মঙ্গলবার, ২৩ Jul ২০২৪, ০৭:৫৩ পূর্বাহ্ন


গরমে রেললাইন বেঁকে আটকে গেলো ট্রেন শমশেরনগর-মনু স্টেশনের মধ্যবর্তী স্থান

গরমে রেললাইন বেঁকে আটকে গেলো ট্রেন শমশেরনগর-মনু স্টেশনের মধ্যবর্তী স্থান


শেয়ার বোতাম এখানে

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি:

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে মাত্রাতিরিক্ত গরমে রেললাইন আঁকা-বাঁকা হয়ে পড়েছে। এতে শমশেরনগর-মনু রেল স্টেশনের মাঝখানে রেলগেট এলাকায় সিলেটগামী পাহাড়িকা এক্সপ্রেস ট্রেন প্রায় ২০ মিনিট আটকা পড়ে।

খবর পেয়ে রেল কর্মচারী ও ট্রেনের কর্মচারীদের মাধ্যমে পানি, বালি ও কাদা ফেলে ট্রেন ছেড়ে যেতে সক্ষম হয়।

রবিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) বিকাল ২টা ৫৫ মিনিট থেকে ৩টা ১৪ মিনিট পর্যন্ত এ ট্রেন আটকা পড়ে।

ভাদ্র শেষে আশ্বিস মাস শুরু হয়ে গেছে। কিন্তু সূর্যের তাপের প্রখরতা যেন বাড়ছেই। কয়েকদিন ধরে মৌলভীবাজার জেলার ওপর দিয়ে প্রচণ্ড খরতাপ বইছে। ‌এতে জনজীবন অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতেও স্বাভাবিক পাঠদান ব্যাহত হচ্ছে।

চলমান খরতাপে রেলপথ বাঁকা হয়ে যাওয়ার আশঙ্কায় দু’দিন ধরে রেলওয়ের গণপূর্ত বিভাগের গ্যাংম্যানরা কুলাউড়া উপজেলার টিলাগাঁও ও মনু রেল স্টেশন এলাকায় রেলপথের বেশ কিছু স্থানে পানি ঢেলে লাইন ঠাণ্ডা রাখার চেষ্টা করছেন। কেননা খরতাপে রেলপথ উত্তপ্ত হয়ে বেঁকে গেলে যেকোনা সময় ঘটে যেতে পারে প্রাণঘাতী ট্রেন দুর্ঘটনা।

আর রেলপথ ঠাণ্ডা রাখতে পানি ঢালায় সিলেট রুটে দিনের বেলা মৌলভীবাজারের এই অংশে ট্রেন স্বাভাবিক গতিতে চলতে পারছে না। ফলে ট্রেন চলাচলের সিডিউলও ঠিক থাকছে না। এই পথে চলাচলকারী আন্তঃনগর ট্রেনগুলোকে মাঝপথে বসিয়ে রাখতে হচ্ছে।

শমশেরনগর রেলওয়ে স্টেশন সূত্রে জানা যায়, প্রচণ্ড রোদ ও গরমের কারনে রেললাইন আঁকা-বাঁকা হয়ে পড়ে। আঁকা-বাঁকা হওয়া লাইনে ট্রেন চলাচলে বিঘ্ন দেখা দেয়। ৭১৯ নম্বর সিলেটগামী পাহাড়িকা এক্সপ্রেস ট্রেন ২টা ৪৭ মিনিটে শমশেরনগর স্টেশন ছেড়ে যাওয়ার পর থেকে প্রায় তিন কিলোমিটার দূরে যেতে ৭ মিনিট সময় লাগে। শমশেরনগর বিমান বাহিনী ইউনিটের রেলগেট এলাকায় যাওয়ার পর ট্রেনের গতি হ্রাস পায় এবং এক পর্যায়ে ট্রেন আটকা পড়ে।

এসময়ে ট্রেনের কর্মচারী নেমে ও খবর পেয়ে রেলপথ রক্ষণাবেক্ষণকারী শ্রমিকরা সেখানে গিয়ে প্রায় ২০ মিনিট সময় ধরে পানি, বালি ও কাঁদা রেললাইনে ছিটিয়ে দেন। পরে লাইন ঠান্ডা হওয়ার পর ৩.১৪ মিনিটে ট্রেন ছেড়ে যায়।

রেলপথ রক্ষণাবেক্ষণকারী মিস্ত্রি রিপন মিয়া বলেন, গরমে হীট হয়ে রেল লাইন আঁকা-বাঁকা হয়ে যায়। খবর পেয়ে দৌড়ে সেখানে গিয়ে পাশ্ববর্তী ছড়া থেকে পানি, বালি ও কাঁদা ছিটিয়ে দেই। পরবর্তীতে ট্রেন ছেড়ে যায়।

শমশেরনগর রেলওয়ে স্টেশনের সহকারী স্টেশন মাস্টার উত্তম দেব বলেন, সাধারণত ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রার উপরে থাকলে অনেক সময় রেলপথ বাকলিং হয়ে পড়ে। মাত্রাতিরিক্ত গরমের কারনে রেলগেট এলাকায়ও রেলপথের কিছু লাইন বাকলিং হওয়ায় পাহাড়িকা এক্সপ্রেস আটকা পড়ে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin