মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ০৬:২৭ পূর্বাহ্ন



কয়েকদিন পরেই আমাদের সম্পর্কের ১২ বছর পূর্ন্য হবে

কয়েকদিন পরেই আমাদের সম্পর্কের ১২ বছর পূর্ন্য হবে


রাজু দাশ:

কয়েকদিন পরেই আমাদের সম্পর্কের ১২ বছর পূর্ন্য হবে।  যদিও আজ আমরা দুজন দুজনার মতো করে, বেঁচে আছি, ভালো আছি স্মৃতিকে স্মৃতির জায়গাতে রেখে।

সুম্মিতা মনে আছে তোমার; রং নাম্বারে কল এসেছিলো, ওপার থেকে হ্যালো বলতেই? তুমি তখন বলেছিলে কে বলছেন? কার কাছে ফোন করেছেন?

সিয়াম আপনাকেই! আমাকে চিনবেন না, আমি আপনার পরিচিত কেউ নই।

সুম্মিতা তাহলে আপনি আমাকে ফোন করেছেন কেনো? আমি অপরিচিত কারো সাথে কথা বলিনা আর এত রাতেই বা কিভাবে আপনি কল করেন?

সিয়াম তাহলে মনে হয় দিনে কল দিলে আপনি আমার সাথে কথা বলবেন?

সুম্মিতা না আমি কি আপনাকে এরকম কিছু বলেছি? রেখে দিচ্ছি আপনি আর কখনই আমাকে কল করবেন না।

ওপাশ থেকে কলের লাইনটি কেটে গেলো, ডিজুস সময় তখন কতইনা উওেজনা ছিল। দু-চারদিন চলে গেলো এভাবে সিয়াম আর কল করেনি। হটাৎ কয়েকদিন পরের এক পরন্ত বিকাল বেলা সিয়াম আগ্রহের সাথে কল দিলো আকাশ সম সুন্দরী কন্ঠের মেয়েটাকে; দেখিতো মেয়েটা কল রিসিভ করে কিনা? সাথে সাথেই কল দিল ওপার থেকে মায়াবি স্বরে সুম্মিতা বলল হ্যালো! কি আপনি আবার কল করেছেন কেনো?

সিয়াম আপনি আমার নাম্বার চিনলেন কিভাবে?

সুম্মিতা কারণ আমি জানতাম আপনি আবার আমাকে কল করবেন তাই ডিষ্টাব লিখে আমি আপনার নাম্বার সেইভ করে রেখেছি।

সিয়াম অহ তাই! তাহলে আপনি ডিষ্টাব হতে চান আমার দ্বারা?

সুম্মিতা আচ্ছা এগুলো বাদ দেন তো কেন কল করেছেন সেটা বলে রেখে দেন প্লীজ….

সিয়াম এমনিতেই মনে পরল তাই ভাবলাম একটু কথা বলি আর আপনাকে কিছুটা বিরক্তও করা হলো এতে করে।

সুম্মিতা আচ্ছা! ওকে এখন তাহলে রাখি পরে কথা হবে, না না আর কল করবেন না দয়াকরে আমার একটুও ভালো লাগেনা অপরিচিত কারো সাথে কথা বলতে। মৃদ হাসির ছায়া ছিল তার এই বিরক্তিতেও।

ওপাশ থেকে সিয়াম হ্যালো হ্যালো! কিন্তু এরই মধ্যে সুম্মিতা কথা শেষ না হতেই কল কেটে দিলো।

এভাবেই চলে গেলো আরও কিছুদিন ।

আবার সিয়াম কল দিলো ওপাশ থেকে সুম্মিতা বললো কে বলছেন? সিয়াম বললো আমি! সুম্মিতা বললো আমি কে? তখন সিয়াম প্রথম তার নাম বললো আমি সিয়াম ।

সুম্মিতা তারপর জানতে চাইল আপনি কেন কল করেছেন বলেন? ওপাশ থেকে সিয়াম জানতে চাইলো আপনার কি নাম তা তো এখনো জানা হলনা? সুম্মিতা বলল আমি সুম্মিতা। সিয়াম বলল তাই, খুব সুন্দর নাম আপনার।

এর পর থেকেই দুজনের মিষ্টি প্রেমের কথা বলার শুরু হয়। প্রায়ই কথা হয় দুজনার; এক কথা চলছে তো আরেক কথার শুরু। এই করতে করতে কয়েক মাস পার হয়ে প্রায় বছরের কাছাকাছি।

সুম্মিতা একদিন বলল চলো আমরা দুজনে দেখা করি; সুম্মিতা তখন ভাসির্টিতে পড়ে আর সিয়াম ও ভাসির্টি জীবন প্রায় শেষের দিকে।

সিয়াম বলল কবে, কোথায় এবং কখন? মনে মনে তার আর দেরি সহ্য হচ্ছেনা।

সুম্মিতা বলল আমরা একজন আরেকজনকে কিভাবে চিনবো? সিয়াম বলল সেটা নিয়ে এত চিন্তা করার কিছু নেই যখন আমরা দেখা করতে আসবো ফোনের মাধ্যমে আমরা জেনে নিবো কে কি রং এর কাপড় পরে আসব । সুম্মিতা তখন বলল তাহলে আগামী পরশু ক্লাশ শেষ করে আমরা দেখা করি? সুম্মিতা তার সাথে সাথে কবে, কখন এবং কোথায় দেখা করবে সেটাও জানাল। যেহেতু প্রাইভেট ভাসির্টিতে পড়ে সাধারনত দুপুরের পরে ক্লাশ থাকেনা।

দেখা করার দিন সকাল থেকেই সিয়াম প্রস্তুতি নিচ্ছে সুম্মিতার সাথে দেখা করার; হঠাৎ করেই সিয়াম প্ল্যান করলো সে একা যাবেনা সাথে তার এক বন্ধুকে নিয়ে যাবে। যেই চিন্তা সেই কাজ তখন দুপুর ২ টা বাজে ঘড়িতে বা তার চেয়ে একটু বেশি মোবাইলে কল বেজে উঠল সুম্মিতার এর মধ্যে দুজন একে অপরকে বলে দিলো কি রং এর কাপড় তারা পরে আসবে।

সিয়াম বন্ধুকে নিয়ে বন্ধুর বাইক করে গেলো সেখানে কিন্তু সুম্মিতা তার আগেই সেখানে পৌছে গেলো। প্রথম দেখাতেই সিয়াম চিনে গেলো সুম্মিতাকে। সিয়াম দুর থেকে দেখছিলো সুম্মিতাকে। যাতে করে সুম্মিতা যেন সিয়ামকে না দেখে। সিয়ামের মন কিছুটা খারাপ হল মেয়েটাকে দেখে সে যা কল্পনা করে আসছিল তার সাথে সে কোন ভাবেই মিলাতে পারছে না এদিক থেকে সুম্মিতা বার বার কল দিয়ে যাচ্ছে সিয়ামকে কয়েকবার কল না ধরে পরে রিসিভ করল। সুম্মিতা বলল কোথায় তুমি ? সিয়াম বলল আমি তোমার ভাসির্টির সামনে দাড়িয়ে আছি। সুম্মিতা বলল তুমি দাড়ায় আমি আসছি। সিয়াম সেখানে দাড়িয়ে আছে তার বন্ধুকে নিয়ে সুম্মিতা আসল এবং সিয়ামকে ফোন করল বার বার, কিন্তু সিয়াম আর একবারের জন্যও কল রিসিভ করলনা। সিয়াম সুম্মিতাকে দূর থেকে ঠিকই দেখল সুম্মিতাও সিয়ামকে দেখল কিন্তু তখনও সুম্মিতা বুঝেনি যে এই সে সিয়াম।

সুম্মিতা খুব মন খারাপ করলো, তার চেহাড়াতে রাগের চিহ্ন ভেসে উটছিল। তারপর কিছু সময় পরে যে যার মত করে চলে গেল।

এদিকে যদিও সুম্মিতা অনেক রাগ ও কষ্ট পেয়েছিল কিন্তু তারপরও সে বারবার তার ফোনটি দেখছিল কল আসছে কিনা সিয়াম এর কাছ থেকে। এর মধ্যে কেটে গেলো প্রায় ২ সপ্তাহ কেউ কাউকে ফোন কল বা এসএমএস করেনি আর মিষ্টি মিষ্টি প্রেম থেমে গেলো কিছু দিনের জন্য।

বাকিটুকু ১২ বছর পূর্ন্য হবার আগে একটু একটু বলবো।

কাল্পনিক গল্পের অবলম্বনে লিখা……..

লেখক: রাজু দাশ,কবি, লেখক ও সংগঠক

 


সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin