বুধবার, ২৮ Jul ২০২১, ১১:২০ পূর্বাহ্ন


করোনা মহামারীতেও অবৈধ ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে দেশের ইংরেজি মাধ্যম স্কুলগুলো

করোনা মহামারীতেও অবৈধ ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে দেশের ইংরেজি মাধ্যম স্কুলগুলো


শেয়ার বোতাম এখানে

সুমু মির্জা, ঢাকা
করোনা সময়ে সারাবিশ্ব সহ বাংলাদেশেও সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে।সরকারের পক্ষ থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত আপাতত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলো বন্ধই থাকছে। এদিকে অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অনলাইন তাদের ক্লাশ কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন।

করোনায় দেশের অধিকাংশ মানুষ তাদের জীবন জীবিকা নিয়ে সংগতঃ কারণেই অনিশ্চয়তায় আছেন।তার উপর সেসব অভিভাবকের বাচ্চারা ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে পড়ছে সেখানে অনলাইনে ক্লাস ও সম্পূর্ণ বেতন পরিশোধ অথবা কোন প্রতিষ্ঠানে বেতন বাড়ানো নিয়ে বাবা মায়ের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে ।

শনিবার এই বিষয়টি নিয়ে দেশের নামকড়া ইংরেজি মাধ্যম স্কুল স্কলাস্টিকা ও অন্যান্য স্কুল নিয়ে ফেইসবুকে স্টাস্টাস লিখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারি অধ্যাপক ও নিউজ২৪ এর হেড অফ কারেন্ট আফেয়ার্স সামিয়া রহমান। পাঠকদের জন্য স্ট্যাটাসটি হুবুহু তুলে ধরা হলো…

ইংরেজি মাধ্যমগুলো স্কুলগুলোর বেতন সবসময়ই আকাশ ছোঁয়া। পুঁজিবাদী সমাজ। যার অর্থনৈতিক সামর্থ্য আছে তারা এর সুযোগ গ্রহণ করবেন, খুব স্বাভাবিক। কিন্তু করোনাকালীন সময়ে পুরো বিশ্ব যেভাবে অর্থনৈতিক মন্দায় পড়েছে, সেখানে এই ইংরেজি মাধ্যম স্কুলগুলো এখনও চরম ব্যবসা করবে- সেটিও চরম অনৈতিক।

মাস্টারমাইন্ড স্কুল শুনলাম এপ্রিল, মে, জুন মাসে তাদের শিক্ষার্থীদের বেতন অর্ধেক করেছে। সেখানে স্কলাসটিকা স্কুল আমাদের সন্তানদের কাছে পুরো বেতনতো বটেই, উল্টো আরো ৭৫ হাজার টাকা করে অতিরিক্ত চেয়েছে অনলাইনে জুলাই থেকে ক্লাস শুরু করার জন্য।

ইয়াসমিন মোর্শেদ যখন স্কলাসটিকার প্রিন্সিপাল ছিলেন, তখন শিক্ষার্থী, অভিভাবক, স্কুলের মধ্যে সম্পর্কটা পারষ্পরিক বোঝাপড়ার মধ্যে দিয়েই ছিল। বেতন বাড়ানোর সময় প্রতিবার অভিভাবকদের ডাকা হতো। যদিও দিনশেষে বটগাছটা তাদেরই হতো, কিন্তু বলার একটা জায়গা ছিল। তারপর, প্রিন্সিপালের পর প্রিন্সিপাল বদল হয়েছে, মালিকানা বদল হয়েছে। স্কুল এখন হয়ে গেছে শুধুই ব্যবসা প্রতিষ্ঠান।

এই খাত, সেই খাত দেখিয়ে কি পরিমান অর্থ যে তারা আদায় করে চিন্তারও বাইরে। তারপরও পুঁজিবাদী সমাজের দোহাই দিয়ে সব মানতে বাধ্য হতাম। কিন্তু এই করোনাকালীন সময়ে অন্যান্য স্কুল যেখানে অর্ধেক বেতন নিচ্ছে, সেখানে স্কলাসটিকা স্কুল উল্টো শিক্ষার্থীদের উপরে আরো অতিরিক্ত টাকার দাবি চাপাচ্ছে। আমরা বাবা মায়েরা শুধু সন্তানদের ভালো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পড়ানোর স্বপ্নে সব অন্যায় দাবি মাথা পেতে মেনে নেই। কিন্তু মেনে নেয়ারও বোধহয় একটা শেষ সীমা আছে।

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে যেখানে আমরা উল্টো শিক্ষার্থীদের সাহায্য করছি, পাশে থাকছি, সেখানে ইংরেজি মাধ্যম এই স্কুলগুলো এখনও শুধুই ব্যবসা আর মুনাফাকেই দেখে যাচ্ছে। আমার সন্তানরাও স্কলাসটিকা স্কুলে পড়ে, কিন্তু বিরক্ত আর বাধ্য হয়েই আজ লিখলাম. . . . . . ।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin