

করোনায় সিলেটে বিপাকে নিম্ন আয়ের মানুষরা

করোনায় সিলেটে বিপাকে নিম্ন আয়ের মানুষরা


শেয়ার বোতাম এখানে

শাফী চৌধুরী: সিলেট শহরের মদিনা মার্কেট এলাকার দিনমজুর মনজুর আলী। সারাদিন বিভিন্ন স্থানে দিনমজুরের কাজ করে আহার জুটত মনজুর আলী ও তার পরিবারের। প্রতিদিন দিন মজুরের কাজ করে মজুরি বাবদ প্রতিদিন পেতেন ৩৫০ টাকা। তা দিয়ে ভাড়া বাসায় থেকে দিনাতিপাত করেন।

কিন্তু করোনা ভাইরাস সংক্রমণের পর বিপাকে পড়েছেন তিনি। সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক গত ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত দেশে সাধারণ ছুটি ঘোষনা করে সবাইকে ঘরে থাকার অনুরোধ জানায় সরকার।

২৫ মার্চ রাত থেকে দেশে গনপরিবহন বন্ধ হয়ে যায়। জরুরী প্রয়োজন ছাড়া ২৬ মার্চ থেকে কেউ জরুরী প্রয়োজন ছাড়া বাইরে বের হচ্ছেন না। মানুষ বাড়ি থেকে বের না হওয়ায় রোজগার নেই বললেই চলে মনজুর আলীর।

পেটের দায়ে রাস্তায় বের হলেও পুলিশ তাড়িয়ে দিচ্ছে করোনা সংক্রমণ থেকে বাঁচার জন্য। ফলে ২ দিন থেকে আয় রোজগার নেই তার। বাসায় জমানো কিছু টাকা ছিল তা দিয়ে ২ দিন থেকে বাজার করে দিনাতিপাত করছেন।

কথা হয় রেষ্টুরেন্ট শ্রমিক রফির সাথে । রফি জানায়, ‘হোটেল বন্ধ। হোটেলে আর যারা আছইন আমরা সবে মিল্লিয়া রান্দিয়া খাইরাম। মাজনে (মহাজন) সবতার ব্যবস্থা করিয়া দিয়া গেছইন। হোটেল বন্ধ থাকায় দিন যায় না।রাস্তাতও বারইতাম পারি না।রাস্তাত গেলে পুলিশে দৌড়াইয়া দে।সারাদিন রুমের ভিতরে কাটানি লাগের।

সে আরো জানায়,এ রেষ্টুরেন্টে নিজে থাকা-খাওয়ার পাশাপাশি মায়ের জন্য গ্রামে টাকাও পাঠায় এ কিশোর। সে প্রতিমাসে ৩৫০০ টাকা বেতন পায়। কাষ্টমাররা খুশী হয়ে যা টাকা দেয় সব মিলিয়ে প্রতিমাসে ৮ হাজার টাকার মতো হয়ে যায়। সে টাকা থেকে সে প্রতি মাসে তার মায়ের জন্য ৪ হাজার টাকা গ্রামে পাঠায়। রেষ্টুরেন্ট বন্ধ হয়ে যাওয়ায় মায়ের জন্য কিভাবে টাকা পাঠাবে তা নিয়ে দু:শ্চিন্তায় আছে।


এইক ভাবে সুবিদবাজার এলাকায় কথা হয় রিক্সা চালক রাইসুল মিয়ার সাথে। তার গ্রামের বাড়ী কিশোরগঞ্জ জেলার ইটনা উপজেলায়। সে ৪ বছর থেকে নগরীর পাঠানটুলার একটি কলোনিতে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে বাস করেন।

রাইসুল প্রতিবেদককে জানান, পেটের দায়ে রিক্সা নিয়ে বসে আছি। কোনো যাত্রী নেই। আগে ছয় থেকে সাতশ’ টাকা রোজগার করতাম। এখন করোনা আতঙ্কে কেউ ঘর থেকে বের হয় না। আমার মতো আরও ৫/৬ জন এই পয়েন্টে বসে আছে সারাদিন ধরে।

১০০ টাকা রোজগার করতে পারিনি। কীভাবে আমাদের সংসার চলবে। এখন ছেলেমেয়েদের নিয়ে না খেয়ে মরতে হবে। সরকার যদি কোনো সাহায্য-সহযোগিতা করে তাহলে কিছুটা রক্ষা পাব পরিবার নিয়ে।

মনজুর, রফি ও রাইসুলের মতো কয়েক হাজার শ্রমিক রয়েছেন সিলেট শহরে । যারা প্রতিদিন রিকশা, ভ্যান, অটোরিকশা, রেষ্টুরেন্ট ও দিনমজুরের কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে থাকেন। ওই আয় দিয়ে তাদের প্রতিদিনের বাজার করতে হয়।

করোনা আতঙ্কে মানুষ ঘর থেকে বের হতে না পারায় তাদের আয়-রোজগার কমে গেছে। ফলে পরিবার নিয়ে এসব নিম্ন আয়ের মানুষ দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন। তারা বাঁচার তাগিদে বাইওে বের হলে পুলিশের আতঙ্কে থাকেন। তার পরও তারা রাস্তায় বের হচ্ছেন জীবিকার তাগিদে।

দু’দিন ধরে রাস্তায় মানুষ না থাকায় আরও বিপাকে পড়েছেন তারা। দিন শেষে কেউবা ফিরছেন খালিহাতে আবার কেউ সামান্য কিছু হাতে নিয়ে। এদিকে পুলিশ বলছে, করোনা থেকে সুরক্ষা পাওয়ার জন্য এসব নিম্ন আয়ের মানুষকে ঘরে রাখতে তাদের মাঠে থাকতে হচ্ছে।

এদিকে সিলেট জেলার দরিদ্র ও খেটে খাওয়া মানুষ যাতে অনাহারে দিন কাটাতে না হয় সে জন্য ১০ লক্ষ টাকা ও ৩২১ টন চাল বরাদ্দ দিয়েছে সরকার।

প্রশাসনের পক্ষ থেকে জেলার প্রতিটি উপজেলার দরিদ্রদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে তা পৌছে দিচ্ছেন প্রশাসনের লোকরা। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ আবুল কালাম।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin