শনিবার, ৩১ অক্টোবর ২০২০, ০৪:০৮ অপরাহ্ন



করোনা স্পট ওসমানীনগর ২ দিনে আক্রান্ত ৬

করোনা স্পট ওসমানীনগর ২ দিনে আক্রান্ত ৬


রনিক পাল,ওসমানীনগর:

করোনা ম্পট হয়ে পড়েছে সিলেটের ওসমানীনগর উপজেলা। সচেতনাতা অভাবে দিন দিন বেড়েই চলেছে করোন আক্রান্তের সংখ্যা দুই দিনে ওমানীনগর উপজেলায় ৬ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। তবুও থেমে নেই মানুষের জীবন যাত্রা ঈদকে সামনে রেখে বাজারে এলাকাতে রয়েছে উপছে পড়া ভিড়।

বুধবার রাত থেকে শুক্রবার রাত পর্যন্ত দুই দিনে ওসমানীণগরে ৬ জনের করোনা পজেটিভ রির্পোট আসে। এ নিয়ে ওসমানীনগর উপজেলায় করেনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ৯ জনে। গত দুই দিনে উপজেলা প্রশাসন করোনা আক্রান্ত ৬ জনের বাড়ি ও বাসা লকডাউন ঘোষনা করেন।

জানা গেছে, অবাদে চলাফেরা, সচেতনতা এবং প্রশাসনের নজরধারী না থাকায় করোনা স্পট হয়ে পড়েছে ওসমানীনগর উপজেলা। ওসমানীনগর উপজেলায় প্রথম করোনা রুগী সনাক্ত হয় ৩০ এপ্রিল উপজেলার দয়ামীর ইউনিয়নের রাইকদাড়া (নোয়াগাঁও) গ্রামের ৫৫ বছর বয়সী এক ব্যক্তি। গত ২৬ এপ্রিল শ্বাসকষ্ট জনিত সমস্যা নিয়ে ওই ব্যক্তি সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হন। চিকিৎসকরা সন্দেহজনক মনে করে এই ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষাগারে প্রেরণ করেন।

এরই মধ্যে রোগীর শারীরিক অবস্থার উন্নতি হলে হাসপাতাল থেকে বাড়িতে ফিরে আসেন। তারপর ওসমানীনগরের ওই ব্যক্তির করোনা রিপোর্ট পজিটিভ জানিয়ে রিপোর্ট আসে। এর পর গত ৫ই মে ওসমানীনগরে ২য় করোনা রোগী শনাক্ত করা হয়। আক্রান্ত ব্যক্তি ঢাকা ফেরত ২৪ বছর বয়সী তরুণ উপজেলার গোয়ালাবাজার ইউপির পূর্ব ব্রাহ্মণ গ্রামে বাসিন্দা। এর পর ১০ দিন কোন করোনা রুগী শনাক্ত না হওয়ায় কিছুটা স্বস্থি ফিরলেও ১৫ মে করোনা আক্রান্ত হন বালাগঞ্জ ওসমানীনগর পল্লী বিদ্যুত জোনাল অফিসের এক লাইন টেকনেশিয়ান। তিনি তাজপুর মশ্রব আলী বাসায় ভাড়া থাকতেন। ওই বাসাও ১৬ মে লকডাইন ঘোষণা করা হয়। তার অবস্তার অবনতি হলে পরবর্তীতে ১৮ মেশহীদ শামসুদ্দীন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এদিকে, পল্লী বিদ্যুতের টেকনেশিয়ানের সংস্পর্সে আসা তার (১১) বছরের তার পুত্র এবং আরেক লাইন টেকনেশিয়ান (২২)করোনা আক্রান হয়েছেন। ২১ মে বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলা স্বাস্থ্য কম্পেক্সে থেকে জানানো হয় সংস্পর্সে আসা পল্লী বিদ্যুতের লাইন টেকনেশিয়ানের পুত্র এবং আরো একজন লাইন টেকনেশিয়ান করোনা আক্রান্ত। সংস্পর্সে আসা লাইন টেকনেশিয়ান খাশিপন এলাকায় ভাড়া বাসায় বসবাস করছিলেন। তার বাড়ি হবিগঞ্জ জেলার শাস্তাগঞ্জ এলাকায়। একই দিন তাজপুর কলেজ গেইটের পূর্ব দিকের দুলিয়ারবন্দে গাজীপুর ফেরত করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া রিকশা চালক মো. হাবিব মিয়া (৫০) এর করোনা পজেটিভ বলে জানান ওসমানীনগর উপজেলা করোনা সংক্রান্ত মেডিকেল টিমের প্রধান ডা. সাকিব উল্লাহ চৌধুরী। বৃহস্পতিবার রাতে বালাগঞ্জ উপজেলা হাসপাতালের নার্সের পিতা (৫৫) করোনা আক্রান্ত হন। তিনি উপজেলার সাদিপুর এলাকার বাসিন্ধা। তিনি দির্ঘ দিন থকে সুনামগঞ্জ জেলার রাণীগঞ্জে বসবাস করে আসছেন বলে জানা গেছে।

২২ মে শুক্রবার রাতে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পিসিআর ল্যাব থেকে ই-মেইলের মাধ্যমে এই দুইজন রিপোর্ট পজেটিভ। তারা হলেন ওসমানীনগরে অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের অফিসের (৪০) বছর বয়সী একজন ইন্সপেক্টর ও ইউএনও অফিসের (২৬) বছর বয়সী একজন পরিচ্ছন্নতা কর্মী।

ওসমানীনগরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের অফিসের ইন্সপেক্টর পরিবার নিয়ে সিলেট শহরে বসবাস করেন এবং প্রতিদিন ওসমানীনগর থানায় সার্কল অফিসের এসে দায়িত্ব পালন করেন। ইউএনও অফিসের পরিচ্ছনতা কর্মী উপজেলার ভার্ড হাসপাতালের পাশে ভাড়া বাসায় থাকেন। তার বাড়ি সুনামগঞ্জের বিস্বম্ভরপুর উপজেলায়। এ নিয়ে ওসমানীনগরে করোনা আক্রান্তের সংখ্য বেড়ে দাঁড়ালো ৯ জনে।


সমস্ত পুরানো খবর




themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin