রবিবার, ০৭ মার্চ ২০২১, ১০:৫০ পূর্বাহ্ন

কে কে পাচ্ছেন সাহিত্যে নোবেল?

কে কে পাচ্ছেন সাহিত্যে নোবেল?


শেয়ার বোতাম এখানে

শরীফ আতিক-উজ-জামান

শিরোনামে ‘কে’র পরিবর্তে ‘কারা’ ব্যবহারের ব্যাখ্যা জরুরি। গত বছর সুইডিশ একাডেমি সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার প্রদান স্থগিত রেখেছিল। ২০১৮ ও ২০১৯ সালের বিজয়ীদের নাম একসঙ্গে ঘোষণা করা হবে বলে তখন জানানো হয়েছিল। যে অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল তা এই প্রতিষ্ঠানের জন্য যথেষ্ট বিব্রতকর। ২০১৭ সালের নভেম্বরে একটি পত্রিকায় প্রকাশিত একাডেমির সদস্য ক্যাটারিনা ফ্রস্টেনসনের স্বামী, সুইডেনের প্রভাবশালী সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও চিত্রগ্রাহক জাঁ ক্লদ আর্নল্টের আর্থিক ও যৌন কেলেঙ্কারি এবং কমপক্ষে সাতবার নোবেল পুরস্কার প্রাপকের নাম ঘোষণার আগেই ফাঁস করে দেওয়ার গুরুতর অভিযোগ প্রতিষ্ঠানটির মর্যাদা হুমকির মুখে ফেলে দিয়েছিল। ১৮ জন নারী তাঁর বিরুদ্ধে যৌন হয়রানি, ধর্ষণ ও শারীরিক নিগ্রহের অভিযোগ করেছেন, যার কিছু ঘটনা একাডেমির মালিকানাধীন একটি অ্যাপার্টমেন্টে ঘটেছে। আর্নল্ট-ফ্রস্টেনসন দম্পতি একটি সাংস্কৃতিক সংঘ চালান, যার আংশিক অর্থায়নও একাডেমি করে থাকে। এরই মধ্যে ২০১১ সালে সংঘঠিত একটি ধর্ষণ মামলায় তাঁর দুই বছরের জেল হয়েছে এবং ধর্ষণের শিকার ওই নারীকে আদালত ১০ হাজার পাউন্ড ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। একাডেমির নিজস্ব তদন্তেও আর্নল্টের বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগের সত্যতা মিলেছে। এর পরই তাঁরা একাডেমির ১৮ সদস্যের কমিটি থেকে ফ্রস্টেনসন ও সংস্থাপ্রধান প্রফেসর সারা দানিউসকে প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। একাডেমির বিধান অনুয়ায়ী সদস্যরা পদত্যাগ করতে পারেন না। তবে তাঁদের দায়িত্ব পালন থেকে বিরত রাখা যায়। গত বছর সাহিত্য পুরস্কার স্থগিত রাখার ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে নোবেল ফাউন্ডেশনের বোর্ড চেয়ারম্যান কার্ল হেনরিক হেলডিন সিদ্ধান্ত দিয়েছিলেন যে এ বছর একই সঙ্গে দুজন প্রাপকের নাম ঘোষণা করা হবে। সেই সূত্রে বিশ্বের সাহিত্যপ্রেমীরা এক বছরে দুজন নোবেল পুরস্কার প্রাপক সাহিত্যিকের নাম শোনার জন্য অপেক্ষা করে আছেন। মূলত সুইডিশ একাডেমি তাদের দীর্ঘ দিনের সুনাম অক্ষুণ্ন রাখার প্রচেষ্টা হিসেবে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কিন্তু কারা পাচ্ছেন এই পুরস্কার?

২০১৭ সালে নোবেল এশিয়ায় ছিল। জাপানের কাজুও ইশিগুরো পেয়েছিলেন বিশ্বের সম্মানজনক এই পুরস্কার। তবে  গেলবার সাহিত্যের নোবেল নাকি আফ্রিকায় যাচ্ছে বলে গুঞ্জন ছিল? আবার কেউ কেউ তা ২০১৬ সালের বিজয়ী দেশ আমেরিকার সীমান্ত পেরিয়ে পার্শ্ববর্তী কানাডায় যেতে পারে বলে মনে করছেন। আফ্রিকার এনগুগি ওয়া থিয়াঙ্গো ও কানাডার মার্গারেট অ্যাটউড সম্ভাবনায় প্রথম দিকে ছিলেন। থিয়াঙ্গো ২০১০ সালেও সম্ভাবনায় এগিয়ে ছিলেন; কিন্তু পেরুর মারিয়ো ভার্গাস য়োসা পেয়েছিলেন বিশ্বসাহিত্যের এই গুরুত্বপূর্ণ সম্মাননা। ২০১৩ সালেও ইংল্যান্ডের বাজিধরা কম্পানি ল্যাডব্রোকসের বাজির ঘোড়া ছিলেন কেনিয়ার এই খ্যাতিমান ঔপন্যাসিক-নাট্যকার। ওই বছর আরেকটি কম্পানি অ্যালেক্স ডোনোহিউও তাঁর পক্ষে জোরেশোরে কথা বলেছিল। কিন্তু কানাডার এলিস মুনরো সেবার জিতে নিয়েছিলেন সাহিত্যের সর্বশ্রেষ্ঠ এই বৈশ্বিক সম্মাননা। Weep Not Child, A Grain of Wheat, I Will Marry When I Want, Devil on the Cross ইত্যাদি সাড়াজাগানো গ্রন্থের লেখক থিয়াঙ্গোকে নোবেলপ্রাপ্তির ক্ষেত্রে এগিয়ে রেখেছেন অনেকে। হয়তো গত বছরের বিজয়ী হিসেবে তাঁর নাম এ বছরের বিজয়ীর সঙ্গে ঘোষিত হতে পারে।

গতবার জাপানের হারুকি মুরাকামির নামও শোনা গেছে; কিন্তু পরপর দুবার একই দেশে সাহিত্যের নোবেল যাওয়ার নজির নেই। ফলে তাঁর সম্ভাবনা শূন্যের কোটায় বলা চলে। ২০১২ সালেও তিনি সম্ভাব্য বিজয়ী তালিকার শীর্ষে ছিলেন। ওই বছর তিনি হেরেছিলেন চীনা ঔপন্যাসিক মো ইয়ানের কাছে। ১৯৯৪ সালে কেনজাবুরো ওয়ে জাপানি লেখক হিসেবে শেষবার নোবেল পুরস্কার জেতার পর ২০১৭ সালে কাজুও ইশিগুরোর হাত ধরে তা আবার জাপানে ফিরেছে। সহসা কোনো জাপানির আর নোবেল পাওয়ার সম্ভাবনা নেই বলেই মনে হয়।

৮০ বছর বয়সী কানাডার মার্গারেট অ্যাটউড (জন্ম ১৮ নভেম্বর ১৯৩৯) বাজিতে প্রথম সারিতে ছিলেন। কবি-ঔপন্যাসিক-প্রাবন্ধিক অ্যাটউডের ঝুলিতে ম্যান বুকারসহ বেশ কিছু সম্মানজনক পুরস্কার রয়েছে। The Circle Game (1966), The Handmaid’s Tale (1985), The Blind Assassin (2000), The Tent (2006), Madd Addam (2013) ইত্যাদি তাঁর উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ। তাঁর বেশ কয়েকটি উপন্যাস নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মিত হয়েছে। তাঁর স্বদেশি এলিস মুনরো ছয় বছর আগেই নোবেল পেয়েছেন। এত দ্রুত তা কি আবার কানাডায় ফিরে যাবে? গত বছরের অঘোষিত বিজয়ী তিনি কি না আমরা জানি না, তবে এ বছর তিনি বেশ পিছিয়ে।

২০১৯ সালে বেটিং হাউসগুলো যাদের নিয়ে বাজি ধরেছে, প্রথম সারির সেই লেখকরা প্রায় সবাই নারী ও বিশ্বসাহিত্য অঙ্গনে অপরিচিত নাম। তালিকার প্রথম নামটি অ্যানি কারসনের (জন্ম ২১ জুন ১৯৫০) যিনি কানাডার সাহিত্যিক। স্বদেশি মার্গারেট অ্যাটউড এবং বিশ্বের অন্য খ্যাতিমান লেখকদের ডিঙিয়ে এবার তাঁর নাম সবার আগে উচ্চারিত হওয়াটা বেশ কৌতূহলোদ্দীপক। ম্যাকগিল, প্রিন্সটন, অ্যামোরি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ানোর অভিজ্ঞতাসম্পন্ন এই লেখক নামি কোনো সাহিত্য পুরস্কার পাননি। গ্রিক ভাষায় দক্ষতা তাঁকে ধ্রুপদি সাহিত্যের পঠন-পাঠনে আগ্রহী করে তোলে। মূলত কবি হলেও কারসন অনুবাদও করেছেন। তাঁর কবিতা সম্পর্কে সমালোচকরা উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেছেন।

দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন দক্ষিণ ক্যারাবীয় সমুদ্রে ফ্রান্সের উপনিবেশ গুয়াডিলোপে জন্মগ্রহণকারী ঔপন্যাসিক মেরিসে কনডি (জন্ম ১১ ফেব্রুয়ারি, ১৯৩৪)। ১১ বছর বয়সে প্রথম উপন্যাস লিখেছিলেন। ঘানা, সেনেগাল ও প্যারিসের সোরবোনে পড়াশোনা করা কনডি গত বছর নোবেলের বিকল্প হিসেবে প্রবর্তিত ‘দ্য নিউ একাডেমি প্রাইজ’ জিতেছিলেন। এ বছর তিনি বিবেচনায় প্রথমদিকে আছেন।

তৃতীয় নামটি হলো চীনের ডেঙ ঝিয়াওহুয়া। চাংশা (Can Xue) ছদ্মনামে তিনি লিখে থাকেন। চীনা ভাষায় চাংশা শব্দের অর্থ হলো একাধারে নোংরা বরফ, যা গলে যেতে অস্বীকার করে এবং সুউচ্চ পাহাড়ের ওপর বিশুদ্ধ বরফ। ১৯৫৩ সালে হুনান প্রদেশের যে শহরে তিনি জন্ম নিয়েছিলেন, তার নামও চাংশা। ২০০১ সাল পর্যন্ত তিনি সেখানেই বসবাস করতেন। তারপর বেইজিং চলে আসেন। তাঁর পিতা ছিলেন New Hunan Daily News পত্রিকার সম্পাদক। ১৯৫৭ সালে বামপন্থী সরকার তাঁকে উগ্র দক্ষিণপন্থী হিসেবে চিহ্নিত করে চাকরিচ্যুত করে বাধ্যতামূলক কায়িক পরিশ্রমের মাধ্যমে সংশোধনের সুযোগ দেয়। একই পত্রিকায় কর্মরত তাঁর মাকেও দূরবর্তী গ্রামে একই কাজে বাধ্য করা হয়। পারিবারিক এই বিপর্যয় তাঁর শিক্ষার ক্ষেত্রে বড় রকমের প্রতিবন্ধকতার কারণ হয়েছিল। কোনো রকমে স্নাতক ডিগ্রি অর্জনে সক্ষম হন তিনি। স্বশিক্ষিত লেখক চাংশা মূলত কবি ও কথাসাহিত্যিক। ধ্রুপদী পাশ্চাত্য ও রুশ সাহিত্য তাঁর প্রিয়। ১৯১২ সালে মো ইয়ান নোবেল জিতেছিলেন। ২০১৯ সালে তা আবার চিনে ফিরে আসতে পারে বলে অনেকের ধারণা।

মেরিলিন রবিনসন বাজিকরদের অষ্টম পছন্দ। আমেরিকার এই নারী লেখক জন্মেছিলেন ১৯৪৩ সালের ২৬ নভেম্বর।  Lila, Home, Housekeeping, Gilead, What Are We Doing Here প্রভৃতি গ্রন্থের লেখকের ঝুলিতে পুলিত্জার পুরস্কার রয়েছে। কিন্তু আমেরিকায় জয়েস ক্যারোল ওটসের মতো লেখক রয়েছেন। তাঁকে ডিঙিয়ে এই পুরস্কার পাওয়া তাঁর জন্য খুব সহজ হবে না।

পোল্যান্ডের ওলগা তোকারচুক বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত ও বাণিজ্যিকভাবে সফল একজন সাহিত্যিক। ১৯৬২ সালের ২৯ জানুয়ারি জন্মগ্রহণকারী তোকারচুক নোবেলপ্রাপ্তির সম্ভাবনায় রয়েছেন| Flights?; The Books of Jacob তাঁর উল্লেখযোগ্য রচনা। অস্ট্রেলিয়ার গেরাল্ড মুরনান এসেছেন আলোচনায়। ৮০ বছর বয়সী মুরনান মেলবোর্নের ভিক্টোরিয়া কলেজে সৃজনশীল সাহিত্য পড়ান। Tamarisk Row, A Lifetime on Clouds, The Plains, Landscape with Landscape, Inland, Emerald Blue তাঁর উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ। উত্তরাধুনিক ঘরানার লেখক হিসেবে তাঁর পরিচিতি রয়েছে। কিন্তু তাঁর কপালে শিকে ছিঁড়বে কি না একমাত্র সময়ই বলতে পারবে।

লুডমিলা উলিৎসকায়া এই সময়ের সবচেয়ে বেশি প্রশংসিত রুশ কথাসাহিত্যিক। ১৯৪৩ সালে জন্মগ্রহণকারী এই নারী লেখক মস্কোয় বেড়ে উঠেছেন। জীববিজ্ঞান, অনুপ্রাণ বিজ্ঞান ও প্রাণরসায়নে অধ্যয়ন করে সাহিত্যের জগতে এসেছেন তিনি। চলচ্চিত্রের চিত্রনাট্যও লিখেছেন। ষাটের দশকে ভিন্নমতের কারণে রাশিয়ার বামপন্থী সরকার তাঁকে গবেষণার চাকরি থেকে সরিয়ে দেয়। আর তখন থেকেই তিনি সাহিত্যকে অবলম্বন করে এগোতে থাকেন। বিজ্ঞানীরা বেশি স্বাধীন এমন ধারণা তাঁর ভেঙে গেছিল চাকরি হারানোর পর। Daniel Stein, Interpreter তাঁর হলোকাস্ট-বিষয়ক উপন্যাস। ইহুদি, খ্রিস্ট ও ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের মধ্যে সম্মিলন প্রত্যাশী এই লেখকের আরো উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ হলো Sonechka, The Funeral Party, Medea and Her Children ইত্যাদি। তাঁর হাত ধরে নোবেল রাশিয়ায় গেলে খুব অবাক হওয়ার কিছু নেই।

নিকারাগুয়ার পাদ্রি কবি আরনেস্টো কার্ডেনাল এবার নোবেলের আলোচনায় আছেন। রুবেন দারিয়োর পরে তাঁকেই নিকারাগুয়ার সবচেয়ে শক্তিশালী কবি মনে করা হয়। ৯৪ বছর বয়সী এই কবি যুগপৎ প্রেম ও দ্রোহের কবিতা লিখেছেন। সোমোজা শাসনামলে নিকারাগুয়ায় যে সন্ত্রাস ও আমেরিকার সাম্রাজ্যবাদী চরিত্রের প্রতিবাদ করেছেন তিনি তাঁর কাব্যে। তাঁকে নিয়ে অনেকে স্বপ্ন দেখছেন।

ইতালির ক্লডিও ম্যাগরিস (জন্ম ১০ এপ্রিল ১৯৩৯) গতবারের চেয়ে বেশ এগিয়ে আছেন। তাঁর সম্ভাবনা রয়েছে বলে অনেকের ধারণা। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ে জার্মান সাহিত্য পড়ান, পত্রিকায় কলাম লেখেন এবং রাজনীতিতে সক্রিয়। ১৯৯৪-১৯৯৬ সাল পর্যন্ত সিনেট সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। Blindly ও Danubio (1986) তাঁর সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য কাজ। Danubio-এ হারানো ইয়োরোপ নিয়ে হাহাকার প্রকাশ পেয়েছে। তিনি অস্ট্রিয়া, ফ্রান্স, জার্মানি, স্পেনের নামি সাহিত্য পুরস্কার লাভ করেছেন।

স্পেনের জেভিয়ার মারিয়াস (জন্ম ১৯৫১) প্রথমদিকে মধ্যে রয়েছেন।  মাদ্রিদে জন্মগ্রহণকারী এই লেখক খুব অল্প বয়স থেকেই লেখালেখি শুরু করেছেন। All Souls, A Heart So White, Tomorrow in the Battle Think on Me, Your Face Tomorrow তাঁর উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ।

সিরিয়ার অ্যাডোনিসকে (আলি আহমেদ সাঈদ) ২০১১ সালে নিশ্চিত বিজয়ী মনে করেছিলেন অনেকে। কিন্তু সে বছর টমাস ট্রান্সটুমার পেয়েছিলেন সাহিত্যের এই সম্মানজনক পুরস্কার। ৯৩ বছর বয়সী সিরিয়ার এই কবি আরববিশ্বের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কবি হিসেবে বিবেচিত। জন্ম সিরিয়ায়; কিন্তু দীর্ঘ সময় তিনি লেবাননে অভিবাসী জীবন কাটিয়েছেন। দামেস্ক, ফ্রান্স, আমেরিকার বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে আরবি কবিতা বিষয়ে পাঠদানকারী অ্যাডোনিসের নাম প্রতিবাদ, বিদ্রোহ, প্রগতি ও আধুনিকতার সমার্থক হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছে। অ্যাডোনিস কি আরবি সাহিত্যের জন্য এই সম্মাননা বয়ে আনতে পারবেন? নাকি মাহমুদ দারবিশের মতো চির-উপেক্ষিত থেকে না-ফেরার দেশে চলে যাবেন, যেভাবে চলে গেছেন কার্লোস ফুয়েন্তেস ও চিনুয়া আচেবের মতো লেখকরা? কী হবে চেক প্রজাতন্ত্রের মিলন কুন্ডেরার? এক দশক আগেই যাঁর নোবেল পাওয়ার কথা, তিনি ৮৯ বছর বয়সে এসে কি পাবেন সেই সম্মাননা? নাকি তাঁকে একেবারেই বাদের তালিকায় ফেলে দেওয়া হয়েছে? কারণ ল্যাডব্রোকসের তালিকায় তিনি অনেক নিচের দিকে রয়েছেন।

কয়েক বছর আগে ম্যানবুকার বিজয়ী আলবেনিয়ার লেখক ইসমাইল কাদেরেও এই সম্মানের যোগ্য দাবিদার। বিশ্বের ৪০টি ভাষায় তাঁর লেখনী অনূদিত ও প্রশংসিত হয়েছে। The Castle, The Pyramid, Broken April-এর মতো বইয়ের লেখকের সম্ভাবনা বাজির দরে ষষ্ঠ স্থানে। নরওয়ের নাট্যকার জন ফসির নাম শোনা যাচ্ছে এবং বাজিকরদের তালিকায় তিনি ওপরের দিকেই আছেন। তিনি তিন বছর আগে প্রথম মনোনয়ন পেয়েছেন; কিন্তু বয়স ফসির জন্য একটা বাধা হতে পারে। ৬১ বছর বয়সে তিনি কি পাবেন এই পুরস্কার? যদিও রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ৫৩ বছর ও মো ইয়ান ৫২ বছর বয়সে এই পুরস্কার পেয়েছিলেন।

প্রধানত কবি, তবে উপন্যাস, ট্রাভেলগ, আত্মজীবনী মিলিয়ে ১৪০টির মতো বইয়ের লেখক দক্ষিণ কোরিয়ার কো উন অনেক দিন ধরেই বিশ্বের প্রতিনিধিত্বশীল লেখক। তাঁর সম্ভাবনাকেও কেউ কেউ উড়িয়ে দিচ্ছেন না। অস্ট্রিয়ার লেখক পিটার হান্দকেও আছেন এই তালিকায়। তাঁর নাম শোনা গেলেও তাঁকে ঘিরে থাকা বিতর্ক তাঁর পুরস্কারপ্রাপ্তির পথে অন্তরায় হতে পারে। যুগোস্লাভ যুদ্ধে সার্বরা সহিংসতার শিকার হচ্ছে বলে তিনি বিস্তর লেখালেখি করেছেন। সেই কারণে আন্তর্জাতিক অপরাধী ট্রাইব্যুনালে বিচার চলার সময় মিলোসেভিচ তাঁকে সাক্ষী হিসেবে তলবের অনুরোধ জানিয়েছিলেন, যদিও হান্দকে সাক্ষী হতে অস্বীকৃতি জানান। আবার আরেক লেখায় তিনি দাবি করেছিলেন যে মুসলিমরা নিজেরাই খুনখারাবি করে সার্বদের ঘাড়ে দায় চাপায়। মানবতার বিরুদ্ধে যারা অপরাধ করেছে, তাদের এভাবে আড়াল করার প্রচেষ্টা বিশ্বমানের একজন লেখকের নৈকিতাকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। তাঁকে নোবেল দিলে এই পুরস্কারের মর্যাদা ক্ষুণ্ন হবে বলেই অনেকে মনে করেন।

প্রতিবছর আগস্ট মাস এলেই সম্ভাব্য নোবেল বিজয়ী নিয়ে সাহিত্যপ্রেমীদের মধ্যে জল্পনা-কল্পনা শুরু হয়ে যায়। অনলাইনেও পাঠকরা পছন্দের লেখকের পক্ষে জোরালো যুক্তি উপস্থাপন করে থাকেন। ব্রিটিশ বেটিং হাউস ল্যাডব্রোকস, নাইসারঅডস বা অ্যালেক্স ডোনাহিউ পছন্দের লেখকের পক্ষে বাজি ধরে। কখনো কখনো তা মিলেও যায়। যেমন—২০১৫ সালে ল্যাডব্রোকস ইউক্রেনের লেখক সোভেত্লানা এলেক্সিয়েভিচের পক্ষে বাজি ধরেছিল। তিনি নোবেল পেয়েছিলেন। ২০১৪ সালে প্রথম তাঁর হয়ে Ural Federal University নোবেল কমিটির কাছে মনোনয়ন দাখিল করে। সেবার তেমন কোনো সম্ভাবনা না জাগাতে পারলেও ২০১৫-তে বাজির দরে একেবারে শীর্ষে অবস্থান নিয়ে দ্বিতীয় বছরেই তিনি নোবেল জিতে নেন, যা বেশ ব্যতিক্রমী দৃষ্টান্ত। যদিও তিনি নিজে মুরাকামির পক্ষে ছিলেন।

নোবেলের জোরালো দাবিদার তিনি, তবে ৮২ বছর বয়সী আরেক ন্যাশনাল বুক অ্যাওয়ার্ড পাওয়া ক্যারোল ওটসের এবার তেমন সম্ভাবনা নেই। কারণ স্বল্প বিরতিতে সাহিত্যের নোবেল একই দেশে যাওয়ার নজির নেই।

এবার তালিকায় প্রচুর স্বল্প পরিচিত লেখকের নাম দেখা যাচ্ছে। দুই বছর ম্যানবুকার পাওয়ার পর সাহিত্যপ্রেমীদের নজরে পড়া হাঙ্গেরির ঔপন্যাসিক ল্যাজলো ক্র্যাজনাহোরকাই, নরওয়ের অনুগল্প রচনায় বিশেষ খ্যাতি অর্জনকারী ৯১ বছর বয়সী লেখক জেল এসকালজেন ও ম্যানবুকার জয়ী ফ্রান্সের নারী লেখক এ এস বাইয়াতের নামও কেউ কেউ বলছেন। এ ছাড়াও পোলান্ডের অ্যাডাম জাগাজেভস্কির নাম শোনা যাচ্ছে। সিমবোরস্কার পর তিনি কি পারবেন পোল্যান্ডে এই পুরস্কার ফিরিয়ে নিয়ে যেতে? রোমানিয়ার লেখক মিরতিয়া কারতারেস্কু গতবারের মতো এবারও তালিকায় আছেন, সম্ভাবনায় নয়। ডাচ লেখক সিজ নুটিবুমের (কর্নেলিস জোহান্স জ্যাকোবাস মারিয়া নুটিবুম) ক্ষেত্রেও একই কথা খাটে। সোমালিয়ার নুরুদ্দিন ফারাহ ২০১৮ সালে জোরালো দাবিদার ছিলেন, এ বছর তাঁর নাম বেশ নিচে।

অক্টোবর মাসের দ্বিতীয় বৃহস্পতিবার সাহিত্যে নোবেল বিজয়ীর নাম ঘোষণা করার আগে সাহিত্যরসিকদের মধ্যে নানা প্রকার জল্পনা-কল্পনা চলতে থাকবে। তাঁদের অনুমান কখনো কখনো মিলে গেলেও অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায় সবার ধারণাকে মিথ্যে প্রমাণ করে অখ্যাত কারো মাথায় উঠে গেছে বিশ্বের সবচেয়ে সম্মানজনক এই পুরস্কারের মুকুটটি। সাহিত্যরসিকদের মনঃপূত না হলেও নতুন লেখককে জানার আগ্রহ তৈরি করে এই সম্মাননা। অনেকের মতো সেই নামটি জানার জন্য আমরাও উদগ্রীব হয়ে রইলাম।



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin