মঙ্গলবার, ১১ মে ২০২১, ১০:২৩ পূর্বাহ্ন

কুলাউড়ায় জমে উঠেছে ঈদবাজার : স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা নেই

কুলাউড়ায় জমে উঠেছে ঈদবাজার : স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা নেই


শেয়ার বোতাম এখানে

আবদুল আহাদ, কুলাউড়া:

মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলা শহর ও উপজেলার বড় বড় বাজারগুলোতে স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা না করেই ধুমধামে চলছে ঈদের কেনাকাটা। খোদ শহরের অনেক শপিংমল ও দোকান গুলোতে নূন্যতম সামাজিক দূরত্ব বা স্বাস্থ্যবিধির নিয়ম মানা হচ্ছে না। আর শহরের বাইরের বাজারগুলোর অবস্থা দেখলে মনে হয়, সরকারী নির্দেশনার সামাজিক দূরত্ব বা স্বাস্থ্যবিধি নিয়মের কোন খবরই তারা জানেন না।
অথচ উপজেলা ও পুলিশ প্রশাসন এবং বিভিন্ন সংস্থার পক্ষ থেকে বারবার সচেতনতা মূলক বিজ্ঞপ্তি, মাইকিং করার পরও এগুলো আমলে নিচ্ছেন না ক্রেতা-বিক্রেতাসহ সাধারণ লোকজন।

জানা যায়, সরকারি নির্দেশনায় গত ১০ মে থেকে স্বল্প পরিসরে দোকান বা শপিংমল খোলার সিদ্ধান্ত দেয়া। কিন্তু সরকারি নির্দেশনার আগে থেকেই কতিপয় ব্যবসায়ী চুপিসারে দোকান খুলে ব্যবসা করে আসছেন । আর বর্তমানে নির্ধারিত সময়ের তোয়াক্কা না করেই ধুমধামে চালাচ্ছেন ব্যবসা। অনেকে রাত পর্যন্তও খোলা রেখে ব্যবসা করছেন। প্রশাসনিক কোন জোর তৎপরতা না থাকায় বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন গুটিকয়েক ব্যবসায়ী। তাছাড়া বেশিরভাগ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে কোনো প্রকার সচেতনতার তোয়াক্কা না করে ফ্রিস্টাইলে চলছে কেনাবেচা। অসচেতন নারী-পুরুষ শিশু সন্তানদের নিয়েই গা ঘেঁষাঘেঁষি করেই বাজার-সদাই করছেন। সেইসঙ্গে অটোরিকশাসহ অন্যান্য যানবাহনে চলাচল বৃদ্ধির ফলে যানজট বাড়ছে শহগুলোয়। এতে তৈরি হচ্ছে মারাত্মক করোনা ঝুঁকি।

এদিকে শহরের চৌমুহনীস্থ আরশদ ক্লথ স্টোরের স্বত্বাধিকারী ক্রেতা মহলের নিরাপত্তা ও করোনা ভাইরাস থেকে নিরাপদে থাকার জন্য নিজের প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করেছেন। একইভাবে আরও দু’একটি প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।
স্থানীয় সচেতন মহলের মতে, প্রশাসনের তরফ থেকে দায়সাড়া দায়িত্ব পালন করা হচ্ছে। কিছু দিনের মধ্যেই এর খেসারৎ দিতে হবে সবাইকে। কারো কথায় কান না দিয়ে দেশ ও মানুষের স্বার্থে প্রশাসনকে আরও কঠোর হওয়ার আহ্বান জানান তাঁরা।

মেসার্স সোনালী ষ্টোরের সত্ত্বাধিকারী বশির আহমদ, গ্রামীণ জুয়েলার্সের স্বত্বাধিকারী জাহাঙ্গীর আহমদসহ শহরের কয়েকজন ব্যবসায়ী বলেন, আমরা স্বাস্থ্য বিধি মেনে সীমিত পরিসরে দোকান খোলে ব্যবসা করছি। দোকানপাটে ক্রেতাদের যে হারে উপস্থিতি তাতে আমাদেরই ভয় হয়। তবে, নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দোকান ব্যতীত অন্যান্য শপিংমল ও দোকানপাট আরও কিছুদিন বন্ধ থাকলে সকলের জন্য ভালো হতো বলে মন্তব্যও করেন তাঁরা।

কুলাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নুরুল হক বলেন, সরকার সীমিত পরিসরে বিধিবিধান দিয়ে দোকান খোলার কথা বললেও এটা মানছেননা অনেকেই । যার ফলে ঝুঁকি আরও বেড়ে যাবে। তাই সরকারের দেয়া স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান করেন তিনি।

কুলাউড়া ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সভাপতি বদরুজ্জামান সজল বলেন, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের দৈনন্দিন জীবিকার কথা বিবেচনা করে খোলার সিদ্ধান্তকে ইতিবাচক মনে করছি। তবে সরকারের দেয়া বিধি নিষেধ না মানলে এটা কোনো অবস্থাতে মেনে নেয়া যাবে না। অবশ্যই সকল ব্যবসায়ীকে নির্দেশনা মেনে চলতে হবে।



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin