বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ০৬:২৫ অপরাহ্ন


করোনা কী ? জানেন না কমলগঞ্জে খোদেজা বেগম

করোনা কী ? জানেন না কমলগঞ্জে খোদেজা বেগম


শেয়ার বোতাম এখানে

কমলগঞ্জ প্রতিনিধি:
কমলগঞ্জে বাজারে সব কিছু বন্ধ। বাজারে নেই মানুষজন। দুপুর ১২টা হঠাৎ চোখে পড়লো এক মধ্য বয়স্ক নারী বাজারে ১০ রোড রাস্তার অনামিকা ফামের্সীর সামনে দিয়ে রোদ্দের মধ্য হেটে যাচ্ছেন।

ওই নারী ডাক দিলেন ফামের্সীর মালিক অজুর্ন শম্মা ও ওষুধ নিতে আসা ক্রেতা মাহমুদুল হাসান। কাছে আসতেই নাম জানে গেল খোদেজা বেগম। বাড়ি উপজেলার সদর ইউনিয়ন বাদেউবাহাটা (কালাছড়া) গ্রামের। জানতে চাইলাম করোনা ভাইরাস রোগ দেশে।

আপনি কেন বাহিরে চলাফেরা করছেন? তখন উল্টো বললেন এটা আরবার কিতা বা?। পেটের দায়ে রাস্তায় ভিক্ষা করছি। বৃদ্ধ নারী জানান, দীর্ঘ ৫ বছর ধরে ভিক্ষাবৃত্তি করে সংসার চালাচ্ছেন।

তিনি ২ সন্তান জননী। স্বামী আক্কল আলী অনেক আগেই মারা গেছেন। তার পর কন্যা পৃথিবী থেকে বিদায় নিয়ে। একমাত্র ছেলে আপ্তাব আলী বিয়ে করে স্ত্রী নিয়ে চট্রগ্রামে বসবাস করছে। খোদেজা তাই বাধ্য হয়ে পেটে দ্বায়ে প্রতিদিন ভিক্ষা করেন।

প্রতিদিনে মতো বৃহস্পতিবারও বের হন। কিন্তু তিনি জানতেন না হাটবাজার বন্ধ। আর করোনা কী জিনিস তা জানেন না।
খোদেজার মতো অনেক অসহায় নারী ভিক্ষুককে করোনা ভাইরাস ঘরে রাখতে পারেনি। পেটে জ্বালায় বাড়ি হতে বের হয়েছেন কিন্তু মানুষ না থাকায় খালি হাতে ফিরে যেতে হয়েছে।

বিধবা নারী খোদেজার করুন কাহিনী শুনে তাৎক্ষনিক সহযোগীতার হাত বাড়ালেন ফার্মেসীর মালিক অর্জুন শর্মা নিধু ও এস এম মিনি সপ এর স্বত্বাধিকারী আলামীন সেজু ও ক্রেতা মাহমুদুল হাসান উজ্জল। খাদ্য সামগ্রী, নগদ কিছু অর্থ, মাস্ক, সাবান তুলে দিলেন।

বললেন করোনা রোগ প্রাদুভার্ব শেষ না হওয়াপর্য়ন্ত নিজ বাড়িতে থাকতে। কিন্তু তিনি কি বাড়িতে থাকতে পারবে ১০দিন।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin