মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ০৮:২৫ পূর্বাহ্ন



কারবালা ও শাহাদাতে হুসাইন রাযি.

কারবালা ও শাহাদাতে হুসাইন রাযি.


মুফতি জিয়াউর রহমান:

ইরাকের কিছু মানুষ হযরত হুসাইন রাযিয়াল্লাহু আনহুকে সেখানে যাবার আমন্ত্রণ জানালো৷ চিঠির পর চিঠি এসে জমা হতে হুসাইন রাযি. এর কাছে৷ এক-দুইটা নয়, পাঁচ শতাধিক চিঠি৷ উদ্দেশ্য খেলাফত প্রশ্নে হুসাইন রাযি. এর হাতে তারা বাইয়াত দেবে৷ ইয়াযীদকে তারা খলিফা হিসেবে মেনে নিতে রাজি নয়৷ এদিকে নবী-দৌহিত্র জান্নাতি যুবকদের নেতা হুসাইন রাযি. সরলভাবে তাদের আমন্ত্রণ গ্রহণ করে কুফা অভিমুখে রওয়ানা দিতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ হলেন৷

অনেক সাহাবি সেখানকার অগ্নিগর্ভ অবস্থা এবং পরিণতির ভয়াবহতার কথা হুসাইন রাযি.কে বুঝিয়ে বললেও তিনি তাঁর সংকল্পে দৃঢ় রইলেন৷ এবং সদলবলে কুফা অভিমুখে রওয়ানা হলেন৷ পরের ইতিহাস সকলের জানা৷ কুফাবাসী তাদের কথা রাখল না৷ বিশ্বাস ভঙ্গ করে নবী-দৌহিত্রকে বিপদের মুখে ঠেলে দিলো৷ নির্ঘাত বিপদে পড়েও তিনি আপোস করলেন না৷ অন্যায়ের বিরুদ্ধে নিজেকে উৎসর্গ করলেন৷ শাহাদাতের অমিয় সুধা পান করে প্রিয়জনদের সঙ্গে মিলিত হলেন৷

হুসাইন রাযি. এর শাহাদাতের মাধ্যমে কী সব শেষ হয়ে গেলো? শাহাদাতের খুন কী এমনিতেই বৃথা যাবে? না, অন্যায়ের কাছে মাথা নত না করে, নিজের সংকল্পে দৃঢ় থেকে কিয়ামত পর্যন্ত অনাগত উম্মতের জন্যে অনুকরণীয় আদর্শ রেখে গেলেন তিনি৷ জালিম, অযোগ্য ও স্বেচ্ছাচারী শাসকের বিরুদ্ধে নিজের আপোসহীন সংগ্রামী ভূমিকা, মজলুম ও নিরীহ জনগণের স্বপক্ষে নিজের সাহসী ও নীতিগত অবস্থান কিয়ামত অবধি সকল মজলুম জনগণের জন্যে রয়ে গেলো এক অবিস্মরণীয় দুঃসাহসিক দৃষ্টান্ত৷ উম্মতের জন্যে প্রয়োজন ছিলো জালিমের জুলুম, ক্ষমতার অপব্যবহার, অন্যায়-অনিয়মের বিরুদ্ধে বুক টান করে দাঁড়াবার অপূর্ব শিক্ষার৷ সেই শিক্ষাই হযরত হুসাইন রাযি.এর আত্মত্যাগের মাধ্যমে উম্মত পেয়ে গেলো হাতেকলমে৷

ত্যাগের চরম পরাকাষ্ঠা প্রদর্শন করলেন হুসাইন রাযি.এর সঙ্গী-সাথীগণ

ইয়াযীদের সশস্ত্রবাহিনীর সঙ্গে হযরত হুসাইন রাযি.এর প্রায় নিরস্ত্রবাহিনীর যুদ্ধ অবধারিত হয়ে পড়ল৷ কিন্তু হুসাইন রা,এর সঙ্গী-সাথীগণ পিছপা হন নি একটুও৷ আত্মসমর্পনের তো প্রশ্নই আসে না৷ সবাই অসম সাহসের সঙ্গে লড়াই চালিয়ে গেলেন৷ কিন্তু একটি সুসজ্জিত সশস্ত্রবাহিনীর সঙ্গে পেরে ওঠার কথা নয়৷ বাস্তবেও তাই ঘটল৷ একে একে সবাই শহীদ হয়ে গেলেন৷ জীবনের শেষ রক্তবিন্দু থাকতেও হুসাইন রাযি.এর শরীরে একটা আঁচড় পড়তে দিলেন না তারা৷ আত্মত্যাগের কী অপূর্ব দৃষ্টান্ত! নবী-দৌহিত্রের প্রতি ভালোবাসার কী নজরানা পেশ করলেন তারা!

শির দেগা, নাহি দেগা আমামা

রয়ে গেলেন কেবল সাহসের মূর্ত প্রতীক হুসাইন রাযি.৷ একাই লড়াই চালিয়ে গেলেন৷ কিন্তু বিশাল একটি বাহিনীর সঙ্গী একা আর কত লড়াই করে টিকে থাকবেন? মৃত্যু অবধারিত দেখেও বীরত্বের চূড়ান্ত পরাকাষ্ঠা প্রদর্শন করে চললেন৷ ইয়াযীদ বাহিনীর কেউ সাহস করতে পারছে না৷ জান্নাতি যুবকদের এই নেতার মস্তকে কে আঘাত করবে? কে ধরাশায়ী করবে এই মহান বীরকে? পরিশেষে সীমার বিন যুল-জাওশান নামক নিকৃষ্ট এক ব্যক্তি হুসাইন রাযি.কে হত্যার জন্যে উদ্যত হয়। সে বর্শা দিয়ে হুসাইনের শরীরে আঘাত করে ধরাশায়ী করে ফেলে। তারপর ইয়াযীদ বাহিনীর সম্মিলিত আক্রমণে ৬১ হিজরীর মুহাররাম মাসের ১০ তারিখে আশুরার পবিত্র দিনে ৫৭ বছর বয়সে তিনি শাহাদাত অর্জনের সৌভাগ্য লাভ করেন।

কাউকে হত্যা করার নামই যদি বিজয় হতো, তাহলে ইয়াযীদ ও তার বাহিনীকে আজ দুনিয়াবাসী বিজয়ী হিসেবে স্মরণ করত৷ কিন্তু আজ তাদেরকে দুনিয়াবাসী নায়ক নয়, খলনায়ক হিসেবেই চিনে৷ অন্যায়ের সঙ্গে আপোস না করা ও নিজেকে উৎসর্গ করার জন্যে হুসাইন রাযি.কে দুনিয়াবাসী বিজয়ী বীর, আপোসহীন মহানায়ক হিসেবেই চিনে ও শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করে৷ রাযিয়াল্লাহু তাআলা আনহু!

লেখক : ইমাম ও খতিব : আম্বরখানা জামে মসজিদ, সিলেট।


সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin