বৃহস্পতিবার, ২৫ Jul ২০২৪, ০৭:১৬ পূর্বাহ্ন


গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের করোনা টেস্টকিট (পর্ব-১)

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের করোনা টেস্টকিট (পর্ব-১)


শেয়ার বোতাম এখানে

আজিজুস সামাদ আজাদ ডন

নতুন ভাইরাস করোনা ভাইরাস। সাধারণ মানুষ তো বটেই এমনকি বিশেষজ্ঞরাও এখন পর্যন্ত নিশ্চিত তথ্য দিতে পারছেন না। তারপরও যে তথ্যগুলো WHO এর ওয়েব সাইটে পাওয়া যাচ্ছে সেটার ওপর ভিত্তি করে একজন সাধারণ অজ্ঞ মানুষ হিসেবে বলছি, ভাইরাসটি সম্পর্কিত এই অজ্ঞানতাকে পুঁজি করে কিছু মানুষ ব্যক্তিগত ফায়দা লোটার চেষ্টা এবং গিমিক বা চটকদার বিজ্ঞাপনী কৌশল অবলম্বন করে জনগনের দৃষ্টি আকর্ষনের চেষ্টা যে করছেন না, সেটা নিশ্চিত ভাবে বলা যাবে না।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের করোনা টেস্ট কিট আবিষ্কারের ঘোষণা যে ঐ কৌশলের অংশ নয় সে বিষয়ে নিশ্চিত হবার মত কোন তথ্য কারো হাতে আছে কিনা আমার সন্দেহ। তার সাথে যুক্ত হয়েছে তাদের টালবাহানা। প্রথমে জানানো হল, সরকারের সহযোগীতা পেলে এপ্রিলের ১০ তারিখের মাঝে তারা সরকারের হাতে টেস্ট কিটটি তুলে দেবে। সরকার প্রয়োজনীয় সকল সহযোগীতা দেবার পরও তারা জানালো কারিগরি সমস্যার কারণে তারিখটি ১৫ এপ্রিল হবে। সেই তারিখেও পাওয়া গেলনা বরং নতুন তারিখ দেয়া হল ২০ তারিখ। সেটাও শেষ, এখন বলা হচ্ছে ২৩ তারিখ। আজ সেই তারিখও শেষ হয়ে যাবে।

বর্তমান প্রচলিত ICMR টেস্টটি করার জন্য যদি সরাসরি ফুসফুস বা শ্বাস তন্ত্রের ফ্লুইড পরীক্ষার ব্যবস্থা নেয়া হয় তবে সেটা ৯৫-১০০% সঠিক রেজাল্ট দেবে। কিন্ত এর বিপরীতে গণস্বাস্থ্য যে প্রযুক্তি আবিষ্কারের চমক দেখিয়ে বড় বড় কথা বলছে, সেটা বহু পুরানো প্রযুক্তি “এন্টিবডি” টেস্ট। অনেকটা দ্রুত প্রেগনেন্সী টেস্ট কিটের মত, অর্থাৎ, শরীরে যদি কোন নতুন উপসর্গ বাসা বাঁধে তবে শরীর তার নিজস্ব ইমিউন সিস্টেম কাজে লাগিয়ে এন্টিবডি তৈরী করে এবং সেই উপসর্গের বিরুদ্ধে এই এন্টিবডি যুদ্ধ ঘোষনা করে। এই প্রযুক্তির প্রথম সমস্যা হল, (আমার জানা মতে) শতকরা ৭০ ভাগও সঠিক রেজাল্ট দেবার ক্ষমতা নেই।

দ্বিতীয় সমস্যা, মানুষে-মানুষে নিজস্ব ইমিউন সিস্টেমের তারতম্যের কারণে এন্টিবডি তৈরী করার শক্তিও বিভিন্ন রকমের হয়ে থাকে, অর্থাৎ, কারো শরীরে চারদিনেও এন্টিবডি তৈরী হতে পারে, কারো ১৫ দিনও লাগতে পারে। তার সাথে যোগ করতে হবে “করোনা” ভাইরাসটির ইনকিউবেশন সময় ৫ থেকে ১৪ দিন। এখন যদি করোনা আক্রান্ত হবার চারদিন পরে একজনকে টেস্ট করা হয় কিন্ত তার শরীরের ইমিউন দূর্বলতার কারণে এন্টিবডি তৈরী হতে দেরী হয় তখন তার রেজাল্ট নেগেটিভ আসবে। সেক্ষেত্রে সে নিজেকে নিরাপদ মনে করে কমিনিটি স্প্রেডের ঝুঁকি বাড়িয়ে তুলবে।

তৃতীয় সমস্যা হল, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত মানেই মৃত্যু, সেটা নয়। এখন পর্যন্ত এই ভাইরাসে আক্রান্ত বৈশ্বিক মৃত্যুর হার প্রায় ৬% এবং সর্বোচ্চ বাজে অবস্থায় আছে বেলজিয়াম প্রায় ১৪%। আক্রান্তদের মাঝে আশংকাজনক অবস্থায় যাচ্ছে, অর্থাৎ, যাদের জরুরী অক্সিজেন, ভেন্টিলেশন প্রয়োজন তাদের হার প্রায় ২%, । বাকিদের শুধু হোম আইসোলেশনের উপদেশ দেয়া হচ্ছে তথাকথিত প্রথম বিশ্বের মানুষদেরকেই। সেই যায়গায়, এধরণের ত্রুটিপূর্ন টেস্টকিট মানুষের মাঝে আতংক ছড়িয়ে দিতে পারে। যে কারণে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ভারত সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ এই এন্টিবডি টেস্টকে প্রত্যাখ্যান করেছে। এমনকি WHO, FDA পর্যন্ত এই প্রযুক্তিতে করোনা টেস্ট প্রক্রিয়াকে অনুমোদন দেয়নি।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র এই টেস্টকিটটি আজ না হয় কাল দিতে পারবে হয়তো কিন্ত WHO এবং আমাদের নিজস্ব বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ ছাড়া এটা ব্যবহারের অনুমতি দেয়া হলে দেশে আতংক এবং বিপর্যয়কর পরিস্থিতি তৈরী হতে পারে।

আতংক নয়, সচেতন হোন।

কোভিড-১৯ সম্পর্কিত গাইড লাইন বোঝার চেষ্টা করুন।

অপরকে বোঝাবার চেষ্টা করুন।

করোনা সংক্রান্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন।

ওপরওয়ালা আমাদের সহায় হোন।

 

লেখক, রাজনীতিবিদ ও  কলামিস্ট


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin