বুধবার, ১২ মে ২০২১, ১২:৪৯ পূর্বাহ্ন

‘‘ করোনা ও আদম’’

‘‘ করোনা ও আদম’’


শেয়ার বোতাম এখানে

 মো. মুমিন আহমেদ

রাত প্রায় ১২ টার দিকে সাংবাদিক বন্ধু যখন আমার কলিগ এর করোনা আক্রান্তের খবর দিল সাময়িক অপ্রস্তুত হলেও সামলে নেওয়ার চেষ্টা করলাম।

প্রসঙ্গত আক্রান্ত কলিগ মার্চ মাসের ২২ তারিখ ঢাকা থেকে শ্রীমঙ্গল আসে তখন গণপরিবহন চলাচল বন্ধ হয় নাই। ব্যাংক বন্ধ থাকা অবস্থায় ১৪ ই এপ্রিল সে জ্বরে আক্রান্ত হলে ফোনে যোগাযোগের মাধ্যমে তাকে ছুটি দেওয়া হয়।

সে স্ব প্রণোদিত হয়ে ২১ শে এপ্রিল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে COVID-19 পরিক্ষার সেম্পল দিয়ে আসে এবং ২৪ শে এপ্রিল রাতে তার পজেটিভ হওয়ার খবর আসে। উল্লেখ্য যে তার জ্বর, সর্দি ও গলা ব্যথা ২২ শে এপ্রিল তারিখে কমে যায় ।

২৫ শে এপ্রিল রাত অনুমানিক ১২.২০। ফেসবুকে রকমারি ক্যানভাস ও নানান হরফে স্ট্যাটাস শুরু হলো “২৬ বছরের ক্যাশিয়ার যুবক করোনায় আক্রান্ত”, ” ২৬ বয়সের ব্যাংকার করনায় আক্রান্ত”, ” ২৬ যুবক বছরের করুনায় আক্রান্ত” , যুবক ব্যাংকার ২৬ বছরের করোনায় আক্রান্ত” ইত্যাদি। উৎকন্ঠার মাঝে ও আমি বিমোহিত হয়ে স্ট্যাটাস দেখি!!!

আমার বাটন ফোন থামতে চায়না, ক্রমাগত বেজেই চলে। ফোন রিসিভ করি, করোনা আক্রান্ত কলিগের হাল হকিকত বর্ণনা করি। এলাকার এক জুনিয়র ফোন দেয় আমি হ্যালো বলতেই সে দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে বলে ” মনে হয় আর বাঁচা গেলো না!!”,

তার কথায় রাজ্যের হতাশা ; ভাই এলাকার নামের সাথে মঙ্গল আছে তাহলে এই করোনা হারামি আসল কিভাবে!? মঙ্গলের ঘরে অমঙ্গল ভাইরাস সিঁধ কাটল ক্যামনে আমি কূলকিনারা খুঁজে পাইনা। সে আবার জিজ্ঞাসে আমাদের কি হবে ভাই? এখানেও আমি ব্যর্থ হই উত্তর দিতে পারিনা।

এবার আমাদের এক গ্রাহকের ফোন আসে, তিনি ফিসফিস করে বলেন ভাই হাছানি? উনি তো শায়খূল হাদিস আনসারী সাবের জানাযায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া গিয়ে জীবাণু দাওয়াত দিয়া আনছে। উনার উদ্ভট বার্তার উৎস জানতে চাইলে উনি আমতা আমতা করে হুনছি হুনছি বলে এড়িয়ে যান।

এদিকে ফেসবুকে তুমুল কুস্তাকুস্তি চলছে রংবেরং এর স্ট্যাটাস আর কমেন্টস ধারার! সর্দার গোছের এক ভাই তার ওয়ালে করোনা আক্রান্তের সাম্প্রতিক রাজধানী শহর ভ্রমণ সম্পর্কে কাল্পনিক নাতি দীর্ঘ বয়ান দিলেন। সঙ্গে সঙ্গে অনুসারী সাঙ্গপাঙ্গরা লাইক, হার্ট ও এংগ্রি রিএ্যক্ট দিতে লাগল, হ্যাঁ ভাই, Yes ভাই, সহমত ভাই রব উঠল। একজন কমেন্টে করোনা আক্রান্তকে চৌদ্দ শিকের ভেতর ঢোকানোর প্রস্তাব দিলেন।

আরেকজন শহরের চৌমুহনায় চিৎপটাং করে ফেলে রামধোলাই এর ব্যবস্থাপত্র দিলেন। কয়েক ডিগ্রি এগিয়ে বখাটে গোত্রের এক মন্তব্যকারী করোনা আক্রান্তের জনক জননী কে উপহার দিলেন তার স্টক নিংড়ে নাপাক গালিগালাজের বস্তা। শ্রীমঙ্গলের পবিত্র মাটিতে করোনা আনার গর্হিত কাজের সাথে এই রোগী জড়িত বিধায় তাকে বস্ত্রহীন অবস্থায় উত্তম মধ্যম দেওয়া আবশ্যক বলে অনেকেই মন্তব্য করেন। মন্তব্যকারীদের পক্ষ থেকে খড়ম ধোলাইয়ের ও প্রস্তাব আসতে থাকে দেদারসে।

আমার ফোন বাজতে থাকে এন্তার। ফোন ধরতেই এক গ্রাহক আপা বলেন ” ভাই করোনায় আপনাদের ব্যাংকের একজন নাকি ছরখাতে ( জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে) আছে? জবাবে বললাম আপা আমাদের বিবেকই ছরখাতে আছে।

ওয়েটিংয়ে অনেক উৎসুক শুভাকাঙ্ক্ষী রয়েছেন। ফোন উঠাতেই অপর প্রান্তের সফস জানতে চান রুগীকে আটক করে কোথায় নিয়ে গেছে? কুর্মিটোলা নাকি শামসুদ্দিনে?

অনেক ফোন আসে। অনেকে রুগীর খবরা খবর নেন। আক্রান্তের জন্য শুভ কামনা করেন, তাঁদের আন্তরিকতা ও মানবিকতায় কৃতজ্ঞতার বন্ধনে আবদ্ধ হই। উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ, চিকিৎসক ও উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের তাৎক্ষণিক পদক্ষেপ নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়।

যুগান্তর পত্রিকার শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি তৎক্ষণাৎ ফোন করে আক্রান্তের খোঁজ খবর নেন।রুগী পরিবার পরিজন ছাড়া কর্মক্ষেত্রে মেসে থাকেন শোনে সহমর্মিতা প্রকাশের পাশাপাশি ফেসবুক স্ট্যাটাস এর মাধ্যমে সবাইকে মানবিক আচরণে উদ্বুদ্ধ করেন যা মাইল ফলক হয়ে থাকবে।

প্রথম রমজানের রাত, সেহেরি খেয়ে ফোন বন্ধ করে ঘুমিয়ে পড়েছি। সকালে ফোন চালু করতেই ফার্মেসির ব্যবসা করেন এমন এক গ্রাহক ফোন করলেন, উনি ভীতির মধ্যে আছেন। আমাকে জিজ্ঞাসে শরম পাচ্ছেন, উনার মনের কথা আমি বুঝতে পারছি , উনি বলতে চান “ভাই গো আপনার করোনার কোন লক্ষণ আছে কি?”

আমি গত হপ্তায় তাঁর ডিসপেনসারি থেকে পথ্য কিনেছিলাম। তিনি তাঁর পরিবার নিয়ে চিন্তার কথা বললেন, আক্রান্ত কলিগ শেষ কবে অফিস করেছিল জানতে চাইলেন; তাকে খুব চিন্তিত মনে হল। আমার মন খারাপ লাগে অনেক, অনেক মন খারাপ।

বন্ধু এস কে চৌধুরীর সাথে দিনে দুই বেলা গলিতে হাঁটা আমার রুটিন কাজ। কলিগের করোনা আক্রান্তের ঘটনা আমার রুটিনে কাঁচি ধরেছে। আমি চৌধুরী সাবের সাথে হাঁটতে যাওয়ার সাহস পাচ্ছিনা। উনি বিগত সালে নিকাহ করেছেন; এই অবস্থায় তার সাথে ঘোরাঘুরি করলে ভাবী ( উনার বিবি) আমাকে জীবাণু চালান করার ষড়যন্ত্রের অভিযোগে অভিযুক্ত করতে পারেন।

এলাকায় করোনা আক্রান্তের বিষয়ে গবেষণা শেষ হয়না। কচুপাতা ছিড়িয়া গদাই বীর হওয়া ফেসবুক ওয়ালারা নানান কিসিমের স্ট্যাটাস দিতে আর কমেন্টস করতে নেমে পড়েন ত্যাল মেখে পিছলা বদনে।

(গুজব সমাজের জন্য অপূরণীয় ক্ষতির কারণ। আসুন গুজব পরিহার করি, মানবিক হওয়ার চেষ্টা করি এবং সবাইকে নিয়ে নিরাপদ থাকি।)

লেখক, সিনিয়র ব্যাংক কর্মকর্তা।

 



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin