রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ১২:২৯ অপরাহ্ন


খালিয়াজুড়ির হাওড়ের উজ্জ্বলতায়

খালিয়াজুড়ির হাওড়ের উজ্জ্বলতায়


শেয়ার বোতাম এখানে

লায়লা আরজুমান:

বর্ষাকালে হাওড়ে থাকে দিগন্ত বিস্তৃত জলরাশি। শুকনো মৌসুমে নয়ন জুড়ানো সোনালি সবুজ ধানের খেতে চারদিক হয়ে ওঠে অপরূপ। এই কারণে বলা হয়ে থাকে ‘বর্ষায় নাও, শুকনায় পাও, এইডাই উজান-বাডির বাও।’ অর্থাৎ বর্ষায় নৌকায় চলো, শুকনা সময়ে পায়ে হেঁটে যাও, এটাই হলো উজান-ভাটির নিয়ম।

হাওড়াঞ্চল ভ্রমণের সুন্দর সময় এখন। স্বামী, ছোট ছেলে সাবাব, বেশকিছু আত্মীয়, শুভাকাক্সক্ষী মিলে ঠিক করলাম এবার সবাই মিলে বিশাল হাওড় খালিয়াজুড়ি দেখতে যাব। দুই শ’ সাতানব্বই বর্গকিলোমিটার আয়তনের এ উপজেলার ছয়টি ইউনিয়নে রয়েছে প্রায় পঁচাশিটি গ্রাম। সম্প্রীতির বন্ধনে আবদ্ধ উপজেলায় প্রায় এক লাখ পনেরো হাজার লোকের বসবাস। খালিয়াজুড়ি উপজেলায় ব্যাটারিচালিত অটোই একমাত্র পথ চলার মাধ্যম। এখানে অধিকাংশ মানুষের জীবিকা কৃষি এবং মৎস্যনির্ভর। বর্ষাকালে জীবিকার প্রধান উৎস মাছ চাষ ও মাছ আহরণ। শুকনো মৌসুমে ধানের ফলন হয় ব্যাপক।

সেইসঙ্গে চরে শীত মৌসুমে মিষ্টিকুমড়া, বাদাম, মরিচ, টমেটো, সরিষা, সূর্যমুখীসহ প্রচুর পরিমাণ রবিশস্যের আবাদ হয়। নেত্রকোনা জেলা হতে মোহনগঞ্জ হয়ে যেতে হয় খালিয়াজুড়ি হাওড়ের প্রসিদ্ধ বোয়ালীর ঘাটে। মোহনগঞ্জ থেকে বোয়ালীর দূরত্ব প্রায় বাইশ কিলোমিটার। বোয়ালীঘাট থেকেই শুরু হয় আমাদের হাওড় যাত্রা। ভ্রমণের দিন সকালে ঘুম ভাঙল কর্কশ এ্যালার্মের শব্দে। হাওড় দেখতে হলে সকালে বের হতে হবে। তাই এ্যালার্ম দিয়ে রেখেছিলাম।

সন্ধ্যার আগেই ফিরতে হবে। ভাল আবহাওয়ায় হাওড় ভ্রমণ স্বভাবতই হয় আনন্দময়। কিন্তু সকাল থেকেই আকাশ মেঘলা। সূর্য যেন আকাশের সঙ্গে আড়ি দিয়ে মুখ লুকিয়েছে মেঘের আড়ালে। আকাশটাকে দেখে মনে হচ্ছে অভিমান করে আছে। একরাশ মেঘ দিয়ে ছোট বালিকার মতো মুখ ফুলিয়ে আছে। এই বুঝি ঝরঝর করে কেঁদে ফেলবে। যা ভেবেছিলাম তাই শুরু হলো-অঝোর ধারায় বৃষ্টি, ঝুমঝুম বৃষ্টি। কিছুক্ষণ পর একটু কমল। ভাবলাম, যেভাবে বৃষ্টি হচ্ছে আজকে মনে হয় হাওড় দেখাই হবে না।

স্থানীয়দের জিজ্ঞাসা করি, এই বৃষ্টিতে কি হাওড়ে যাওয়া যায়? হাওড় দেখা কি উচিত হবে? নেত্রকোনার ভাষায় স্থানীয় বাসিন্দারা সহজ-সরল উত্তর দেয়, ‘যাইতো না ক্যারে, এতা বৃষ্টিত কিছু ওইতো না, বাতাস তো নাই, যাওন যাইবো, কতক্কন পরেই বৃষ্টি কইম্মা যাইবো।’ আসলেই ধীরে ধীরে বৃষ্টি কমে এলো। এই এলাকার লোকজন আর হাওড় হচ্ছে একে অপরের পড়শী। তাই হাওড়বাসীরা হাওড়ের সঙ্গে থেকে থেকে এর গতিবিধি খুব ভাল করে বোঝে, জানে। অন্যদিকে হাওড় তার প্রাণবন্ততা দিয়ে হাওড় অঞ্চলের মানুষকে আপন করে নিয়েছে। সমৃদ্ধ করেছে শস্যভান্ডার আর মৎস্য আহরণ শিল্পকে। স্থানীয়রা যা বলেছিল তাই হলো। কিছুক্ষণের মধ্যে সুন্দর রোদ উঠে গেছে। স্বচ্ছ নীল আকাশে শুভ্র মেঘের যেন নিরুদ্দেশ যাত্রা শুরু হয়েছে।

সকাল নয়টায় মোহনগঞ্জ সদর থেকে খালিয়াজুড়ি হাওড় দেখার উদ্দেশ্যে রওনা হলাম। বৃষ্টিতে তৃষিত মাটি যেন সিক্ত হয়ে আছে। বাতাসে ভেজা মাটির গন্ধ ভেসে আসছে। সবুজ শস্যখেত, সজীব পাতায় ভরা বৃক্ষরাজি, শাপলা ফুলে ভরা টলমলে জলাশয়, কচুরিপানার সাদাবেগুনি রঙের কারুকাজ করা ফুল, রাস্তার দুধারে শুকাতে দেয়া ঢেউ খেলানো পাটের আঁশ, কদম ফুলে সজ্জিত গাছ, প্রকৃতির ছড়িয়ে থাকা অফুরন্ত অপূর্ব শোভা দেখতে দেখতে বোয়ালীঘাটে পোঁছাই। এখানে এসে পৌঁছাতে সময় লেগেছে প্রায় ত্রিশ মিনিট। বোয়ালীঘাটে এসে ইঞ্জিনচালিত জলযানে হাওড় যাত্রা শুরু করি। পাড় ঘেঁষে প্রাণশক্তিতে ভরপুর ভাসমান কলমিলতায় অসংখ্য বেগুনি রঙের ফুল বেশ নজর কাড়ে। আবহাওয়া এখন অনেকটাই ভাল। বৃষ্টিস্নাত দিন। কোমল রোদ। ঢেউয়ের বাঁকে বাঁকে যেন গহীনের নিঃশব্দ ধ্বনি।

হাওড়ের মাঝামাঝি পৌঁছে দেখি সে এক বিশাল জলরাশি। অনেকটা সমুদ্রের মতো। থৈথৈ পানি। নীল আকাশটা যেন মায়াময় নীল আঁচল দিয়ে ঢেকে রেখেছে হাওড়াঞ্চল। ছোট ছোট কুটিরে ঘেরা গ্রামগুলো অনেকটা দ্বীপের মতো ভেসে আছে। ঝাঁকে ঝাঁকে হাঁসের জলকেলি। নৌকা, স্পিডবোট, ট্রলারে লোকজন বেশ আনন্দ নিয়ে হাওড়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে। ভেসে আসছে গান-বাজনার আওয়াজ। মনে হচ্ছে বনভোজনে বেরিয়েছে। হাওড়ের সৌন্দর্যে মুগ্ধ হয়ে আমাদের মতো আরও অনেকে ভ্রমণ করছে। উচ্ছ্বসিত হাওড়ে বোয়ালী পার হয়ে রোয়াইল নামক বিল এবং আশাখালী বাঁধ পার হয়ে বয়ে চলেছে ধনু নদী। হাওড়পাড়ের মানুষগুলোকে অনেক জীবন সংগ্রামের মাধ্যমে জীবন অতিবাহিত করতে হয়। বন্যা, খরা, অতিবৃষ্টির সঙ্গে তাদের যুদ্ধ করতে হয়। নদী ভাঙ্গনের মতো প্রতিকূলতার সঙ্গে চালিয়ে যেতে হয় লড়াই। আবার হাওড়ে যখন পানি আসে তখন উচ্ছ্বাসে হাওড়াঞ্চল আনন্দ মুখর হয়ে ওঠে। অন্যদিকে পানি নেমে গেলে উর্বর ভূমিতে সোনালি ফসল নিয়ে কৃষক-কৃষাণীর মুখ হাসিতে ভরে ওঠে। জানতে পারি ধনু নদীর দুই তীরে প্রতিবছর প্রচুর রবিশস্য উৎপাদন হয়। এখানে লেপসিয়া নামক বড় একটি বাজার আছে। জমজমাট এই বাজারটি বসে প্রতি শনিবার।

লেপসিয়া থেকে প্রায় আড়াই কিলোমিটার দূরে বল্লী নামক গ্রামের রানীচাপুর বিল পর্যন্ত বয়ে গেছে পিয়াই নামক আরেকটি নদী। বর্ষা মৌসুমে এখানে জলযানই একমাত্র যোগাযোগের মাধ্যম। তাকিয়ে দেখি হাওড়পাড়ের প্রায় প্রতিটি বাড়ির সঙ্গেই নৌকা ভেড়ানো আছে। আবার অনেক বাড়ির সঙ্গে ঘাট বাঁধানো আছে। সেই ঘাটে গৃহস্থালি জিনিসপত্রের ধোয়ার কাজ চলছে। গাছের শীতল ছায়ায় অনেকে দলবেঁধে গল্পগুজব করছে। গ্রামের গৃহবধূরা কলসি কাঁধে হেঁটে চলেছে।

মাছ সংগ্রহ করছে পরিশ্রমী জেলেদের দল। সাহসী মাঝি বিশাল হাওড়ের ঢেউয়ের মাঝেও কি সহজ ভঙ্গিতে নৌকা বেয়ে যাচ্ছে! চঞ্চল বালক আর কিশোরের দল সাঁতার কেটে হাওড় মাতিয়ে রেখেছে। পুরো হাওড়জুড়ে চলছে পানকৌড়ি আর সারসের অবাধ বিচরণ। কিছুক্ষণ পরপরই ঝাঁক বেঁধে ধবধবে সাদা বক উড়ে চলেছে দূর আকাশে। বকগুলো লম্বা গলা বাড়িয়ে ডানা মেলে অনেকটা বোয়িং বিমানের মতো উড়ে চলেছে। আবার ধূসর বকেরও দেখা মিলে। চারদিকে গ্রামবাংলার সহজ-সরল জীবনযাপনের রূপ ফুটে উঠেছে। সবাই গল্প করতে করতে ভ্রমণের আনন্দ উপভোগ করতে থাকি। সেইসঙ্গে চলছে চিপস আর বাদাম খাওয়া। মোবাইলে ছবি তোলা তো আছেই। চলার পথে দেখি বিশাল হাওড়ের মাঝখানে শুধু একটা বড় গাছ দাঁড়িয়ে আছে। পানির ওপর সবুজ পাতায় ভরা ডালপালা ছড়ানো। কান্ড প্রায় পুরোটাই পানির নিচে। আশপাশে আর কোন গাছ নেই। গাছটি যেন এক পায়ে ঠাঁয় দাঁড়িয়ে হাওড়কে পাহারা দিয়ে চলেছে। শুধু একটা গাছ যে হাওড়ের সৌন্দর্য অনেক বাড়িয়ে দিতে পারে এই দৃশ্যটা দেখেই তা বোঝা যায়। দৃশ্যটির ছবি ধারণ করি মোবাইলে। নীল আকাশের নিচে সাদা পানির ওপর সবুজ একটা গাছ। চমৎকার ছবি। কোথাওবা একসঙ্গে অনেক গাছ পানির ওপর মাথা জাগিয়ে আছে। বোঝাই যায় এগুলো ডুবে থাকা রাস্তার দুপাশে লাগানো গাছের সারি। স্বচ্ছ সুনীল আকাশে হালকা সাদা, ধূসর মেঘের ওড়াউড়ি। বেলা চলছে দ্বি-প্রহর। সূর্যের আলোয় আমাদের চোখ ধাঁধিয়ে যাচ্ছে। রুপালি সূর্যের প্রতিবিম্বে হাওড় চিকচিক করছে। রোদের উজ্জ্বলতায় ঝকঝকে হয়ে আছে সমগ্র হাওড়। বয়ে চলেছে ঝিরিঝিরি বাতাস। আলোময় চারদিক। খেয়ালি ছন্দময় ঢেউ যেন আরও বাড়িয়ে দিয়েছে উজ্জ্বলতাকে।

হঠাৎ হঠাৎ বড় ঢেউয়ের শব্দ। প্রকৃতির এই অসাধারণ অপরূপ দৃশ্য দেখে যে কেউ অভিভূত হয়ে উঠবে। খালিয়াজুড়ি উপজেলার শেষ প্রান্তে আছে কৃষ্ণপুর ইউনিয়ন। এই ইউনিয়নের উত্তর-পূর্বে বিশাল ছায়ার হাওড়, যার উত্তরে সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলা, পূর্বে হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জ উপজেলা এবং উত্তর-পশ্চিমে সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলা। এখান থেকে খালিয়াজুড়ি উপজেলা সদরের দূরত্ব প্রায় ১২ কিলোমিটার। হাওড়ের অপূর্ব সৌন্দর্য দেখতে দেখতে কখন যে সারাবেলা পার হয়ে গেল টেরই পাইনি। বিকেল ৪টা বেজে গেছে। সদরে এসে যাত্রাবিরতি দেই। অটোতে চড়ে উপজেলা সদরটাও ঘুরে দেখি। মুক্ত হাওয়ায় বেশ ভাল লাগছে। এখানে বড় বড় গাছ যেন পক্ষীকুলের অভয়ারণ্য। জলাধারে ফুটে আছে অসংখ্য শাপলা ফুল। রঙিন জংলী ফুলগুলো সৌন্দর্যের পসরা সাজিয়ে দিয়েছে। কিছুটা বিশ্রামের পর আবার শুরু করি হাওড় যাত্রা। আনন্দ যাত্রায় সবাই আবার গল্পের ডালা খুলেছে। অপরাহ্ণের আলোয় হাওড় আরও যেন চিত্তাকর্ষক হয়ে উঠেছে। রোদের তেজ কমে গেছে। পাড়ের বিভিন্ন ধরনের ছোট-বড় গাছ আর বাঁশঝাড় এমনভাবে হাওড়ের পানিতে ঝুঁকে আছে মনে হচ্ছে গভীর মনোযোগ দিয়ে হাওড়ের পানিতে নিজের প্রতিবিম্ব খুঁজছে। বিহঙ্গরা ডানা মেলে ছুটে চলেছে নীড়ের সন্ধানে। ইতোমধ্যে টকটকে লাল সূর্য পশ্চিম আকাশে হেলে পড়েছে। সন্ধ্যা ঘনিয়ে এসেছে। চারদিকে চলছে সাঁঝবেলার প্রস্তুতি। সারাদিন হাওড় আর হাওড়পাড় ঘুরে হাওড়বাসীদের যে আন্তরিকতা দেখেছি তা আমাদের মুগ্ধ করেছে। ভাললাগার আমেজ নিয়ে চমৎকার হাওড় ভ্রমণ করে সবাই খুব উচ্ছ্বসিত। একরাশ আনন্দ নিয়ে দৈনন্দিন জীবনের ব্যস্ততার তাগিদে আবার সবাই ছুটে চলি গন্তব্যস্থলে। পেছনে তাকিয়ে নীরব সন্ধ্যায় ডুবে যাওয়া চেয়ে থাকি হাওড়ের দিকে।

লেখক : গবেষক


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin