বৃহস্পতিবার, ০৬ মে ২০২১, ০৭:১০ পূর্বাহ্ন

কোম্পানীগঞ্জে ট্রাফিক পুলিশের বাধা: ৮টি যানবাহনকে মামলা

কোম্পানীগঞ্জে ট্রাফিক পুলিশের বাধা: ৮টি যানবাহনকে মামলা


শেয়ার বোতাম এখানে

কম্পানিগঞ্জ প্রতিনিধি:
করোনাভাইরাস প্রতিরোধের লক্ষ্যে গঠিত সিলেট জেলা কমিটির সিদ্ধান্তেতকাল শনিবার বিকেলে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাত সিলেট জেলাকে লকডাউন ঘোষণা করে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়।

আন্তঃউপজেলার ক্ষেত্রেও যানচলাচলেরও বন্ধের আদেশ দেয়া হয়। ফলে করোনাভাইরাসে সংক্রমণ প্রতিরোধে লকডাউন ঘোষণার প্রথম দিনে সরকারি আদেশ অমান্য কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার প্রবেশ পথে কঠোর অবস্থানে রয়েছে ট্রাফিক পুলিশ।

রোববার (১২ এপ্রিল) সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ২টি প্রবেশ পথ দিয়ে কোন যানবাহন উপজেলায় প্রবেশ কিংবা বের হতে দেয়নি ট্রাফিক পুলিশের টিম। জরুরী প্রয়োজন ছাড়া যাত্রীবাহী যানবাহন লকডাউন অমান্য করে রাস্তায় বের হলে তাদের গাড়ীতে থাকা যাত্রীদের নামিয়ে নিজ নিজ ঘরে ফিরিয়ে দেন পুলিশ সদস্যরা।

জরুরী সেবায় নিয়োজিত ব্যাক্তি ও যানবাহন ছাড়া সব কিছুর চলাচল পুরোপুরি বন্ধ করে দিয়েছেন ট্রাফিক পুলিশ। জরুরী প্রয়োজন ছাড়া যেসব ব্যাক্তি ও যানবাহন রাস্তায় বাহির হয়েছেন তাদেরকে আটকিয়ে সরকারি সকল আদেশ মেনে চলার এবং বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে না আসার শপথ বাক্য পাঠ করিয়ে লকডাউন মেনে চলার অনুরোধ জানান কোম্পানীগঞ্জ ট্রাফিক শাখার ইনচার্জ সার্জেন্ট সঞ্জয় দাস।

এসময় বিনা প্রযোজনে যানবাহন নিয়ে বের হওয়ার জন্য ৮টি যানবাহনকে মামলা দায়ের করেন তিনি। এসময় তার সহযোগীতায় কোম্পানীগঞ্জ থানার একটি টিম সাথে ছিল।

কোম্পানীগঞ্জ ট্রাফিক শাখার ইনচার্জ সার্জেন্ট সঞ্জয় দাস জানান, সরকারি নির্দেশনায় আমরা উপজেলার প্রবেশ পথে কঠোর অবস্থানে থেকে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছি। জরুরী সেবার আওতায় থাকা ঔষধ, খাদ্য, জরুরী পণ্য পরিবহন, অ্যাম্বুলেন্স ছাড়া অন্য কোন যানবাহন উপজেলায় ঢুকতে এবং বের হতে দেওয়া হচ্ছে না।

উল্লেখ্য, পুরো ঝুঁকিতে এখন সিলেট। উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়।১২ এপ্রিল রোববার সুনামগঞ্জে একজন মহিলা করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। ১১ এপ্রিল শনিবার হবিগঞ্জে নতুন করে একজন করোনা রোগী সনাক্ত হওয়ার পর সিলেট অঞ্চলে এই নিয়ে ছড়িয়ে পড়ে আতঙ্ক। এর আগে মৌলভীবাজারেও করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা যান একজন মুদি দোকানী। মৃত্যুর পর ওই রোগীর রিপোর্ট আসে পজেটিভ।

৫ এপ্রিল সিলেট নগরীতে করোনায় আক্রান্ত হন একজন চিকিৎসক। তিনি ওসমানী মেডিকেলের সহকারী অধ্যাপক এবং নগরীর হাউজিং এস্ট্রেট এলাকার বাসিন্দা। বর্তমানে ওই চিকিৎসক রাজধানীর কুর্মিটুলায় চিকিৎসাধীন আছেন এবং তাঁর শারীরিক অবস্থা অপরিবর্তিত বলে জানিয়েছেন পরিবার ঘণিষ্ট একটি সুত্র। সবমিলিয়ে সিলেট বিভাগে করোনা রোগী সনাক্ত হলেন চারজন। এর মধ্যে একজন মারা গেলেও অপর তিনজন রয়েছেন চিকিৎসাধীন।



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin