বুধবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২২, ০৫:৩৫ পূর্বাহ্ন


কুলাউড়ায় টানা খরায় পুড়ে ছাই ক্লিভডন বাগানের চা-গাছ

কুলাউড়ায় টানা খরায় পুড়ে ছাই ক্লিভডন বাগানের চা-গাছ


শেয়ার বোতাম এখানে

আব্দুল আহাদ, কুলাউড়া: চার মাসের অধিক সময় থেকে বৃষ্টিপাত না হওয়ায় এবং তীব্র দাবদাহে অধিকাংশ চায়ের কুঁড়িগুলো জ্বলে ছারখার হয়ে গেছে। বাকি যেগুলো ছিলো সেগুলোও লালচে হয়ে উঠেছে। ছেঁটে দেয়া চা-গাছের ডাল ও চারা গাছগুলো শুকিয়ে গেছে। অনেক চা-গাছ একেবারে মরে গেছে। হঠাৎ দেখলে মনে হবে কেউ আগুন লাগিয়ে জালিয়ে দিয়েছে। গতকাল সকালে এইআরসি’র মালিকানাধীন কুলাউড়া উপজেলার ক্লিভডন চা-বাগানে গেলে এমন দৃশ্য দেখা যায়।

দেশের বৃহত্তম এ চা-বাগান থেকে এবার চা উৎপাদনে বিপর্যয়ের আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা। এছাড়াও বাগানের বিভিন্ন বস্তির রিং টিউবওয়েল এবং ঠিলার ফাকে ফাকে থাকা ছড়াগুলোও শুকিয়ে ছারখার হয়ে যাওয়ায় তীব্র পানির সংঙ্কট দেখা দিয়েছে।

 

জানা যায়, টানা খরা ও তীব্র দাবদাহে জমির আর্দ্রতা হ্রাস পেয়ে পানিশূন্য হয়ে পড়ছে চা-সেকশনের মাটি। ফলে নতুন রোপিত চারা যেমন মরছে, তেমনি পরিণত চা-গাছের পাতাও ঝলসে গেছে। অনাবৃষ্টিজনিত শুষ্কতা চা-গাছের নতুন কুঁড়ি ফোটা বন্ধ করে দিয়েছে। সাধারণত ডিসেম্বরেই চা মৌসুম শেষ হয়। আর এ সময় চা-গাছের ডাল ছেঁটে দেয়া হয়। স্বাভাবিক উৎপাদনের জন্য মার্চে শুর হয় চায়ের কাঁচা পাতা আহরণ। এরজন্য ফেব্রুয়ারি থেকে এপ্রিল পর্যন্ত প্রচুর বৃষ্টিপাত প্রয়োজন। কিন্তু এবার এপ্রিলে এসেও বৃষ্টিপাত না হওয়ায় বাগানের হাজার হাজার চা-গাছ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বাগানের ২৪ টি চা-সেকশনের প্রায় ২৫ ভাগ চা-গাছ মরে গেছে।

বাগান ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ হাছিব মিয়া জানান, ক্লিভডন বাগানের চা আবাদের মোট আয়তন ৩৬৯.৬৪ হেক্টর। আবাদকৃত এলাকাকে ২৪ টি সেকশনে ভাগ করা হয়েছে। এরমধ্যে ১২টি সেকশনের চা-গাছ ৯৫ ভাগ ক্ষতিগ্রস্থ এবং বাকি ১২টি সেকশনে আংশিকভাবে ক্ষতি হয়েছে। সব সেকশন মিলিয়ে প্রায় ২৫ ভাগ চা-গাছ মারা গিয়েছে। বিগত ২০১৯ সালের ১৩ এপ্রিল পর্যন্ত ১৪.৬৩ ইঞ্চি পরিমান বৃষ্টিপাত হয়েছে। আর এবার এখন পর্যন্ত হয়েছে মাত্র ০.৭৩ ইঞ্চি পরিমান বৃষ্টিপাত।

তিনি আরও জানান, চলতি বছরের ১২ এপ্রিল পর্যন্ত মাত্র ১৪ হাজার ৩ শত ৯১ কেজি চা উত্তোলিত হয়েছে। অথচ ২০১৯ সালে একই সময়ে প্রায় ৮৭ হাজার এবং ২০১৬ সালে এপ্রিল পর্যন্ত এক লক্ষ ১০ হাজার কেজি চা উত্তোলিত হয় এই বাগান থেকে। গত বছরে প্রতিদিন ৬-৭ হাজার কেজি চা-পাতা উত্তোলিত হতো আর এবার মাত্র ৬-৭ শত কেজি চা-পাতা উত্তেলিত হচ্ছে। এছাড়াও বৃষ্টিপাত না হওয়ায় বিভিন্ন ধরনের রোগবালাই (লাল মাকড়, লিফরেলার, কেটার পিলার) দ্বারা আক্রান্ত হচ্ছে চা-গাছগুলো। এখনই প্রচুর বৃষ্টিপাতের প্রয়োজন, আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে যদি বেশি পরিমানে বৃষ্টিপাত না হয় তাহলে অধিকাংশ চা-গাছ মারা গিয়ে ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হবে কর্তৃপক্ষ।

 

 


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin