মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ০৫:৫৭ পূর্বাহ্ন



করোনা মোকাবিলায় সেইসব যোদ্ধাদের ভূমিকা কি কেউ জানেন?

করোনা মোকাবিলায় সেইসব যোদ্ধাদের ভূমিকা কি কেউ জানেন?


নবীন সোহেল:
করোনা মহামারীর এই ক্রান্তিলগ্নে সারা দেশে প্রাইভেট ডাক্তার চেম্বার, প্রাইভেট হাসপাতাল ও ক্লিনিক, চিকিৎসা সেবা দান বন্ধ করে দিয়েছেন। এমন পরিস্থিতিতে সিলেটসহ সারা দেশের সকল শ্রেণী-পেশার মানুষের একমাত্র নির্ভরতার প্রতিক এখন গ্রাম ডাক্তার বা পল্লী-চিকিৎসকেরা।

এছাড়া গ্রামের মুমূর্ষ জনগণকে করোনা ভাইরাস সম্পর্কে জনসচেতনতা ও তার প্রতিরোধ করতে গ্রাম ডাক্তার অথবা পল্লী-চিকিৎসকেরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দিন-রাত যে পরিশ্রম করে যাচ্ছেন, তাদের এ ভূমিকা অতুলনীয়। করোনাযুদ্ধে এই সংকটকালীন সময়ে গ্রাম ডাক্তারদের যে বড় ভূমিকা রাখছেন তা মানতেই হবে!

সব সময়েই প্রায় দুই-তৃতীয়াংশ রোগীর স্বাভাবিক সময়েও যেকোনো অসুস্থতায়, বিশেষত নি¤œ ও মধ্য আয়ের রোগীরা প্রথমে যান গ্রাম ডাক্তার বা পল্লী-চিকিৎসকদের কাছে। গ্রামগঞ্জে যেখানে এমবিবিএস ডাক্তার নেই, নেই ভালো ক্লিনিক বা হাসপাতাল, সেখানে যুগ যুগ ধরে ডিগ্রিবিহীন এই ‘চিকিৎসকেরা’ মানুষকে স্বাস্থ্যসেবা দিয়ে বাঁচিয়ে রেখেছেন।

সমাজের সর্বস্তরে এই নিবিড় ভরসার সম্পর্ক তাদের আজও জনপ্রিয় করে রেখেছে, যার ফলেই হয়তো এই করোনাকালেও যুক্তরাষ্ট্রের ইয়েল ইউনিভার্সিটির গবেষকদের ইনোভেশনস ইন পভার্টি অ্যাকশনের (আইপিএ) গবেষণায় দেখা যাচ্ছে, প্রায় ৭০ শতাংশ মানুষ করোনার উপসর্গ দেখা দিলে প্রথমে সেবা নিচ্ছেন ফার্মেসিতে বসা এই অনানুষ্ঠানিক চিকিৎসকদের কাছে।

সিলেটের গ্রাম অঞ্চলে বা নগরীর অলিতে গলিসহ সারা দেশের মধ্য ও নি¤œ আয়ের জনসাধারন অতীতের ন্যায় বতমানেও গ্রাম-ডাক্তার বা পল্লী-চিকিৎসকদের কাছে প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। এমনকি করোনা উপসর্গ দেখা দিলেও সেই রোগীরা প্রথমে যাচ্ছেন তাদের পাশের পল্লী-চিকিৎসকদের কাছে। সেই পল্লী চিকিৎসকরাও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে স্বাস্থ্যসেবা দিয়ে যাচ্ছেন। কিন্তু তাদের কোন প্রণোধনা বা সুরক্ষা ব্যবস্থা দেওয়ার জন্য যেন কেউ নেই!

বাংলাদেশ গ্রাম ডাক্তার ঐক্য কল্যাণ সোসাইটির তথ্যমতে, সিলেট জেলায় ২৫২জনসহ সারাদেশে প্রায় সাড়ে তিন লক্ষ গ্ৰাম ডাক্তারদের চিকিৎসাসেবা অব্যাহত রয়েছে। কিন্তু, করোনাভাইরাস সংক্রমণের এই সময়ে তাই গ্রাম ডাক্তাররা আছেন উভয়সংকটে।

একদিকে তাঁদের মুখের দিকে তাকিয়ে থাকা রোগীরা, সামাজিক দায়বদ্ধতার কারণে যাঁদের ফিরিয়ে দেওয়া সম্ভব নয়। অন্যদিকে যেকোনো মুহূর্তে করোনা সংক্রমণের ভয়। এরমধ্যে নেই কোনো বিশেষ প্রশিক্ষণ বা প্রতিরক্ষামূলক সরঞ্জাম। এজন্য ওষুধ বিক্রেতা এবং বিশেষ করে গ্রাম ডাক্তার বা এবং পিপিইর আওতায় আনা এখন সময়ের দাবি।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ গ্রাম ডাক্তার ঐক্য কল্যাণ সোসাইটি বিশ্বনাথ উপজেলা শাখার সভাপতি ডা. শাহনুর হোসাইন বলেন, সরকারি ডাক্তাররা করোনায় আক্রান্ত হলে সরকার থেকে বিশেষ প্রণোধনাসহ বিশেষ সুযোগ সুবিধা পাচ্ছেন। আমরাও করোনা রোগীদের সেবা দিতে গিয়ে আক্রান্ত হচ্ছি, অনেকের প্রাণও গেছে, কিন্তু আমরা তো অবহেলিতই রয়ে যাচ্ছি।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ গ্রাম ডাক্তার ঐক্য কল্যাণ সোসাইটি দক্ষিণ সুরমা উপজেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. সুরঞ্জিত চন্দ্র দাশ শুভ প্রতিদিনকে জানান, করোনা মোকাবেলায় দেশের এই সংকটময় মুহূর্তে সারা বাংলাদেশে ফার্মাসিষ্ট ও রুরাল মেডিকেল প্র্যাকটিশনারদের ভূমিকা প্রসঙ্গে ও করোনা মোকাবেলায় সরকারের পদক্ষেপের ধন্যবাদ জানিয়ে সরকারপ্রধান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে তারা তাদের সংগঠন থেকে একটি খোলা চিটি লিখেছেন।

এই খোলা চিঠিতে তারা উল্লেখ করেন, সারাদেশে লকডাউন থাকার কারণে প্রাইভেট ডাক্তার চেম্বার, প্রাইভেট হাসপাতাল ও ক্লিনিক, চিকিৎসা সেবা দান বন্ধ করে দিয়েছেন। এমতাবস্থায় সারাদেশের ফার্মাসিষ্ট ও রুরাল মেডিকেল প্র্যাকটিশনাররা সারাদেশ ব্যাপী জীবন বাজী রেখে তৃণমূল মানুষেদের মাঝে অতীতের ন্যায় বর্তমানে প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছেন।

এমন কি বড় বড় ডাক্তারদের রোগী উনাদের সাথে কোনোভাবে যোগাযোগ করতে না পেরে, এমন কি হাসপাতালে ও ক্লিনিকে গিয়ে ও চিকিৎসা সেবা না পেয়ে, তাদের কাছে আসতেছে, তারা যতটুকু সম্ভব এসব রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছেন, পাশাপাশি যেটা তাদের পক্ষে সম্ভব নয় সেটাও তারা পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছেন। তারা সরকারের পাশাপাশি সহযোগী হিসেবে করোনা মোকাবেলায় কাজ করতে আগ্রহ প্রকাশ করে খোলা চিটিতে, সরকার একটি বিশেষ নীতিমালা করে, চিকিৎসার সীমাবদ্ধতা রেখে তাদেরকে জাতীয়ভাবে স্বীকৃতি দেওয়ার জোর দাবি জানান।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ গ্রাম ডাক্তার ঐক্য কল্যাণ সোসাইটি কেন্দ্রিয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. আক্তার হোসেন জানান, করোনা ভাইরাসের হাত থেকে রক্ষা পেতে পল্লী চিকিৎসকদের সংগঠন বিপিডিএ তহবিল হতে কিছুসংখ্যক চিকিৎসকে ফ্রি পিপিই ও মাকর্স সরবরাহ করা হয়েছে। আমাদের নির্দেশনা অনুযায়ী পল্লী চিকিৎসকরাও এই অল্প সুরক্ষা সামগ্রী নিয়ে তারা মাঠে নিরলসভাবে চিকিৎসা সেবার কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ গ্রাম ডাক্তার ঐক্য কল্যাণ সোসাইটি কেন্দ্রিয় কমিটির সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ডা. মো. জামিলুর রহমান আসলাম বলেন, মহামারি করোনা ভাইরাসের ভয়ে বড় বড় ডাক্তারা যখন সেবা দিতে অস্বকৃতী জানাচ্ছে। তখন পল্লী চিকিৎসকরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে শহর থেকে গ্রাম, পাড়া, মহল্লায় তৃণমূল মানুষের সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। গ্রামের মানুষের পল্লী চিকৎসকরাই একমাত্র রোগীদের ভরসা হয়ে দাড়িয়েছে। তিনি সরকারের কাছে আরএমপি প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ডাক্তারদের ১ বছরের একটি প্রশিক্ষণ দেওয়ার দাবী তুলে ধরেন।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ গ্রাম ডাক্তার ঐক্য কল্যাণ সোসাইটি কেন্দ্রিয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ডা. মুজিবুর রহমান শুভ প্রতিদিনকে বলেন, দেশের এই দূর্যোগকালীন সময়ে গ্রামের মানুষেরা স্বাস্থ্যসেবার জন্য আমাদের কাছেই আসেন। আমরাও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে নিরলসভাবে সেবা দিয়ে যাচ্ছি এবং দিব। তিনি আরও বলেন, সরকারী কোন ডাক্তার স্বাস্থসেবা দিতে গিয়ে আক্তান্ত হলেই তাদের সরকার প্রণোধনা দিচ্ছে।

কিন্তু আমাদেরকে সরকার থেকে একটু উৎসাহ উদ্দিপনাও দেয়া হচ্ছেনা। আমরাও সেবা দিতে গিয়ে আমাদেরও করোনা ঝুঁকি রয়েছে আবার অনেকে আক্রান্ত হয়েছেন, কয়েকজন নিহতও হয়েছেন। তিনি গ্রাম ডাক্তার বা পল্লী চিকিৎসকদের শিগগিরই বিশেষ প্রশিক্ষণ ও সুরক্ষা সামগ্রী দিয়ে সরকারের সহযোগি হয়ে কাজ করার এবং পল্লী চিকিৎসকদের প্রণোধনার আওতায় আনার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি জোর দাবী জানান।

বাংলাদেশ গ্রাম ডাক্তার ঐক্য কল্যাণ সোসাইটি কেন্দ্রিয় কমিটির সভাপতি ডা. মিফতাহুল হোসেন সুইট শুভপ্রতিদিনকে বলেন, সারাদেশে বাংলাদেশ গ্রাম ডাক্তার ঐক্য কল্যাণ সোসাইটির প্রায় সাড়ে তিন লক্ষ সদস্য আছেন, যারা এই করোনা মহামারিতেও জীবন-মৃত্যুর সম্মূখিন হয়ে নিরলসভাবে সকল শ্রেণীপেশার মানুষের স্বাস্থ্যসেবা দিয়ে যাচ্ছেন।

তিনি জানান, আমরা আরএপির যারা ডাক্তার তারা নামের আগে ডাক্তার পদবী লেখায় এমবিবিএস ডাক্তারদের সংগঠন বিএমডিসির বাঁধা ছিলো। এর প্রেক্ষিতে ২০১২সালে আমরা ডাক্তার পদবী লেখার বৈধতা নেই কেন এ নিয়ে উচ্চ আদালতে রিট করেছিলাম। সেই রিটের কার্যক্রম এখনো চলমান রয়েছে। এই রায় হওয়ার আগ পর্যন্ত আরএমপি প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত গ্রাম ডাক্তার বা পল্লী চিকিৎসকরা নামের আগে ডাক্তার ব্যবহার করতে পারবে।

সংগঠনের সভাপতি আরও বলেন, করোনা দূর্য়োগে যখন বিএমডিসির ডাক্তাররা প্রাইভেট চেম্বার ও ক্লিনিক বন্ধ করে দিয়েছেন সেই সংকটে আমরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মানুষের পাশে দাড়িয়েছি। এমনকি সংগঠনের সকল সদস্যদের সংগঠন থেকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে যে, দেশের এই সংকটময় মূহুর্তে জীবন থাকা পর্যন্ত মানুষের স্বাস্থ্যসেবা যাতে নিশ্চিত থাকে। কেউ কখনো জীবনের ভয়ে চেম্বার বন্ধ রাখতে পারবেন না। সবাই আমাদের নির্দেশনা মেনে কাজ করে যাচ্ছেন।

তিনি দু:খ প্রকাশ করে বলেন, করোনা মোকাবেলায় আমাদের পর্যাপ্ত সরঞ্জাম নাই। তাইতো করোনা রোগিদের চিকিৎসা সেবা দিতে গিয়ে সিলেটের একজনসহ দেশে আমাদের ৫জন ডাক্তার ইতিমধ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। তাদের পরিবারকে প্রণোধনাসহ পল্লী চিকিৎসকদের করোনা মোকাবেলায় বিশেষ প্রশিক্ষণ ও সরঞ্জাম সামগ্রী প্রদান করার জন্য বর্তমান সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি বিশেষ অনুরোধ জানান তিনি।


সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin