বৃহস্পতিবার, ১৭ Jun ২০২১, ০২:২৪ অপরাহ্ন

কোম্পানীগঞ্জে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ খেলা শেষ হলেও বরাদ্দকৃত টাকা পায়নি কোনো দলই

কোম্পানীগঞ্জে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ খেলা শেষ হলেও বরাদ্দকৃত টাকা পায়নি কোনো দলই


শেয়ার বোতাম এখানে

স্টাফ রিপোর্টার:
সিলেটের কোম্পানীগঞ্জে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট (অনুর্ধ-১৭) ২০১৯ শেষ হলেও সরকারি বরাদ্দের টাকা কোনো দল এখনো পায়নি। এনিয়ে দলগুলোর কর্মকর্তা ও খেলোয়াড়দের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। অভিযোগ উঠেছে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা খেলোয়াড়দের ভ্রমণ ভাতা দিতে গড়িমশি করছেন।

জানা গেছে, উপজেলা পর্যায়ে ৬ টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত অংশগ্রহণকারী ৬ টি টিমের মধ্যে অনুষ্ঠিত খেলায চ্যাম্পিয়ন ও রানার্সআপসহ কোনো দলের খেলোয়াড়, কোচ, ম্যানেজার, রেফারী কাউকেই কোনো টিএডিএ বা সম্মানি দেওয়া হয়নি। এ নিয়ে উপজেলার ক্রিড়াঙ্গনে তুমুল হইচই ও চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট বালক (অনুর্ধ্ব-১৭) ২০১৯ আয়োজনের ব্যয় বাবদ বিভাজন ও শর্ত অনুযায়ী সিলেট বিভাগের ৪টি জেলায় ৮০ লক্ষ ২২ হাজার টাকা বরাদ্দ দিয়েছে যুব ও ক্রিড়া মন্ত্রণালয়।

গত ১ সেপ্টেম্বর থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট শুরু হয়। সারাদেশের ন্যায় কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় পাড়ুয়া আনোয়ারা উচ্চবিদ্যালয় ও কলেজ মাঠে গত ৭ সেপ্টেম্বর এ খেলার উদ্বোধনী ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত খেলায় উপজেলার ৬ টি ইউনিয়ন থেকে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানগণ খেলোয়াড় বাছাই করে ৬ টি দল গঠন করেন। ৬টি দলের মধ্যে প্রথম রাউন্ডে ৩টি খেলা অনুিষ্ঠত হয়। পরবর্তীতে ৩ টি বিজয়ী টিমের মধ্যে লটারির মাধ্যমে ২টি টিমের সেমিফাইনাল অনুষ্ঠিত হয়।

গত (১৩ সেপ্টেম্বর) শুক্রবার পশ্চিম ও পূর্ব ইসলামপুর ইউনিয়ন দলের মধ্যে ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হয়। খেলায় পূর্ব ইসলামপুর চ্যাম্পিয়ন ও পশ্চিম ইসলামপুর রানার্স-আপ হয়। ওইদিন বিকেলে পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে সিলেটের অতিরিক্ত জেলা প্রধান প্রশাসক (রাজস্ব) নাসিরুল্লাহ খান উপস্থিত থেকে বিজয়ী চ্যাম্পিয়ন ও রানার্স-আপ দলের অধিনায়কদের হাতে ট্রফি ও ৩০ এবং ১৫ হাজার নমুনা চেক তুলে দেন। কিন্তু টুর্নামেন্ট শেষ হওয়ার ৩ দিনদিন পেরিয়ে গেলেও কোনো টাকা পায় নি দুইদল। এছাড়া খেলায় অংশগ্রহণকারী ৬টি টিমের খেলোয়াড়, কোচ, ম্যানেজার, রেফারী কাউকেই কোনো টিএডিএ বা সম্মানি দেওয়া হয়নি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় টুর্ণামেন্টের পুরষ্কার, প্রচার ও বিজ্ঞাপন, খেলোয়াড়দের ভ্রমণ ব্যয়, ক্রিড়াসামগ্রী, অনুষ্ঠান উৎসবাদী বাবদ মোট ১ লাখ ৩৭ হাজার ৮৫০ টাকা যুব ও ক্রিড়া মন্ত্রণালয় থেকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে বরাদ্দ আসে। বরাদ্দের বাইরে নির্বাহী কর্মকর্তা অর্থ সংকট দেখিয়ে উপজেলার বিভিন্ন বিত্তশালী ব্যক্তি ও সংগঠন থেকে আরো লক্ষাধিক টাকা চাঁদা উত্তোলন করেন।

সরকারি বরাদ্দের টাকা ও উত্তোলিত চাঁদার টাকা সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী খেলায় অংশগ্রহণকারী দলের খেলোয়াড়, কোচ, ম্যানেজার, রেফারী কাউকেই কোনো টিএডিএ বা সম্মানি না দিয়ে সম্পূর্ণ টাকা আত্মসাৎ করা হয়েছে বলে অভিযোগ তুলেছে বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, খেলোয়াড়, কোচ, ম্যানেজারসহ সংশ্লিষ্টরা।

খেলা সমাপ্তির ৩ দিন পেরিয়ে গেলেও সংশ্লিষ্ট কাউকেই বরাদ্দকৃত অর্থ থেকে কোনো অর্থ না দেয়ায় উপজেলাব্যাপী তুমুল আলোচনা-সমালোচনা চলছে।

এদিকে, পার্শবর্তী গোয়াইনঘাট উপজেলায় অংশগ্রহণকারী বিভিন্ন টিমের খেলোয়াড় ও সংশ্লিষ্ট কয়েকজনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা জানান, প্রতিটি খেলায় অংশগ্রহণকারী বিজিত দলকে ১০ হাজার টাকা ও পরাজিত টিমকে ৮ হাজার টাকা করে সম্মানি দেওয়া হয়েছে। চ্যাম্পিয়ন দলকে ৩০ হাজার টাকার নগদ প্রাইজমানি ও রানার্স আপ দলকে ১৫ হাজার টাকার নগদ প্রাইজমানি প্রদান করা হয়েছে।

এছাড়াও খেলা পরিচালনাকারী রেফারী ও জাজম্যান এবং মিডিয়া কর্মীদেরও যাতায়াত খরচ নগদ সম্মানি দেওয়া হয়েছে। গোয়াইনঘাট প্রেসক্লাবের সভাপতি মোহাম্মদ আব্দুল মতিন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এ বিষয়ে পশ্চিম ইসলামপুর ইউনিয়ন দলের ম্যানেজার মুজিবুর রহমান মেম্বার জানান, পশ্চিম ইসলামপুর দল রানার্স-আপ হয়েছে। ১৫ হাজার টাকার নমুনা চেক দেওয়া হয়েছে। কিন্তু কোনো টাকা দেওয়া হয়নি।

উপজেলা ক্রিড়া সংস্থার কোষাধ্যক্ষ রাসেল আহমদ জানান, চ্যাম্পিয়ান ও রানার্স-আপ দলকে নমুনা চেক দেওয়া হয়েছে। শুক্রবার থাকায় নগদ টাকা দেওয়া হয়নি। এ নিয়ে চেয়ারম্যানরা যোগাযোগ করলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বলেছেন পরবর্তীতে সবার টাকা দেওয়া হবে।

পূর্ব ইসলামপুর ইউপি চেয়ারম্যান বাবুল মিয়ার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট (অনুর্ধ-১৭) সদ্য সমাপ্ত টুর্নামেন্টে পূর্ব ইসলামপুর ইউপি চ্যাম্পিয়ান হয়। চ্যাম্পিয়ান ট্রফি ও ৩০ হাজার টাকার নমুনা চেক দেওয়া হলেও নগদ কোনো টাকা বা চেক দেওয়া হয়নি। এ নিয়ে কথা বললে তারা পরে দিবেন বলে জানান। এতে করে খেলোয়াড়সহ ইউনিয়নবাসী ক্ষুব্দ রয়েছেন।

এ বিষয়ে জানতে উপজেলা ক্রিড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মো. মাহফুজুর রহমান জানান, প্রত্যেক দল ও খেলোয়াড়কে সম্মানী, চ্যাম্পিয়ান-রানার্স-আপ দলকে কোনো নগদ টাকা দেয়া হয়নি। বলা হয়েছে পরবর্তীতে বসে টাকা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। বিষয়টি সম্পূর্ণ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার এখতিয়ার বলে জানান তিনি।

পশ্চিম ইসলামপুর ইউপি চেয়ারম্যান শাহ মোহাম্মদ জামাল উদ্দিন শুভ প্রতিদিনকে বলেন, গত বছর টুর্ণামেন্ট চলাকালীন প্রত্যেক দলকে প্রতিদিনের খরচ নগদ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এবছর এখন পর্যন্ত কোনো টাকা না দেয়ায় সবকটি ইউনিয়নের খেলোয়াড় ও ক্রিড়ামোদিরা বেশ ক্ষুব্দ রয়েছেন। ইউপি চেয়ারম্যানদের সম্মতিতেই এমনটা হয়েছে ইউএনও’র এমন মন্তব্যে তিনি বলেন, এ বিষয়ে আমাদের সাথে কোনো আলোচনা করা হয়নি। এমনকি কত টাকা বরাদ্দ এসেছে তাও তিনি জানান নি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর নামের টুর্ণামেন্টের এমন কার্যক্রম বঙ্গবন্ধু ও বর্তমান সরকারের ভাবমুর্তি নষ্ট হচ্ছে জানিয়ে তিনি বিষয়টি তদন্ত করার জন্য সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের প্রতি দাবি জানান।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিজেন ব্যানার্জি শুভ প্রতিদিনকে বলেন, সকল চেয়ারম্যানদের সম্মতিতেই কোনো দল বা কাউকে কোনো টাকা দেওয়া হয়নি। টাকা এখনো উত্তলন করা হয়নি। টুর্ণামেন্ট শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত নিজের পকেট থেকেই সব ব্যয় করেছি। তাছাড়া জেলায় খেলতে যেতে হবে। সেখানে যাওয়ার খরচ আছে এগুলো বিবেচনা করেই টাকা দেওয়া হয়নি। আর টাকা দেয়ার নিয়ম কোথায় লেখা আছে বলে তিনি প্রতিবেদকের কাছে জানতে চান।

উপজেলা চেয়ারম্যান শামীম আহমদ শুভ প্রতিদিনকে বলেন, নমুনা চেক যখন দেওয়া হয়েছে তখন টাকা পাবে বলে তিনি ফোন কেটে দেন।

এব্যাপারে সিলেটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. আসলাম উদ্দিন শুভ প্রতিদিনকে বলেন, বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin