শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০, ১২:৪৮ পূর্বাহ্ন



গণপরিবহণে ভাড়া বৃদ্ধি পেলেও যাত্রী সেই আগের মত

গণপরিবহণে ভাড়া বৃদ্ধি পেলেও যাত্রী সেই আগের মত


সাত্তার আজাদ:
করোনার সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে সিএনজি অটোরিকশাসহ সকল গণপরিবহণে যাত্রীর দূরত্ব নিশ্চিত করতে ভাড়া বাড়ানো হয়। কিন্তু কে মানে কার নিয়ম। ভাড়া বেড়েছে ঠিকই।

কিন্তু সিলেটের বিয়ানীবাজারে যানবাহনগুলো সেই আগের মত যাত্রী বহন করছে। এতে ভাড়া বৃদ্ধিতে যানবাহনের পৌষমাস আর যাত্রী সাধারণের সর্বনাশই করা হল। পাশাপাশি করোনা ছড়ানোর ঝুঁকি আরো বৃদ্ধি পেল।

করোনাকালে বিয়ানীবাজারে দেখা দেখা গেছে, একটি অটোরিকশায় সেই আগের মত পাঁচজন যাত্রী বহন করা হচ্ছে। অথচ যাত্রীদের গুণতে হচ্ছে অতিরিক্ত ভাড়া। ২৫ টাকার ভাড়া ৪০টাকা নেয়া হচ্ছে।

এতে যানবাহনওয়ালারা দ্বিগুণ লাভবান হচ্ছে। আর যাত্রীদের করোনা ঝুঁকিতে ফেলে দিচ্ছে।
করোনাকালে রোগ প্রতিরোধে যাত্রীর দূরত্ব নিশ্চিত করতে ভাড়া বাড়ানো হয়।

নিয়ম অনুযায়ী একটি অটোরিকশায় পিছনের আসনে মাত্র ২ জন যাত্রী বহন করবে। যাতে দুইজন যাত্রী নিয়ে একটি অটোরিকশা ৮০ টাকা পেতে পারে। কিন্তু সেই অটোরিকশা আগে পাঁচজন যাত্রী নিয়ে পেত ১২৫ টাকা। আর এখন পাচ্ছে ২০০ টাকা। এ যেন ভাড়া বৃদ্ধির বাম্পার অফারে বাড়তি লাভ।

সিএনজি অটোরিকশায় পেছনে দুইজন ছাড়া চালকের ডানে, বাঁয়ে যাত্রী বসানোর কোনো নিয়ম নেই। সেটা পারমিটেও উল্লেখ নেই। কিন্তু কে মানে কার নিয়ম। বাড়তি ভাড়া নিয়েও যানবাহন কম যাত্রী বহন করছে না। মানা হচ্ছে না যাত্রী থেকে যাত্রীর দূরত্ব।

অটোরিকশায় পিছনে তিনজন যাত্রী বসলে একে অপরের নি:শ্বাস টানতে হয়। কারণ মুখগুলো খুব কাছাকাছি থাকে। আর এই অটোরিকশার সামনের আসনে বসা যাত্রী চালকের আরো কাছে থাকে। যেন ঘাড় এদিক-ওদিক করলে চালকের গালে যাত্রীর নাক লেগে যাবে।

চালকের হার্টের স্পন্দনও যাত্রী শুনতে পাবে-এমন কাছাকাছি থাকতে হয়। এটা করোনা ছড়ানোর অন্যতম ঝুুঁকির একটি কারণ। এসব চিত্র প্রশাসন ও পুলিশের চোখে পড়লেও নির্বিকার ভুমিকা পালন করছেন তারা। তবে মাঝে মধ্যে অভিযান পরিচালনা করা হলেও নানা অজুহাতে পার পেয়ে যান লোভীজাতীয় পরিবহনের চালকরা।


সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin