বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২১, ০৫:১৯ অপরাহ্ন

গোলাপগঞ্জে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থীদের দৌড়ঝাপ শুরু

গোলাপগঞ্জে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থীদের দৌড়ঝাপ শুরু


শেয়ার বোতাম এখানে

সুলতান আবু নাসের, গোলাপগঞ্জ: একাদশ জাতীয় সংসদের রেশ এখনো কাটেনি। এরই মাঝে দুয়ারে কড়া নাড়ছে উপজেলা নির্বাচন। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে নির্বাচন কমিশন ঘোষিত সময় অনুযায়ী আগামী ফেব্রুয়ারীর প্রথম সপ্তাহে ঘোষিত হতে যাচ্ছে উপজেলা নির্বাচনের তফসিল। মার্চে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে প্রথম দফার উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। সিলেটের প্রবাসী অধ্যুষিত গোলাপগঞ্জ উপজেলার সর্বত্রই এখন উপজেলা নির্বাচনের আলোচনা মানুষের মুখে মুখে ঘুরপাক খাচ্ছে। আর ঘোষণার পরপরই নড়েচড়ে বসেছেন উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাই চেয়ারম্যান পদে সম্ভাব্য রাজনৈতিক দলের ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। ইতিমধ্যে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও স্বতন্ত্র প্রার্থী ও সমর্থকদের মধ্যে তৎপরতা চোখে পড়ছে। তবে মাঠের প্রচারণার চেয়ে ডিজিটাল মিডিয়া ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারণা বেশিই চোখে পড়ে। এবার ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে দলীয় প্রতীকে নির্বাচন না হলেও চেয়ারম্যান পদে দলীয় প্রতীকে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে নির্বাচন। তাই সবার আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দু চেয়ারম্যান পদকে ঘিরেই। বড়দলগুলোর নেতারাও তাই চেয়ারম্যান পদে দলের মনোনয়ন নিশ্চিত করতে প্রচারণা,লবিং শুরু করে দিয়েছেন। এক্ষেত্রে সরকারি দল আওয়ামীলীগ এগিয়ে রয়েছে। সদ্য সমাপ্ত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিশাল জয় পাওয়ায়,নেতাকর্মীরা রয়েছেন ফুরফুরে মেজাজে। অন্যদিকে বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে নির্বাচনে পরাজয় আর বিভিন্ন কারণে সিদ্ধান্তহীনতা কাজ করছে। শরিক জামায়াতও রয়েছে বেকায়দায়। তাই হারানো দূর্গ ফিরিয়ে আনতে আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীরা বেশ আশাবাদী। গেলো ২০১৪ সালের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান আওয়ামীলীগ-বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থীদের ছড়াছড়ির সুযোগে জয় ছিনিয়ে নেয় জামায়াত। আওয়ামীলীগের প্রার্থী সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি ইকবাল আহমদ চৌধুরীকে অল্প ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন জামায়াত নেতা হাফিজ নজমুল ইসলাম। এবারও নির্বাচন করার কথা জানিয়ে তিনি জানান তিনি এখনও দল ও জোটের সিদ্ধান্তের দিকে চেয়ে আছেন। তবে আওয়ামীলীগের দুর্গ হিসেবে পরিচিত গোলাপগঞ্জের উপজেলা চেয়ারম্যানের পদটি আবারও নিজেদের ঘরে আনতে মরিয়া আওয়ামীলীগ। বার্ধ্যক্যজনিত কারণে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি ইকবাল আহমদ চৌধুরী নির্বাচনে অংশ না নেওয়ার সম্ভাবনাই বেশি। আওয়ামীলীগের সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনী মাঠে আছেন সিলেট জেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও গোলাপগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান হুমায়ূন ইসলাম কামাল, সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিষ্ট্রার বদরুল ইসলাম শুয়েব, গোলাপগঞ্জ উপজেলা আ’লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লুৎফুর রহমান, জেলা আওয়ালীগের সদস্য ও পৌর আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মিছবাহ উদ্দিন, উপজেলা আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক আকবর আলী ফখর, সেচ্ছাসেবকলীগের কেন্দ্রীয় সদস্য আব্দুল ওয়াহাব জোয়ারদার মছুফ, সিলেট মহানগর যুবমহিলা লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাজিরা বেগম শীলা, সিলেট মহানগর সেচ্ছাসেবকলীগের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মনসুর আহমদ, উপজেলা সেচ্ছাসেবকলীগের সাবেক সভাপতি শামছুল আলম লস্কর, সিনিয়র সাংবাদিক জাতীয় দৈনিক জাগরণ পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক দুলাল আহমদ চৌধুরী, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এমএ ওয়াদুদ এমরুল ও সিলেট জেলা যুবলীগ নেতা শাহিন আহমদ। এদিকে বিএনপি থেকে আলোচনায় আছেন সিলেট জেলা বিএনপির উপদেষ্টা এ্যাড. মাও রশিদ আহমদ, উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও লক্ষণাবন্দ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নছিরুল হক শাহিন, উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও ভাদেশ^র ইউনিয়ন চেয়ারম্যান জিলাল আহমদ, গোলাপগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান নুমান উদ্দিন মুরাদ। এছাড়াও জোটগতভাবে নির্বাচনে আসলে মনোনয়ন চাইতে পারেন জামায়াত নেতা বর্তমান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হাফিজ নজমুল ইসলাম। নির্বাচন নিয়ে সিলেট জেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও গোলাপগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান হুমায়ূন ইসলাম কামাল জানান দলীয় প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন চাইব। দলীয় মনোনয়নের সিদ্ধান্ত আমার দিকে এলে অবশ্যই নির্বাচন করব। গোলাপগঞ্জ উপজেলা আ’লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লুৎফুর রহমান জানান, নৌকা প্রতীক চাইব। দলীয় সমর্থন পেলে আমি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করব। সেচ্ছাসেবকলীগের কেন্দ্রীয় সদস্য আব্দুল ওয়াহাব জোয়ারদার মছুফ জানান, দীর্ঘদিন থেকে দলীয় রাজনীতিতে ও সামাজিক কাজে এলাকায় নিয়োজিত আছি। আশাকরি দলীয় মনোনয়ন পাবো। সিলেট মহানগর সেচ্ছাসেবকলীগের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মনসুর আহমদ জানান, ওয়ান ইলেভেন থেকে শুরু করে দলের দুঃসময়ে দলের পাশে থেকে কাজ করেছি। আমার কাজ বিবেচনায় দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার ব্যাপারে আমি শতভাগ আশাবাদী। উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এমএ ওয়াদুদ এমরুল বলেন, আমি দীর্ঘদিন ছাত্ররাজনীতি করেছি। তরুণ প্রজন্মের প্রতিনিধি হয়ে এলাকার উন্নয়নে কাজ করতে চাই। আমি নৌকার মনোনয়ন চাইব। এদিকে জেলা বিএনপির উপদেষ্টা ও উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী এ্যাড. মাও রশিদ আহমদ বলেন আমি এখনও সিদ্ধান্তহীনতায় আছি। তবে উপজেলার তৃণমূলের মানুষ চাইছেন আমি নির্বাচনে অংশ নেই। দল নির্বাচনে গেলে দলীয় মনোনয়ন চাইব। অন্যথায় স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করব। উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও লক্ষণাবন্দ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নছিরুল হক শাহিন বলেন আমি নির্বাচনে অংশ নেওয়ার ব্যাপারে ইতিবাচক। তবে দলীয় অংশগ্রহণের উপর তা নির্ভর করছে। উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও ভাদেশ^র ইউনিয়ন চেয়ারম্যান জিলাল আহমদ বলেন দল নির্বাচনে গেলে এবং দল আমাকে মনোনয়ন দিলে নির্বাচন করব। গোলাপগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান নুমান উদ্দিন মুরাদ বলেন আমি নির্বাচনে অংশ নেব। তবে দলীয় সিদ্ধান্তের দিকে চেয়ে আছি। উপজেলা নির্বাচন অফিসের তথ্য অনুসারে, গোলাপগঞ্জে একটি পৌরসভা ও ১১টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত এ উপজেলায় মোট ভোটার ২লক্ষ ২২হাজার ৫শত।



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin