শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ০৭:৩৪ পূর্বাহ্ন



গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের করোনা টেস্টকিট (পর্ব-২)

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের করোনা টেস্টকিট (পর্ব-২)


আজিজুস সামাদ আজাদ ডন

সাধারণত রোজার মাসে লেখালেখি বন্ধ রাখি, তাঁর ওপর রয়েছে বাবার মৃত্যুবার্ষিকী। আর “করোনা” দুশ্চিন্তা তো এখন নিত্যসঙ্গি। সব মিলিয়ে এসময়ে শুধু সিয়াম সাধনা আর দুআর মাঝেই থাকবার আমার নিজস্ব একটা সিদ্ধান্ত বাতিল করতে হল পত্রিকার কয়েকটি হেডলাইনের কারণে। প্রথমেই আসি একজনের কথায় যিনি সুকুমার রায় না হয়েও সারাক্ষণই “আবোল তাবোল” বকেই চলেছেন। গতকাল (রবিবার) দেখলাম বলেছেন, “সরকারের ব্যর্থতায় লাশের সারি দীর্ঘ হচ্ছে”। আরে জ্বালা, লাশের সারি যদি দেখতেই চান তবে ৯১’ সালের জলোচ্ছ্বাসের কাছে গিয়ে দেখতে পারেন, যেখানে আপনাদের পূর্বপ্রস্তুতির ব্যর্থতার কারণে মারা গিয়েছিল প্রায় ২ লাখ মানুষ, বাস্তুচ্যুত হয়েছিল কোটি কোটি মানুষ। প্রাকৃতিক দুর্যোগকে, মানুষের দুর্ভোগকে পুঁজি করে রাজনীতি করার আগে একবার পবিত্র কোরানের সূরা “আর রোম” এর ৪১ নং আয়াতটি পড়ে আসার জন্য অনুরোধ করি, যার বাংলা অনুবাদ অনেকটা এরকম “স্থলে ও জলে মানুষের কৃতকর্মের দরুন বিপর্যয় ছড়িয়ে পড়েছে। আল্লাহ তাদেরকে, তাদের কর্মের শাস্তি আস্বাদন করাতে চান, যাতে তারা ফিরে আসে।” আল্লাহ আপনাদের হেদায়েত করুন।

সত্যিই লাশের সারি যদি দেখতে চান তবে চলে যান যেদিন আপনারা সারের হাহাকারে হতভাগা নিরীহ কৃষকদের পাখির মত টার্গেট করে করে গুলি করে হত্যা করেছেন, সেই দিনের দিকে ফিরে তাকিয়ে অনুশোচনা করুন। মনে করছেন মহামারী শেষ হয়ে গিয়েছে? আমরা উপমহাদেশীয়রা আশাবাদী, কারণ করোনার বিষ্ফোরণ ইতিহাস ঘাঁটলে দেখা যায়, দেশ ভেদে সর্বোচ্চ বিস্তারে সময় লেগেছে সর্বোচ্চ ৬০দিন। সেই হিসেবে ভারত ৬০দিন পার করেছে। নাহ, তারমানে এই নয় যে অন্যান্য দেশের ইতিহাস ঘেঁটে আমাদের সিদ্ধান্ত নিতে হবে। আমাদের সিদ্ধান্ত নিতে হবে আমাদের বিভিন্ন সূচকের উপর নির্ভর করেই। জনসচেতনতার অভাবে লকডাউন যতেষ্ট ফলপ্রসূ হয়নি। আমাদের অর্থনৈতিক মেরুদণ্ডও অতোটা শক্ত নয়, যে মাসের পর মাস লকডাউন করে বসে থাকবো। তারপরও আমাদের দেশের করোনার থাবা শুরু হবার ৫১ দিনের মাথায় দাঁড়িয়ে এটুকু বলা যায়, মহামারীর করাল থাবার সময় এখনো শেষ হয়নি, ওপরওয়ালা একমাত্র সহায়। আতঙ্কিত না হয়ে সচেতনতার সাথে “করোনা” প্রতিরোধের নিয়মাদি মেনে চলতে হবে।

এটুকুই লিখে আজ লেখার পরিসমাপ্তি টানতে চেয়েছিলাম কিন্ত পর মুহুর্তেই চোখ পরলো আমাদের দেশের স্বঘোষিত আবিষ্কারকের একটি খবরের দিকে। সাংবাদিক সন্মেলন করে ধোয়া তুলসিপাতা সেজে যে কথাগুলো তিনি বললেন, সেটার উত্তরে শুধু এটুকুই বলতে পারি, আপনার আবিষ্কারের খবরে দেশবাসীর সাথে সরকারও আশান্বিত হয়ে সকল সহোযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছিল আপনার দিকে। পরে জানা গেল, আপনার আবিষ্কারের আগেই যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ভারতসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ কর্তৃক এই পদ্ধতি প্রত্যাখ্যাত হয়েছে। এতোদিনে আপনি বলছেন ইরান, চীন এই পদ্ধতিতে পরীক্ষা করেছে। তাহলে আপনার আবিষ্কার গেল কোথায়। আমি আগেও বলেছি, এই পদ্ধতি প্রয়োগ করা সম্ভব শুধুমাত্র যখন নিশ্চিত যে, আমরা মহামারীতে আক্রান্ত হয়েছি, সেই সময় একটি মোটামুটি পরিসংখ্যান তৈরীর কাজে। প্রাথমিক অবস্থায় এই পদ্ধতি প্রয়োগে তথ্যগত ভুলের কারণে এবং এই পদ্ধতির ত্রুটির কারণে আতঙ্ক সৃষ্টি করতে পারে।

তবে একটা কথা খুব জানতে ইচ্ছে করছে, সরকারের মাঝে কে এখনও আছে যে এই মহামারীর সময়ে অন্তত আপনার মত তথাকথিত আবিষ্কারকের কাছে ঘুষ চেয়েছে। ব্যক্তিগত ফায়দার জন্য জনমানুষের আতঙ্ককে উষ্কে দিয়ে ব্ল্যাকমেইল করার উদ্দেশ্য নিয়ে যদি কথাটি না বলে থাকেন তাহলে এই গুরুতর অভিযোগের বিষয়টি আপনার পরিষ্কার করে বলা উচিৎ। বাংলাদেশের ওষুধনীতি প্রণয়নে আপনার বিশাল ভূমিকার কথা কারোই অজানা নয় এবং সেই ঔষধ প্রটোকল নিয়ে আমরা গর্বিত। সেই প্রটোকল আপনার জানা নেই সেটা আমরা বিশ্বাস করিনা। “করোনা”কে পুঁজি করে তো কিছুদিন আগেও রাস্তা-ঘাটে বহু টোটকা বিক্রি করা হত। এখন যদি তারা সবাই এসে তাদের ওষুধের জন্য অনুমতি চায়,তখন যে প্রটোকল মানা হবে, সেই একই প্রটোকল আপনার জন্যও প্রযোজ্য। আমার এই কথায় কেউ ক্ষুব্ধ হবেন না আশা করছি। কারণ, আইনের দৃষ্টিতে সবাই সমান। আবারও বলি, বাংলাদেশের ঔষুধ নীতি বড়ই শক্ত ভিতের ওপর দাঁড়িয়ে আছে।

শেষ করি সিঙ্গাপুরের একটি গবেষনার রিপোর্টের কথা বলে। সেখানে বলা হয়েছে আগামী মে মাসের শেষে বাংলাদেশ না কী করোনার ভয়াবহতা থেকে মুক্তি পাবে। আলহামদুলিল্লাহ বলে এটুকুই বলতে চাই, আজকাল কমিউনিকেশনের যুগে পৃথিবী ছোট হয়ে আসছে ঠিকই। কিন্ত কোথায় সিঙ্গাপুর আর কোথায় জগন্নাথপুর, এতোটা ছোট হয়ে যায়নি পৃথিবী। তারপরও আমার আগের একটি লেখার পরিসংখ্যানের সূত্র ধরে বলতে চাই, এই সেদিন ২০১৭ সালে যুক্তরাষ্ট্রের ঠান্ডাজনিত মৃত্যুর লক্ষাধিক সংখ্যাকে যুক্তরাষ্ট্রের করোনাজনিত মৃত্যু সংখ্যা অতিক্রম করতে পারেনি, ২০০৯ সালের সোয়াইন ফ্লুতে মারা যাওয়া ছয় লক্ষাধিক মানুষের মৃতদেহ এখনো করোনা আক্রান্ত বিশ্ব দেখেনি, ১৯৭০ সালের হংকং ফ্লুতে মারা যাওয়া চল্লিশ লক্ষাধিক মানুষের কথা না হয় বাদই দিলাম। সুতরাং, আতঙ্কিত হবার কিছু নেই। ভবিষ্যত করোনা পরিসংখ্যানের খাতায়  মৃত্যুর তালিকায় হয়তো আমার নামটি থাকতে পারে কিন্ত বহু নামের মাঝে হারিয়ে যাবে একেকটি নাম। পৃথিবী বসে থাকবে না সে কারণে। আমাদের দেশের জন্য করোনার ভয়াবহতার সময় এখনো পেরিয়ে যায়নি ধরে নিয়েই বলতে পারি, আমাদের দেশের মত দূর্বল অর্থনীতির দেশ কতটুকু ভার বহন করার ক্ষমতা রাখতে পারে হিসেব করেই আমাদেরও এগিয়ে যেতে হবে এখন থেকেই, বসে থাকলে চলবেনা।

প্রথম পর্বের লেখার মত এবারের লেখাটিও শেষ করি দ্বিজেন্দ্রলাল রায়ের “নন্দলাল” কবিতাকে স্মরণ করিয়ে দিয়ে। আমাদের দেশে যা ঘটে গিয়েছে এরপর আর নন্দলালের মত ঘরে বসে থাকলে দেশের কোনো উপকার হবে না। তারচেয়ে বরং

আতঙ্ক নয়, সচেতন হোন

কোভিড-১৯ সম্পর্কিত গাইড লাইন বোঝার চেষ্টা করুন। অপরকে বোঝান এবং সেই অনুযায়ী কাজ করুন।দেশকে এগিয়ে নেবার এখনি সময়। ওপরওয়ালা আমাদের সহায় হোন।

 

লেখক, রাজনীতিবিদ ও কলামিস্ট।


সমস্ত পুরানো খবর




themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin