মঙ্গলবার, ১৬ Jul ২০২৪, ০৬:৫৮ অপরাহ্ন


গোলাপগঞ্জে অর্থ আত্মসাৎকারীর বিরুদ্ধে এক বছরের সাজাসহ গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি

গোলাপগঞ্জে অর্থ আত্মসাৎকারীর বিরুদ্ধে এক বছরের সাজাসহ গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি


শেয়ার বোতাম এখানে

গোলাপগঞ্জ প্রতিনিধি:

সিলেটের গোলাপগঞ্জে অর্থ আত্মসাৎকারী কামিল আহমদের বিরুদ্ধে এক বছরের সাজাসহ ৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা জরিমানার আদেশসহ গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি করেছেন বিজ্ঞ আদালত। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারী মাসে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি করলেও প্রকাশ্যে এলাকায় ঘুরাফেরা করছেন কামিল আহমদ। রহস্যজনক কারণে পুলিশ ওই সাজাপ্রাপ্ত আসামিকে গ্রেফতার করছে না বলে অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী মামলার বাদি মোঃ জিল্লুর রহমান।

অর্থ আত্মসাৎকারী কামিল আহমদের বাড়ি উপজেলার ফুলবাড়ি ইউপির শ্রীবহর গ্রামে। সে মৃত আব্দুল মালিকের ছেলে।

উপজেলার দক্ষিণ রামপা গ্রামের মৃত আব্দুল বারীর ছেলে মোঃ জিল্লুর রহমানের সাথে কামিল আহমদের পুর্ব পরিচিত থাকায় সে সুবাদে কামিল আহমদ ৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা ঋণ নেন। উল্লেথিত টাকা ঋণ নেয়ার বেশ কয়েক দিন পর টাকা ফেরত দেয়ার জন্য বলেন জিল্লুর রহমান।

এতে করে কামিল আহমদ ওই ৭ লাখ ৫০ হাজারর টাকার বিনিময়ে সাউথইস্ট ব্যাংক লিমিটেড, হেতিমগঞ্জ শাখার হিসাব নং- ০০১২১০০০০১৭৬১৪, চেক নং- এসবি ৭৩৭১৯০৯, তাং-০৭/০৭/২০২০ইং টাকার পরিমান ৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা ও কামিল এন্টারপ্রাইজ এর ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের নামে অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড, হেতিমগঞ্জ শাখার হিসাব নং-০২০০০০৫৯০৫২৯৭, চেক নং- ৩১৭১-০৭৫৬৪৯৮, তারিখ ঃ ০৭/০৭/২০২০ইং টাকার পরিমান ৩ লাখ টাকাসহ দুইটি চেকের মাধ্যমে ৭ লাখ পঞ্চাশ হাজার টাকা প্রদান করেন।

মোঃ জিল্লুর রহমান টাকা নগদায়নের জন্য উল্লেখি তারিখে নিজ একাউন্ট পুবালী ব্যাংক লিমিটেড, হেতিমগঞ্জ শাখায় চেক নং- এসবি ৭৩৭১৯০৯ জমা দিলে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ টাকা নগদায়নের জন্য সাউথইস্ট ব্যাংক লিমিটেড, হেতিমগঞ্জ শাখায় প্রেরণ করলে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক থেকে একাউন্ট ক্লোজ ডোরম্যান্ট/ ব্লকেড মর্মে চেকটি ফেরৎ আসে।

অনুরূপ ভাবে টাকা নগদায়নের জন্য চেকের উল্লেখিত তারিখে জিল্লুর রহমানের নিজ চলতি হিসাব নাম্বারের পূবালী ব্যাংক লিমিটেড, হেতিমগঞ্জ শাখায় চেক নং ৩১৭১-০৭৫৬৪৯৮ জমা দিলে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক কর্তৃপক্ষ টাকা নগদায়নের জন্য অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড, হেতিমগঞ্জ শাখায় প্রেরণ করলে অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড, হেতিমগঞ্জ শাখার কর্তৃপক্ষ ইনসাফিসিয়াল ফাউন্ড মর্মে চেকটি ডিজনার করে ফেরৎ প্রদান করেন।

জিল্লুর রহমান তার টাকা ফেরত পাওয়ার জন্য কামিল আহমদের ঠিকানায় লিগ্যাল নোটিশ প্রদান করে টাকা ফেরত প্রদানের জন্য অনুরোধ করে ব্যর্থ হলে তিনি ২০২০ সালের আগস্ট মাসে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ১ম আদালতে সি.আর মামলা নং-১৬৬/২০২০ইং, দায়রা মামলা নং-৭৫০/২০২০ ইংরেজি দায়ের করলে বিজ্ঞ আদালত দীর্ঘ শুনানী ও দাখিলকৃত বিভিন্ন তথ্য পর্যালোচনা করে সত্যতা পেয়ে কামিল আহমদকে ১ বছরে সাজা ও ৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা জরিমানাসহ রায় প্রদান করেন।

কামিল আহমদ পলাতক থাকায় তার বিরুদ্ধে চলতে বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি করা হয়েছে। কামিল আহমদ গ্রেফতার এড়াতে পুলিশের চোখকে ফাকি দিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।

এদিকে মামলার বাদি মোঃ জিল্লুর রহমান অভিযোগ করেছেন আসামী কামিল আহমদ সাজার আসামী হয়েও প্রকাশ্যে ঘুরাফেরা করছেন পুলিশ রহস্যজনক কারণে আটক করছে না।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin